নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১১ জানুয়ারি ২০১৭, ২৮ পৌষ ১৪২৩, ১২ রবিউস সানি ১৪৩৮
বাণিজ্যমেলা ২০১৭
ক্রেতাদের সরব উপস্থিতিতে মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ
নারীদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে ক্রোকারিজ সামগ্রী
মো. কামরুল হাসান
২২তম ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্যমেলা ক্রমান্বয়ে জমে উঠেছে। সাধারণত সরকারি ছুটির দুই দিন মেলা প্রাঙ্গণ লোকে লোকারণ্য হয়ে যায়। কিন্তু এই প্রথাও এবার যেন ভাঙতে চলেছে। স্থিতিশীল রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে প্রতিদিনই মেলায় লোক সমাগম বাড়ছে। এতে ব্যবসায়ীরা যেমন খুশি তেমনি ক্রেতারাও আনন্দিত। তবে মেলার অভ্যন্তরে হালকা খানাপিনা করতে যেয়ে অনেকেই কিছুটা নাস্তানুুবুদ হচ্ছেন। আর এ কারণে ইদানীং যারা বেশ কয়েকবার মেলায় এসেছেন তারা খুব সন্তর্পণে খাবারের স্টলগুলো এড়িয়ে চলছেন। এদিকে মেলায় প্রতিবারের মতোই নারীদের আধিক্য ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর তাদের চাহিদার দিকে নজর রেখেই ব্যবসায়ীরা ক্রোকারিজ পণ্যের বিশাল সমাহার নিয়ে এসেছেন। জানা গেছে, নতুন-পুরাতন ডিজাইন এবং বিভিন্ন প্রকারভেদের প্রায় হাজার পাঁচেক রান্নাঘর পণ্য স্থান পেয়েছে এবারের মেলায়। গতকাল মঙ্গলবার ছিল বাণিজ্য মেলার দশম দিন। বরাবরের মতোই দিনের শুরুতে বাণিজ্য মেলার গেটে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো। এরপর দুপুরের পর বিকেলের দিকে প্রায় সব বয়সী এবং সব শ্রেণীর সাধারণ মানুষের সরব পদচারণায় মুখর হয়ে উঠে মেলা প্রাঙ্গণ। তবে বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষাকৃত কম বয়সীরা কেনাকাটার তুলনায় ব্যস্ত ছিল মেলার ভেতরে ঘুরে বেরাতে আর সেলফি তোলায়। এসময় অনেক কেই দেখা যায় মেলার চত্বরে বসে নিজ বাসা থেকে নিয়ে আসা খাবার খেতে। এর কারণ জানতে চাইলে কয়েকজন জানান, মেলায় খাবারের দাম ভীষণ চড়া। কিছু কিছু খাবারের দাম দ্বিগুণ থেকে চারগুণ পর্যন্ত বৃদ্ধি করা হয়েছে। সামান্য এক প্লেট ফুচকার দাম এখানে চাওয়া হচ্ছে ১০০ টাকা যা বাইরে ৩০-৩৫ টাকা। এমন অবস্থায় এখানে খাওয়া মানে জেনেশুনে নিজের টাকা আগুনে পোড়ানো।

এদিকে মেলায় এবার নারীদের আগ্রহের শীর্ষে রয়েছে ক্রোকারিজ সামগ্রী। গৃহিণীদের দিনের একটা বড় সময় কাটে রান্নাঘরে?। এ ঘরটি পরিপাটি রাখতে তারা বেশ সচেতনও। তই নারী বা গৃহিণীদের কাজ আরও সহজ এবং গতিশীল করতে প্লেট, মগ, বাটি, চামচ, হাঁড়ি, ডিশ, কড়াইসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রায় ৫ হাজার ক্রোকারিজ আইটেম বাণিজ্য মেলায় আনা হয়েছে। বাণিজ্য মেলার বিভিন্ন স্টল ঘুরে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এমন তথ্য জানা গেছে। ব্যবসায়ীরা জানান, নিত্য নতুন নকশা করা যেসব জিনিসপত্র আমরা মেলায় নিয়ে আসি, তা সচরাচর বাজারে পাওয়া সম্ভব না। মেলাকে কেন্দ্র করেই এসব পণ্য দিলি্ল ও থ্যাইল্যান্ড থেকে আমদানি করা হয়েছে। বাটি, হাঁড়ি, পানদানি থেকে শুরু করে সব আছে। এসব পণ্যের দাম ৩২০ টাকা থেকে ৬ হাজার টাকা পর্যন্ত। এছাড়াও ওয়াটার ফিলটার থেকে শুরু করে হাইড্রোলিক হাঁড়িসহ প্রায় ২ হাজার রকমের পণ্য মেলায় আনা হয়েছে। এসব পণ্যের দাম ৫০০ টাকা থেকে শুরু করে ৮ হাজার টাকা পর্যন্ত।

মেলায় কেনাকাটা করতে আসা মগবাজারের বাসিন্দা ফিরোজা বেগম দৈনিক জনতাকে বলেন, বাণিজ্য মেলায় প্রতিবারই আসা হয়। এটা আসলে ব্যস্ত নগরীতে এক চিলতে আনন্দের মতো। এখানে মূল যেটা আমার কাছে গুরুত্বপূর্ণ মনে হয় তা হলো, সবকিছু এক সঙ্গে কিনতে পারা। এ কারণে এই মেলা আরো বেশি পছন্দ করি। তিনি জানান, এবার আজ নিয়ে তিন দিন আসা হলো। ভবিষ্যতে আরো কয়েকবার আসা হবে। এখন পর্যন্ত অনেক কিছুই কিনেছি। তবে এর মধ্যে ক্রোকারিজ সামগ্রী বেশি কেনাকাটা করেছি। রান্নাঘরটা সুন্দর আর সেখানে হাতের কাছে সবকিছু যাতে পাওয়া যায় সেটাই মূল উদ্দেশ্য। বাসন, প্লেট, মগ, গ্লাস, ওয়াটার ফিল্টারসহ অনেক কিছুই কিনেছি। আরো কেনাকাটা বাকি আছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২১
ফজর৪:৫৮
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৭১৫.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.