নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১ ফাল্গুন ১৪২৬, ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪১
বরগুনায় রিফাত শরীফ হত্যা
জেলা ও দায়রা আদালতে আরো ৪ জনের সাক্ষ্য
বরগুনা থেকে গোলাম হায়দার
বরগুনায় আলোচিত শাহনেওয়াজ রিফাত শরীফ হত্যা মামলায় জেলা ও দায়রা জজ মো. আছাদুজ্জামানের আদালতে গতকাল বৃহস্পতিবার আরও ৪ জনের সাক্ষ্য ও জেরা সম্পন্ন হয়েছে। জেলা ও দায়রা আদালতে ডাক্তার হাসাইন ইমাম, ডাক্তার এস এম মাইদুল ইসলাম, ডাক্তার সোহেলী মঞ্জুর তন্নি ও প্রভাষক

ডাক্তার মোহাম্মদ জামিল হোসেন যখন সাক্ষ্য দেন তখন জেলা ও দায়রা আদালতে আয়শা সিদ্দিকা মিনি্নসহ ৯ জন আসামি উপস্থিত ছিল। এ পর্যন্ত জেলা ও দায়রা আদালতে ৬৯ জন সাক্ষ্য ও জেরা সমাপ্ত হল। শিশু আদালতে সাক্ষ্য হয়নি। নিহত রিফাতে শরীরে অসংখ্য আঘাতের বর্ণনা দিয়েছেন। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে রিফাত শরীফ মারা যায়।

এদিন জেলা ও দায়রা আদালতে চারজন ডাক্তার সাক্ষ্য শেষে রিফাত শরীফের ময়নাতদন্তকারী টীমের প্রধান প্রভাষক ডাক্তার মোহাম্মদ জামিল হোসেন বলেন, আমি ২৭ জুন সকাল ১১-২০ মিনিট সময় আমার সহকারী এস এম মাইদুল ইসলাম, ও ডাক্তার সোহেলী মঞ্জুর তনি্নকে নিয়ে বরিশাল শেরেই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিহত রিফাত শরীফের লাশের ময়না তদন্ত সম্পন্ন করি। আমরা যখন রিফাত শরীফের ময়নাতদন্ত করি তখন তার শরীরে ৫টি কোপের চিহ্ন পাই। ওই কোপের কোন সেলাই ছিল না। আরও অনেক গুলো কাটা জখম পাই। সেগুলো সেলাই করা। রিফাত শরীরের সব চেয়ে বড় কাটা জখম পাই ডান পাশের ঘাড়ে। যার দৈর্ঘ্য ছিল ৭ সেমি, পাশ ৪ সেমি ও গভীরতা ৩ সেন্টিমিটার। ওই জখমে ৬টি সেলাই ছিল। তিনি বলেন, ঘাড়ের প্রধান ভেইন বা রগ কেটে যাওয়ার ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের ফলে রিফাত মারা যায়। ময়না তদন্তের অন্য দুইজন ডাক্তার একই কথা বলেন। ডাক্তার হাসাইন ইমাম বলেন, আমি ২৬ জুন বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে জরুরী বিভাগে কর্মরত ছিলাম। ওইদিন সকাল অনুমান ১০-২৫ মিনিট সময় একটি ছেলে আহত অবস্থায় হাসপাতালে আসে। সমস্ত শরীর দিয়ে রক্ত ঝরছে। আমি পরীক্ষা করে দেখলাম তার যে জখম সেই চিকিৎসা বরগুনায় নেই। আমি দ্রুত বরিশাল প্রেরণ করি। রাষ্ট্র পক্ষের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) ভবন চন্দ্র হাওলাদার বলেন, আদালতে যে ৪ জন ডাক্তার সাক্ষ্য দিয়েছেন। তাদের মধ্যে একজন বরগুনায় ২৬ জুন কর্মরত ছিল। অন্য তিনজন ডাক্তার ২৭ জুন নিহত রিফাত শরীফের লাশের ময়না তদন্ত করেছেন। আসামি পক্ষে ডাক্তারদের কোন জেরা করা হয়নি। পিপি আরও বলেন এ মাসের ১৭ তারিখ তদন্তকারী কর্মকর্তার সাক্ষ্যর মধ্যে দিয়ে রাষ্ট্র পক্ষের সাক্ষ্য সমাপ্ত হবে। গোলাম হায়দার বরগুনা।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ১৫
ফজর৩:৫৪
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:২০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৬২৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.