নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০ ফাল্গুন ১৪২৭, ১০ রজব ১৪৪২
ধীরগতিতে ৫ কিলোমিটার কার্পেটিং কাজ শুরু অনিয়মের অভিযোগ
নিয়ামতপুরে দুই বছরেও শেষ হয়নি সড়ক প্রশস্তকরণের কাজ
জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ
নিয়ামতপুর (নওগাঁ) প্রতিনিধি
নওগাঁর মান্দা-নিয়ামতপুর-শিবপুর-পোরশা রাস্তা প্রশস্তকরণ সড়কের ৮৭ কোটি ৩৩ লাখ ৫৬ হাজার টাকা ব্যয়ে ২৬ কিলোমিটার রাস্তার কাজ দীর্ঘ দুই বছরেও শেষ হয়নি। দীর্ঘদিন ধরে রাস্তার কাজ বন্ধ থাকায় জনসাধারণের চরম দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়েছে। দীর্ঘ ২৬ মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত ৪০% কাজও হয় নাই। খোয়া পাথর উঠে যাওয়ায় প্রতিনিয়ত সাইকেল, মটরসাইকেলসহ ভারী যানবাহনের টায়ার নষ্ট হচ্ছে।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নওগাঁর মান্দা-নিয়ামতপুর-শিবপুর-পোরশার রাস্তাটি ছিল এলজিইডির আওতায়। সড়কে অতিরিক্ত যানবাহন চলাচল এবং দীর্ঘ এলাকাজুড়ে মানুষের জীবনমান উন্নয়নের লক্ষ্যে গত চার বছর আগে এলজিইডি থেকে সড়কটি সড়ক ও জনপথ বিভাগে হস্তান্তর করা হয়।

এরপরই রাস্তাটি প্রশস্ত এবং পাকা জন্য ২০১৮ সালে টেন্ডার আহ্বান করে সওজ। কাজ শুরু হয় ২০১৯ সালের ১৬ জানুয়ারি। সড়কটির ২৬ কিলোমিটার রাস্তায় ৩১টি কালভার্ট ও তিনটি সেতু নির্মাণ হয়। রাস্তা, কালভার্ট ও সেতু নির্মাণে সময়সীমা ছিল ২০২০ সালের জুন পর্যন্ত।

কিন্তু জুন পেরিয়ে এখন ফেব্রুয়ারি। নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারায় ঠিকাদার একের পর এক অতিরিক্ত সময় চেয়ে আবেদন করে যাচ্ছেন কর্তৃপক্ষের নিকট।

এতে ভোগান্তিতে পড়েছেন মানুষ। সড়ক ও জনপথ বিভাগের বাস্তবায়নের রাস্তা নির্মাণাধীন ঠিকাদার ওয়াহিদ কনস্ট্রাকশন এঙ্পেকটা (জেভি)।

সরেজমিনে দেখা গেছে, রাস্তার কেবলমাত্র পূর্বের কার্পেটিং তুলে কোনো রকমে রোলার করে রাখা হয়েছে যানবাহনের চাকা ঘুরানোর জন্য। দীর্ঘদিন এমন অবস্থায় পড়ে থাকায় রাস্তা জুড়ে ছোট বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এতে বৃষ্টির পানি জমে যানবাহন চলাচল হয়ে পড়েছে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ।

জানা গেছে, প্রায় ৬ মাস ধরে রাস্তার কাজ একদম বন্ধ হয়ে পড়ে রয়েছে। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন পথচারী। রাস্তার এমন বেহাল দশার অযুহাতে পরিবহন মালিকরাও দফায় দফায় ভাড়া বৃদ্ধি করছেন। জানা যায়, সড়কে কাজের ধীরগতির কারণে এলাকাবাসীর দুর্ভোগের কথা ভেবে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি চরম ক্ষোভ প্রকাশ করে দ্রুত কাজ শেষ করার তাগিদ দিয়েছিলেন।

খাদ্যমন্ত্রীর নির্দেশের পর কাজের কিছু তোড়জোড় শুরু হলেও করোনাভাইরাসের কারণে আবারও বন্ধ হয়ে যায় কাজ। এরপর এখনো পর্যন্ত কাজ শুরু হয়নি ওই সড়কে। তবে মাঝে মাঝে লোক দেখানো বা কর্তৃপক্ষ দেখানোর জন্য নিয়ামতপুর থেকে টিএলবি মোড় পর্যন্ত মাত্র ৫ কিলোমিটার রাস্তায় রোলার দিয়ে, পানি দিয়ে কাজ করে। এখন শুধুমাত্র এই ৫ কিলোমিটারে কার্পেটিংয়ের কাজ করছে। তাও বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিটমিন না দিয়ে কার্পেটিং করে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করছে স্থানীয়রা। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোজাফফর হোসেন এ প্রতিবেদককে বলেন, বেশ কিছুদিন আগে বিটমিন দিয়েছে তা এখন শুকে গেছে। কিন্তু বর্তমানে কার্পেটিং দেওয়ার সময় কোন বিটমিন দিচ্ছে না। ফিনিসিংও খুব খারাপ। মনে হচ্ছে এখনি কার্পেটিং উঠে যাবে। বাকি রাস্তায় কোনো কাজ করছে না।

এছাড়া রাস্তা যে পরিমাণ প্রসস্ত হওয়ার কথা অজ্ঞাত কারণে তাও হচ্ছে না। রাস্তাটির প্রসস্ত ২৮ ফিট হওয়ার কথা। এর মধ্যে কার্পেটিং ১৮ ফিট এবং দুধারে ৫ ফিট করে মাটি থাকবে। কিন্তু দু'ধারে তো তেমন কোন মাটি নেই। আবার বিভিন্ন মোড়গুলো মৃত্যুকূপ হয়ে আছে। বিশেষ করে বগধন গ্রামের কাছে মোড়ে একটি বিপদজনকভাবে বাড়ি থাকলেও তা অপসারণ করা হয়নি। যে কোন মুহূর্তে সেখানে ঘটতে পারে দুর্ঘটনা। এরকম আরো অনেক মোড় রয়েছে বিপদজনক অবস্থায়।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীএপ্রিল - ১১
ফজর৪:২৩
যোহর১২:০০
আসর৪:৩১
মাগরিব৬:২১
এশা৭:৩৬
সূর্যোদয় - ৫:৪০সূর্যাস্ত - ০৬:১৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৯৫৭১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.