নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ৩০ পৌষ ১৪২৪, ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৯
পুলিশের করা হত্যা মামলা থেকে এসআই জাহিদকে অব্যাহতি
স্টাফ রিপোর্টার
ঝুট ব্যবসায়ী মাহবুবুর রহমান সুজন হত্যাকা-ে পুলিশের করা মামলা থেকে মিরপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদসহ ৮ জনকে অব্যাহতি দিয়েছেন আদালত। অব্যাহতি পাওয়া ৮ জনের মধ্যে ৪ জনই পুলিশের সদস্য।

অপরদিকে এ ঘটনায় মহানগর দায়রা জজ আদালতে জাহিদসহ ৫ জনের বিরুদ্ধে করা মামলাটিও উচ্চ আদালতের আদেশে স্থগিত রয়েছে। মামলাটিতে ১৫ মাসে সাক্ষ্যগ্রহণ হয়েছে মাত্র ৬ জনের।

পুলিশের করা হত্যা মামলার অব্যাহতির আবেদনে উল্লেখ করা হয়, হত্যার ঘটনায় মহানগর দায়রা জজ আদালতে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় অপর একটি মামলা করা হয়েছে। একই ঘটনায় ২টি মামলা আইনে চলতে না পারায় আসামিদের অব্যাহতি প্রদান করা হলো।

এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু বলেন, ঝুট ব্যবসায়ী মাহমুদর রহমান সুজন হত্যার ঘটনায় মহানগর দায়রা জজ আদালতে একটি মামলা করা হয়েছে। মামলাটি বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে। অপরদিকে, পুলিশ বাদী হয়ে আরেকটি মামলা দায়ের করে। একই ঘটনায় আইনে ২ মামলা চলার সুযোগ নেই। তাই পুলিশের দায়ের করা হত্যা মামলা থেকে আসামিদের অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সুজনের ভাই শামীম বলেন, পুলিশের মামলা হতে এসআই জাহিদকে অব্যাহতি দেয়ায় আমরা মর্মাহত। আমরা ন্যায় বিচার হতে বঞ্চিত হয়েছি।

সুজনের স্ত্রী লুসির মামলা পরিচালনাকারী জাতীয় মহিলা আইনজীবী সমিতির সদস্য শাহীনা মমতাজ বলেন, সুজন হত্যা মামলাটির মহানগর দায়রা জজ আদালতে সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য রয়েছে। মামলাটি বর্তমানে উচ্চ আদালতের আদেশে স্থগিত রয়েছে।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ১৪ জুলাই মাহবুবুর রহমান সুজন হত্যার ঘটনায় এসআই জাহিদসহ ৮ জনকে আসামি করে মিরপুর মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন পুলিশের উপ-পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম। মামলার অপর আসামিরা হলেন, এএসআই রাজকুমার, কনস্টেবল আনোয়ার, রাশেদুল, সোর্স নাসির, পলাশ, খোকন ও ফয়সাল। ২০১৭ সালের ৩০ জানুয়ারি এসআই জাহিদসহ ৭ আসামিকে অব্যাহতি দিয়ে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন মামলা তদন্তকারী কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক শাহাবুদ্দীন।

চূড়ান্ত প্রতিবেদনে তিনি উল্লেখ করেন, ঝুট ব্যবসায়ী সুজন হত্যার ঘটনায় মিরপুর মডেল থানায় একটি হত্যা মামলা করা হয়। এরপর তার স্ত্রী লুসি মহানগর দায়রা জজ আদালতে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যুর ঘটনায় আরেকটি মামলা দায়ের করেন।

একই ঘটনায় ২টি মামলা চলতে পারে কিনা এ বিষয় আদালতে গিয়ে ডিসি প্রসিকিউশনের সঙ্গে পরামর্শ করা হয়। ডিসি প্রসিকিউশনের মতামত অনুযায়ী একই ঘটনায় ২টি মামলার বিচারের সুযোগ না থাকায় আসামিদের অব্যাহতি দিয়ে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হলো।

২০১৭ সালের ৫ অক্টোবর ঢাকা মহানগর হাকিম মাজহারুল হক অব্যাহতি আবেদনটি গ্রহণ করেন।

অপরদিকে একই ঘটনায় ২০১৪ সালের ২০ জুলাই নিহত সুজনের স্ত্রী লুসি বাদী হয়ে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে আরও একটি মামলা করেন। ঐ মামলায় একই বছরের ৩০ অক্টোবর ঢাকা মহানগর হাকিম আশিকুর রহমান এসআই জাহিদ, এএসআই রাজকুমার, কনস্টেবল আসাদ, রাশেদুল ও মিথুনকে অভিযুক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

২০১৫ সালের ২১ সেপ্টেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন মহানগর দায়রা জজ আদালত। মামলাটি সাক্ষ্যগ্রহণের জন্য রয়েছে।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজানুয়ারী - ২৪
ফজর৫:২৩
যোহর১২:১১
আসর৪:০৪
মাগরিব৫:৪৩
এশা৬:৫৮
সূর্যোদয় - ৬:৪১সূর্যাস্ত - ০৫:৩৮
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৯৬১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.