নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ১৪ জানুয়ারি ২০২০, ৩০ পৌষ ১৪২৬, ১৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১
কেশবপুরে এ্যাড. ইসলামের উদ্যোগে বদলে গেছে কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজ ও সড়কের চেহারা
কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি
সুপ্রিম কোর্টের বিশিষ্ট আইনজীবি কেশবপুরের কৃতী সন্তান হুসাইন মোহাম্মদ ইসলামের মহতী উদ্যোগে বদলে গেছে কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজ ও সড়কের চেহেরা । ৪ তলা বিশিষ্ট কলেজের নতুন ভবনের কাজ সম্পন্ন হওয়ার পর দ্রুত গতিতে চলছে সড়ক পাকা করনের কাজ।

জানা গেছে, ১৯৮৭ সালে কেশবপুর উপজেলার সরসকাটি গ্রামের মরহুম এরশাদ আলী গাজী কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজটি স্থাপিত করেন। কপোতাক্ষ নদ তীরবর্তি হওয়ায় কলেজটির নামকরন করা হয়েছে কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজ।

বর্তমানে উক্ত কলেজে প্রায় ৫০০ ছাত্র-ছাত্রী ও ৫০ জন শিক্ষক -কর্মচারী রয়েছে। উক্ত কলেজে লেখা-পড়ার মান ভাল হওয়ায় পাশ্ববর্তি কলারোয়া, তালা ও পাটকেলঘাটা উপজেলার অনেক ছাত্র-ছাত্রী এই কলেজে ভর্তি হন। এ্যাড. হুসাইন মোহাম্মদ ইসলাম উক্ত কলেজের সভাপতির দায়িত্ব নেওয়ার পর দ্রুত সময়ের মধ্যে দীর্ঘদিনের অবহেলিত এই কলেজ ও সড়কের চেহেরা পাল্টে দিতে সক্ষম হয়েছে। কেশবপুরের কৃতি সন্তান ঢাকা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি আওয়ামীলীগের অন্যতম নেতা ২০-০৯-২০১৫ সালে কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজের সভাপতি নির্বাচিত হন। সভাপতি হওয়ার পর অত্র কলেজের শিক্ষক-কর্মচারী,শিক্ষার্থী,অভিভাবক ও এলাকাবাসীদের ডেকে তাদের দীর্ঘদিনের সমস্যার কথা শোনেন এবং তাদের দাবী নতুন ভবন ও পাকা রাস্তা করনের দাবির প্রতি পূর্নসমর্থন জ্ঞাপন করে সেটি দ্রুত সমাধানের আশ্বাস দেন। সরকারী উপর মহলে ভালো যোগাযোগ ও গ্রহনযোগ্যতা থাকায় তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টার মাধ্যমে তিনি দীর্ঘদিনের দাবি পুরন করতে সক্ষম হয়েছেন। তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় সরকার কলেজের নতুন ভবন নির্মান ও সড়ক পাকা করনের জন্য ৩ কোটি ৩০ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেন। গত ২০১৮ সালের প্রথম দিকে ২ কোটি ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ৪ তলা বিশিষ্ট কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজের নতুন ভবনের কাজ শুরু হয় এবং ১৯ সালের শেষ দিকে ভবন নির্মান কাজ সমাপ্ত হয়েছে।

এদিকে ভবন নির্মানের কাজ শেষ হতে না হতে শুরু হয়েছে কলেজের রাস্তার কাজ। সরসকাটি বাজারের কলেজ গেট থেকে শুরু করে রঘুরামপুর ভায়া মঙ্গলকোট সড়কের প্রায় ১১শ মিটার কাঁচা রাস্তা পাকা করনের কাজ শুরু হয়েছে। ১ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে এই রাস্তা পাকারনের কাজ শেষ হলে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর যাতায়াতের ক্ষেত্রে আর কোন দুর্ভোগ থাকবে না। কলেজ ও রাস্তার ব্যাপারে স্থানীয় লোকজন ও অভিভাবকদের সাথে কথা হলে তরা কলেজের সভাপতি এ্যাড.হুসাইন মো. ইসলামের ভুয়োশী প্রশংসা করে বলেন, তিনি একজন অত্যান্ত মেধাবী ও বিচক্ষন ব্যক্তি। তার বুদ্ধিমত্তা,ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও বিচক্ষনতায় কলেজের লেখাপড়ার মান, যোগাযোগ ব্যবস্থা, শৃংখলা ও ভাবমূর্তি উজ্জল হয়েছে। কলেজের সার্বিক উন্নয়ন ও পরিচালনার ক্ষেত্রে সভাপতির কোন বিকল্প নেই।

কপোতাক্ষ সম্মিলনী ডিগ্রী কলেজ গভার্ণিংবডির সভাপতি এ্যাড. হুসাইন মোহাম্মদ ইসলাম বলেন, শিক্ষার্থীদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে কলেজের সার্বিক উন্নয়নে আমার চেষ্ট অব্যাহত থাকবে।

কলেজের ভাবমূর্তি অক্ষুন্ন রাখতে তিনি সকলের সার্বিক সহযোগীতা কামনা করেন। অত্র কলেজের অধ্যক্ষ মো. তৌহিদুজ্জামান বলেন, ছাত্র-ছাত্রীর তুলনায় ক্লাসরুম স্বল্পতার কারনে দীর্ঘদিন ধরে কলেজে পাঠদান ব্যাহত হচ্ছিল। সভাপতি এ্যাড. হুসাইন মোহাম্মদ ইসলঅমের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় কলেজের নতুন ভবন হওয়াতে ও কলেজের কাঁচা রাস্তা পাকা করনের কাজ চলমানের কারনে দীর্ঘদিনের সেই সমস্য লাঘব হয়েছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজানুয়ারী - ২৪
ফজর৫:২৩
যোহর১২:১১
আসর৪:০৪
মাগরিব৫:৪৩
এশা৬:৫৮
সূর্যোদয় - ৬:৪১সূর্যাস্ত - ০৫:৩৮
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৫৩৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.