নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০ ফাল্গুন ১৪২৭, ১০ রজব ১৪৪২
হল খোলার বিষয়ে ঢাবির সিদ্ধান্ত আজ
স্টাফ রিপোর্টার
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হল খোলার দাবিতে প্রশাসনকে ৭২ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেয়ার এক ঘণ্টা পরই প্রত্যাহার করে নিয়েছেন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা। উপাচার্যের সঙ্গে বৈঠকের পর তারা এই কথা জানান। এদিকে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, মঙ্গলবার (আজ) সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা পরিষদের সভা রয়েছে। সেখানে আমরা সরকারের জাতীয় সিদ্ধান্তগুলোর সঙ্গে সমন্বিত করে একটি সিদ্ধান্ত নেবো। গতকাল সোমবার বিকাল ৩টায় হল খোলার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করে কর্মসূচি ঘোষণা করেন ঢাবির বিভিন্ন হলের শিক্ষার্থীরা। সমাবেশ শেষে হল খুলতে প্রশাসনকে তারা ৭২ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন। এরপর তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে

করোনার ভয় নেই। শুধু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে করোনার ভয়। আমাদের অনার্স-মাস্টার্সের পরীক্ষা চলমান। মেসে-বাসাবাড়িতে গাদাগাদি হয়ে অবস্থান করে পরীক্ষায় অংশ নিতে হচ্ছে'। তারা বলেন, অনেকেই টিউশনি হারিয়ে উচ্চ মূল্যে মেস-বাসাবাড়িতে থাকছেন। যেটা দরিদ্র শিক্ষার্থীদের জন্য কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রশাসনকে পরিষ্কার করে বলে দিতে চাই, অবিলম্বে হল খুলে শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ বজায় রাখুন। তা নাহলে কঠোর লাগাতার কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব'।

এর আগে গত রোববার উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালামের সঙ্গে আলোচনা করেন শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিরা। আলোচনা শেষে তারা জানান, হল না খুললে আগামীকাল ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হবে। সেই মিছিল শেষে প্রতিটি হলের সামনে অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়া হবে।

শিক্ষার্থীদের পাঁচ সদস্যের প্রতিনিধিদল উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালামের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন ইবির উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহিনুর রহমান, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) আতাউর রহমান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. জাহাঙ্গীর হোসেন প্রমুখ। এ সময় শিক্ষার্থীরা তাদের যৌক্তিক দাবিগুলো তুলে ধরেন। শিক্ষার্থীদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, 'বিশ্ববিদ্যালয়ের হল, ল্যাব, শ্রেণী কক্ষগুলো যখন দেখি ফাঁকা পড়ে থাকে, অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা যখন রাস্তায় অবস্থান করে, বিষয়গুলো আমাকে ভীষণ পীড়া দেয়। যদি অবস্থান থাকতো তাহলে আমিও শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আন্দোলনে যোগ দিতাম। আমি তাদের আন্দোলনের সঙ্গে একমত।'

তিনি বলেন, 'আমরা চাইলেই হল খোলার ঘোষণা দিতে পারছি না। এ সিদ্ধান্তটা আমাদের হাতে নেই। এ সপ্তাহ শেষে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে আমাদের মিটিং আছে। সেখানে তোমাদের এ যৌক্তিক দাবিগুলো সরকারকে জানাব। যাতে করে সরকার খুব তাড়াতাড়ি আবাসিক হলগুলো খুলে দেয়ার অনুমতি দেন। তবে আশা করছি অচিরেই আমরা কোনো নির্দেশনা পাব।'

এর আগে গত রোববার একই দাবিতে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে বিক্ষোভ মিছিল শেষে ভিসির বাসভবনের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করেন বিশ্ববিদ্যালয়টির শিক্ষার্থীরা।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমার্চ - ৯
ফজর৪:৫৮
যোহর১২:১০
আসর৪:২৬
মাগরিব৬:০৮
এশা৭:২০
সূর্যোদয় - ৬:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:০৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৭৬৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.