নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ৩০ পৌষ ১৪২৪, ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৯
দিনাজপুরে অর্ধকোটি টাকার ঋণ ও অনুদান নিয়ে এনজিও কর্মহীন
দিনাজপুর থেকে শামীম রেজা
দিনাজপুরে দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থিক উন্নয়নের প্রকল্প দেখিয়ে এক এনজিও অর্ধকোটি টাকার ঋণ ও অনুদান নিলেও তাদের নেই কোনো কার্যক্রম। অস্তিত্বহীন হতে বসেছে হায় হায় এনজিওটি।

দিনাজপুরের ফুলবাড়ী উপজেলায় বহুমুখী পল্লী উন্নয়ন সংস্থা নামক এক বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা দরিদ্র জনগোষ্ঠীর আর্থিক উন্নয়নের লক্ষ্যে প্রকল্প দেখিয়ে অর্ধ কোটি টাকার ঋণ ও অনুদান নিলেও তাদের নেই কোন কার্যক্রম। উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা আখতারুজ্জামান বলেন, বহুমুখী পল্লী উন্নয়ন সংস্থার ফুলবাড়ী রাজারামপুর অফিসের বাড়িটিতে এখন বসবাস করছেন নির্বাহী পরিচালক রফিকুল ইসলাম। ২০০৬ সালে ৩ বছরের জন্য সংস্থার নির্বাহী কমিটি অনুমোদন হলেও ২০০৯ সালের ২৫ জুলাই মেয়াদ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত কোনো কমিটি গঠন করা হয়নি। সংস্থার ঋণ বিতরনের কাগজপত্র দেখতে চাইলে তা দেখাতে ব্যর্থ হন।

খোজ নিয়ে জানা যায়, সংস্থার নামে ফুলবাড়ী পৌর এলাকার গৌরীপাড়া মৌজার ১২০/৪৫৭ নং দাগের লিজ নেয়া ৪ শতক জমির উপর নির্মিত দ্বিতল বাড়িটি ২০১৬ সালের ২ অক্টোবর জয় চৌধুরী নামে একজনের কাছে বিক্রি করা হয়েছে।

উপজেলা ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১৯৯২ সালে রফিকুল ইসলাম নিজেকে অসচ্ছল মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিয়ে ৪ শতক জমি লিজ নেন। অথচ রফিকুল ইসলাম একজন সাবেক বিডিআর সদস্য। পরিচয় গোপন করে লিজ গ্রহণ করায় ২০১০ সালের ২৭ আগষ্ট লিজটি বাতিল করে উপজেলা ভূমি অফিস। অথচ নিজের জমির উপর নির্মিত দ্বিতল বাড়িটি বন্ধক রেখে সংস্থার নামে অর্ধকোটি টাকা ঋণ গ্রহণ করেন রফিকুল ইসলাম। লিজ বাতিল হওয়ার পরেও বাড়িটি ১৪ লাখ টাকায় বিক্রি করেন। এলাকাবাসী জানায়, রফিকুল ইসলাম এনজিও'র নামে ফুলবাড়ী হেলথ কেয়ার নামে একটি ক্লিনিক খোলেন। ক্লিনিকটি স্বাস্থ্যসেবামুলক প্রতিষ্ঠান দেখিয়ে সরকারের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে প্রায় ৫০ লাখ টাকা গ্রহণ করে।

অপরদিকে ব্যাংকে বন্ধক রাখা জমি প্রতারণার মাধ্যমে বিক্রি করায় বিপাকে পড়েছে জমির ক্রেতা। ১৪ লাখ টাকা দিয়ে জমি কিনে ৫০ লাখ টাকার দেনা এখন জমির গ্রাহকের মাথায়।

জমির ক্রেতা জয় চৌধুরী বলেন, বর্তমানে রাজারামপুর বিজিবি ক্যাম্প পাড়ায় বসবাসরত মো. রফিকুল ইসলাম ২০১৬ সালের ২ অক্টোবর তার নিকট ১৪ লাখ টাকায় পশ্চিম গৌরীপাড়া মৌজার বাড়িসহ ৪ শতক জমি বিক্রি করেন। ঐ বাড়িতে ডক্টরস পয়েন্ট নামে একটি ডায়গনস্টিক সেন্টার চালু করেন। বাংলাদেশ ব্যাংক ও সমাজ কল্যাণ অধিদফতর থেকে চিঠি আসছে। ওই বাড়িটি বন্ধক রেখে বাড়ীর পুর্বের মালিক রফিকুল ইসলাম প্রায় ৫০ লাখ টাকা বাংলাদেশ ব্যাংক ও সমাজ কল্যাণ থেকে গ্রহণ করেছে। ঐ টাকা পরিশোধ না করা হলে তাকে ব্যাংকের নিকট বাড়ির দখল ছাড়তে হবে। এই কারণে বাড়িটির পূর্বের মালিক রফিকুল ইসলামকে ব্যাংক ও সমাজ কল্যানের ঋণ পরিশোধ করার কথা বললে, রফিকুল ইসলাম তাকে হুমকি দিচ্ছে।

রফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বাড়ি বিক্রি ও বন্ধক রাখার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা না হলে সরকার কি দেখে জায়গা দিলো।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীএপ্রিল - ২৫
ফজর৪:০৯
যোহর১১:৫৭
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৭
এশা৭:৪৪
সূর্যোদয় - ৫:২৯সূর্যাস্ত - ০৬:২২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৯০০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.