নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১৩ জানুয়ারি ২০১৮, ৩০ পৌষ ১৪২৪, ২৪ রবিউস সানি ১৪৩৯
কিশোরগঞ্জে পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ
কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস
জেলার একটি সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদমর্যাদার এক কর্মকর্তা তার নিজ কক্ষেই এক নারীকে আটকে রেখে যৌন নির্যাতন করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। মামলার প্রয়োজনে থানায় যাওয়া ওই নারী ঘটনার পর কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি হন। হাসপাতালের ভর্তি রেজিস্টারেও 'যৌন নির্যাতনের' বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে। গত ৫ জানুয়ারি দুপুরে এ ঘটনা ঘটে। তবে অভিযুক্ত পুলিশ কর্মকর্তা যৌন নির্যাতনের ঘটনা অস্বীকার করে তার সঙ্গে ওই নারীর শুধু কথা কাটাকাটি হয়েছে বলে দাবি করেছেন। দুই সন্তানের জননী ওই নারী ৬ জানুয়ারি কিশোরগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে এ প্রতিনিধিকে বলেন, আমার পরিবারের বিরুদ্ধে বেশ ক'টি মামলা আছে। স্বামী সিলেটে চাকরি করায় আমাকে মামলার খোঁজ খবর নিতে হয়। ওই পুলিশ কর্মকর্তা এসব মিথ্যা মামলায় অনেক সহযোগিতা করেছিলেন। আমার ছেলের বিরুদ্ধে একটি মামলায় তার সহযোগিতা ও পরামর্শ নিতে শুক্রবার দুপুরে আমি তার অফিসে যাই। কথাবার্তার একপর্যায়ে তিনি বলেন, আমি তো তোমার সব কথাই রেখেছি, বিনিময়ে আমারে কী দিবা? আমি বলি, কেন, আপনাকে তো টাকা-পয়সাই দিয়েছি। এ কথা বলতে না বলতেই তিনি দরজা বন্ধ করে আমার ওপর চড়াও হন। মুখ চেপে ধরে জোরপূর্বক আমার মান ইজ্জত মেরে সর্বনাশ করেন। দ্বিতীয়বার সর্বনাশের চেষ্টা করলে আমি তাকে চড় মেরে দরজা খুলে দৌড়ে পালিয়ে আসি। এ সময় ওই সার্কেলের থানার মূল ভবনের সামনে একজন মহিলা সেন্ট্রি ছাড়া আর কেউ ছিল না। আমি সোজা হাসপাতালে যাই। এদিকে ওই নারীকে হাসপাতালে ভতির্র পর দু'জন গাইনি চিকিৎসক তার পরীক্ষা করেন। ভর্তি রেজিস্টারেও 'সেঙ্ুয়াল অ্যাসল্ট' লেখা রয়েছে। ভর্তির পর প্রাথমিক পরীক্ষায় অংশ নেয়া হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার ভর্তি টিকিটে রোগীর বুকে স্পর্শকাতর স্থানে আঁচড়ের আলামত থাকার কথা উল্লেখ করেছেন। পরে রোববার ওই নারী কাউকে না বলে হাসপাতাল ত্যাগ করেন। ভর্তি রেজিস্টারে থাকা মোবাইল নম্বরে ফোন করে তা বন্ধ পাওয়া যায়। অভিযোগ বিষয়ে জানতে চাইলে ওই পুলিশ কর্মকর্তা মুঠোফোনে প্রথমে ঘটনাটি অস্বীকার করেন। এ সময় ওই গৃহবধূর নাম উল্লেখ করা হলে তিনি বলেন, হ্যাঁ, সে এসেছিল। তবে তার সঙ্গে কোনো যৌন নির্যাতনের ঘটনা ঘটেনি। তার সঙ্গে শুধু কথাকাটাকাটি হয়েছিল। পুলিশ কর্মকর্তা দাবি করেন, পানি ঘোলা করতেই ওই নারী আমার বিরুদ্ধে এ ধরনের মিথ্যা অভিযোগ করেছেন।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ২৩
ফজর৩:৫৯
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১০
সূর্যোদয় - ৫:২৪সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫০৫৯.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.