নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১১ জানুয়ারি ২০১৯, ২৮ পৌষ ১৪২৫, ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪০
হোটেল রেস্টুরেন্টে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ
মাধবদীতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে গ্রাহক
মাধবদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি
মাধবদী পৌর শহর ও বাংলার ম্যানচেস্টার খ্যাত শেখেরচর বাবুর হাটে শতাধিক হেটেল রেস্টুুরেন্ট রয়েছে। এসব হোটেল ও রেস্টুরেন্ট মালিকরা এখন বেপরোয়া হয়ে পড়েছে।

কারণ দীর্ঘদিন কোন সংশ্লিষ্ট প্রশাসনিক তৎপরতা নেই। ফলে স্বাস্থ্য সুরক্ষার নিয়ম নীতি উপেক্ষা করে নিম্নমানের খাবার ও বিশুদ্ধ পানির নামে ট্রাঙ্কিতে জমা করা পানি বেতলজাত করে খাবার টেবিলে সরবরাহ করে অতিরিক্ত বিল নিচ্ছে বলেও অভিযোগ রয়েছে। গরুর মাংসের নামে খাওয়ানো হচ্ছে মহিষের মাংস, আর খাসির মাংসের নামে ছাগল ভেড়ার মাংস চড়া মূল্যে পরিবেশন করা হচ্ছে হোটেল গুলিতে।

প্রায় প্রতিটি সাধারণ ও হাইফাই হোটেল রেস্টুরেন্ট এ খোঁজ নিয়ে জানাযায় প্রতি দিনই রাতের আঁধারে মাধবদীতে ময়লার ভাগার ব্রহ্মপূত্র নদের কিনারে অস্বাস্থ্যকর দূষিত পরিবেশে ১০ থেকে ১৫টি মহিষ জবাই করা হয়।

এখান থেকে চামড়া ছিলে বিক্রি করে ভোরে সরবরাহ করা হয় কষাই খানা বা মাংস বিক্রেতাদের দোকানে। এ ছাড়াও প্রায় ৮০% হোটেল রেস্টুরেন্ট এর নোংরা অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার পরিবেশিত হচ্ছে। ফলে ছড়াচ্ছে নানা রোগ জীবানু। খাবার শেষ করার পর গ্রাহকের প্লেটটি একটি প্লাস্টিক বা সিলভারের পাত্রে রাখা ময়লা ও নোংরা পানিতেই সারা দিন শুধু চুবিয়ে আরেকজনকে সে প্লেটটিতেই খাবার দিচ্ছে। অন্যদিকে অধিকাংশ হোটেল রেস্টুরেন্টই রাস্তার পাশে ধুলা বালি যুক্ত পরিবেশে তৈরি করা হয় খাদ্য সামগ্রী। মিষ্টি দোকান গুলিতে ভেজাল মিষ্টির পাশপাশি প্যাকেটের তলায় ভারী টিশ লাগিয়ে ৩/৪শ'গ্রাম পর্যন্ত ওজনে কম দিচ্ছি। এমনটি দেখাগেছে মধাবদী বটতলায় সাধন বাবুর মিষ্টি দোকানে।

তার পাশের ত্রিনাথ বাবুর দোকানে কিছুদিন পূর্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে ভারী প্যাকেটের কারণে ২০ হাজার টাকা জড়িমানা আদায় করে। ঐদিন সাধন তার দোকান বন্ধ করে ফেলেছিল। অধিকাংশ দোকানের খাদ্যজাত দ্রব্য তৈরি হয় রাস্তার কিনারে। সারাদিন গাড়ি চলাচলের সময় এবং বাতাসে রাস্তার ধুলাবালি তৈরি খাদ্য সামগ্রীতে পড়ছে যাতে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছে সাধারণ গ্রাহকগণ। বাড়ছে নানা রোগ ব্যাধি প্রতিদিনই।

ফলে স্থানীয় হাসপাতাল ও ক্লিনিক গুলিতে নানা পেটের পীড়া, ডায়রিয়া, ডিসেন্ট্রি জনিত রোগীর ভিড় বেড়েই চলেছে বলে জানিয়েছেন কয়েকটি স্বাস্থ্য সেবা ক্লিনিক। পরিচালকরা।

মাধবদী পৌর কর্তৃপক্ষ দু'একটি আবাসিক হোটেল বন্ধ করলেও বছরের পর বছর নোংরা পরিবেশে খাদ্যজাত দ্রব্য পরিবেশণ করা হোটেল ও মিষ্টি দোকানগুলি থেকে ট্যাঙ্ আদায় করলেও স্বাস্থ্য সম্মত খাবার পরিবেশন বা পরিচ্ছন্নতার বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নিচ্ছে না এবং স্বাস্থ্য বিধি উপেক্ষা করলেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দীর্ঘদিন কোন নজরদারী লক্ষ্য করা যাচ্ছে না রহস্যজনক কারণে। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন আক্রান্ত ব্যক্তি বর্গ ও দূর দূরান্ত জেলা থেকে ব্যবসায়িক প্রয়োজনে আসা হোটেল রেস্টুরেন্ট গ্রাহক সাধারগণ।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুন - ১৬
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৫০
এশা৮:১৫
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৫
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৯৯১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.