নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রোববার ১৪ এপ্রিল ২০১৯, ১ বৈশাখ ১৪২৬, ৭ শাবান ১৪৪০
জনতার মত
শুভ নববর্ষ ১৪২৬
আর কে চৌধুরী
বছর ঘুরে আবার এসেছে পহেলা বৈশাখ, নববর্ষ। সুপ্রভাত ১৪২৬। সবাইকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা। পহেলা বৈশাখকে নববর্ষ হিসেবে পালনের রেওয়াজ মোগল সম্রাট আকবরের সময় থেকে। আরবি বা হিজরি চান্দ্রবর্ষের সৌরবর্ষ সংস্করণ হলো বাংলা সন। তারপর থেকে বছরের শেষ দিন অর্থাৎ ৩০ চৈত্রকে চৈত্র সংক্রান্তি ও পহেলা বৈশাখকে নববর্ষ হিসেবে পালন করা হয় সাড়ম্বরে। নববর্ষ পালন মানব সভ্যতারই অনুষঙ্গ। মানব সমাজে বর্ষবরণ উৎসবের শুরু সম্ভবত চার হাজার বছর আগে। মনে করা হয়, ব্যাবিলনে বর্ষবরণের সূত্রপাত ঘটে।

পদ্মা, মেঘনা, যমুনা পাড়ের মানুষও হাজার হাজার বছর ধরে বর্ষবরণ পালন করে আসছে। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক আমলে গ্রেগরীয় ক্যালেন্ডার দিনপঞ্জি হিসেবে রাষ্ট্রীয়ভাবে চালু হলেও গ্রামীণ সমাজে বাংলা বর্ষপঞ্জির গুরুত্ব এতটুকু কমেনি। কালের বিবর্তনে গ্রামীণ সমাজেও গ্রেগরীয় দিনপঞ্জির ব্যবহার বেড়েছে। তারপরও কৃষক সমাজ আজো বাংলা সনকে সামনে রেখে তাদের ফসলি কার্যক্রম চালায়। দেশের সবচেয়ে বড় উৎপাদন ব্যবস্থার সঙ্গে বিজড়িত বাংলা সনের সম্পর্ক। ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ও হালখাতার মাধ্যমে বাংলা নববর্ষকে চিরঞ্জীব করে রেখেছে। বাংলা নববর্ষের অন্যতম অনুষঙ্গ বৈশাখী মেলা। নববর্ষের বৈশাখী মেলা জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে সব মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয়। বাঙালির নববর্ষ আসে কালবৈশাখীর ঝড়ো হাওয়ার মাতম তুলে। জরাজীর্ণ যা কিছু তাকে উড়িয়ে দিয়ে নববর্ষে নতুনের অভিষেক হয়। নববর্ষে বাঙালি অতীতের দুঃখ-বঞ্চনা-ব্যর্থতা ভুলে সামনে এগুনোর শপথ নেয়।

বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ- সবখানেই রয়েছে পহেলা বৈশাখের হার না মানা প্রত্যয়। নববর্ষ বাঙালির সর্বজনীন সংস্কৃতির বাহন বলে বিবেচিত হচ্ছে যুগ যুগ ধরে। হালখাতা, বৈশাখী মেলা এবং শহুরে পান্তা-ইলিশের রমরমা- আধুনিকতার এই যুগেও নিজেদের বাঙালি হিসেবে ভাবার সুযোগ করে দেয়।

শুভ নববর্ষে বিদায়ী বছরের জীর্ণ পুরাতন, বিষাদঘন স্মৃতি ভেসে যাক। ব্যর্থ প্রাণের আবর্জনা পুড়িয়ে ফেলে 'প্রাণে প্রাণে লাগুক শুভ কল্যাণের দোলা, 'নব আনন্দ বাজুক প্রাণে'। আজ 'মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্মিস্নানে শুচি হোক ধরা'-এ মঙ্গল কামনায় নববর্ষের প্রথম প্রভাতে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সার্বজনীন আনন্দ-উৎসবে মেতে উঠে মানুষ। দেশবাসী সৌহার্দ্য, সম্প্রীতি, সুন্দর ও কল্যাণের জয়গানে স্বাগত জানায় নববর্ষকে।

বৈশাখ মানে গ্রীষ্ম ঋতুর শুরু। উজ্জ্বল রৌদ্রময় দিন। তেমনি আবার কালবৈশাখীর ভয়াল রূপ। জীবন সংগ্রামের দীক্ষা লাভের নানা রূপের সংমিশ্রণ নববর্ষের সূচনালগ্ন। এই সূচনালগ্নে নতুন ভাবনা-চিন্তায় কতটা এগিয়েছি আমরা তারও খতিয়ান করা দরকার। নতুন বছরে পদার্পণ। এর অর্থই হলো নতুনের সঙ্গী হওয়া। সামনের দিনগুলোকে বিনির্মাণের তাগিদ। আমাদের উদ্যম, আমাদের অধ্যবসায় সব নিয়োজিত হোক জাতীয় উন্নয়নের লক্ষ্যে। উৎসবের আনন্দ নতুন সঙ্কল্পে দীক্ষিত জাতির ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ায় নতুন শক্তির প্রেরণা হোক। এজন্য সম্মিলিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

বাংলা নববর্ষ সুর সঙ্গীতের, মেলা-মিলনের, আনন্দ ও উৎসবের, সাহস ও সঙ্কল্পের প্রেরণা জোগায়। দুঃখ-গ্লানি, অতীতের ব্যর্থতা পেছনে ফেলে তাই এগিয়ে যাওয়ার শপথ নেয়ার দিনও পহেলা বৈশাখ। দেশের কল্যাণে সবাই এক কাতারে শামিল হয়ে এগিয়ে যাওয়ার অগি্নশপথ নেয়ার দিনও এটি। পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনেও বৈশাখের চেতনায় সবাই উজ্জীবিত হোক। নতুন ভবিষ্যৎ গড়ার প্রত্যয়ে সবাই উদীপ্ত হোক। সবাইকে নববর্ষের শুভেচ্ছা। স্বাগতম ১৪২৬।

নববর্ষের মূল সুর হলো নতুনের আগমন। আর নতুন মানেই নতুন জীবন ও নতুন আশা। পুরোনোর অর্জনকে রক্ষা আর ব্যর্থতা ডিঙানোর সুযোগই নতুন দিনের প্রধান বার্তা। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ভাষায় তাই বলা যায়, 'নব অতিথিরে তবু ফিরাইতে নাই কভু/ এসো এসো নূতন দিবস!/ ভরিলাম পুণ্য অশ্রুজলে/ আজিকার মঙ্গল কলস।' বাংলা নববর্ষে সবার মঙ্গল হোক।

আর কে চৌধুরী : লেখক

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুন - ১৬
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৫০
এশা৮:১৫
সূর্যোদয় - ৫:১০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৫
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৫২০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.