নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১
নাঙ্গলকোটে গভীর নলকূপের ঘর ভাঙচুর বিপাকে কয়েকশ' কৃষক
নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) থেকে মো. রেজাউল করিম রাজু
কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে শত শত কৃষকের সেচ বন্ধ করে নলকূপের ঘর ভাঙচুর করে সকল যন্ত্রপাতি লুটপাট করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের মৃত নুরুজ্জামানের ছেলে মোস্তফা মজুমদার নামের এক প্রভাবশালীর বিরুদ্ধে। এতে করে বিপাকে ওই এলাকায় চাষকৃত শত শত ফসলি জমির মালিকরা। উপজেলার দৌলখাঁড় ইউপির কান্দাল উত্তর পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গত সোমবার ওই নলকূপের অন্যতম শেয়ারদার বর্তমান মেম্বার আইয়ুব আলী মজুমদার থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কান্দাল উত্তর পূর্বপাড়া এলাকার ৪০ জন কৃষক সমবায় সমিতির নামে ১৯৯০ সালে সোনালী ব্যাংক নাঙ্গলকোট শাখা থেকে ঋণ নিয়ে বিএডিসির আওতায় একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করেন। ২০০৪ সালে পর্যন্ত ওই সমিতির সদস্যরা কোনো ঋণ পরিশোধ করেননি। এতে সমিতির সদস্যরা ঋণ পরিশোধ না করতে পেরে ওই ইউপি মেম্বার ও সমিতির অন্যতম শেয়ারদার আইয়ুব আলী মজুমদারের নিকট ৩০ জন শেয়ারদার তাদের শেয়ার বিক্রি করে দেন। পরে আইয়ুব আলী তার নিজ ৪০ শতক জমি বিক্রি করে বিএডিসির ওই ঋণ পরিশোধ করেন। এতে ঈর্ষান্বিত হয়ে, ২০১২ সালে মোস্তফা, তার স্ত্রী মনোয়ারা বেগমকে বাদী করে কুমিল্লার আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। এরপর থেকে ওই নলকূপটি বন্ধ হয়ে যায়। মামলা চলমান অবস্থায় হঠাৎ গত রোববার গভীর রাতে মোস্তফা প্রায় ১৫-১৬ জন লোক নিয়ে ওই নলকূপটির বিল্ডিং ঘর ভাঙচুর করে মাটির সাথে গুঁড়িয়ে দিয়ে মোটরসহ বিভিন্ন মালামাল লুটপাট করে নিয়ে যায়।

এ বিষয়ে কৃষক আলা উদ্দিন বলেন, আমি ২ শতক জায়গা বিক্রি করে ওই সমিতির শেয়াদার হই। আজ পর্যন্ত কোন লাভ পাইনি ওই সমিতি থেকে। তাই আমার শেয়ার আইয়ুব আলী মজুমদার মেম্বারের কাছে বিক্রি করে দিই। গত রাতে মোস্তফা লোকজন নিয়ে নলকূপের ঘরটি গুঁড়িয়ে দিয়ে সকল যন্ত্রপাতি লুটপাট করে।

এ ঘটনার সত্যতার স্বীকার করে অভিযুক্ত মোস্তফা মজুমদার বলেন, আমার জায়গায় নলকূপ স্থাপন করা হয়। আদালতের মাধ্যমে রায় পেয়ে নলকূপের ঘরটি ভেঙে দেই। এ ঘটনায় আইয়ুব আলী মজুমদার জানান, তিনি নাঙ্গলকোট থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। আদালতের মাধ্যমে যা রায় হয় তাই মেনে নিবো।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমে - ২৬
ফজর৩:৪৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪১
এশা৮:০৪
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪১৭৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.