নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯
ফলোআপ
ছেলেকে পুড়িয়ে হত্যার কথা স্বীকার করলেন ঘাতক মা
আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি
নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে পরকীয়া প্রেমের জের ধরে নিজ সন্তান হৃদয় (৯) কে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন নিহত হৃদয়ের মা শেফালী আক্তার। এ সংক্রান্তে দায়েরকৃত হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আড়ইহাজার থানার এসআই কাসেম গতকাল রোববার এ তথ্য নিশ্চিৎ করেছেন। তিনি জানান, ১৪ এপ্রিল

নিহত হৃদয়ের গ্রেফতারকৃত মা শেফালী আক্তারকে নারায়ণগঞ্জ আদালতে পাঠানো হলে চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিট্রেট ২য় আদালতের বিচারক মেহেদি হাসানের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেন তিনি। এ সময় স্বীকারোক্তিতে তিনি বলেন, প্রেমিক মোমেনের সাথে সম্পর্ক টিকিয়ে রাখার জন্যই মোমেনকে সাথে নিয়ে নিজের দু সন্তানকে হত্যার উদ্দেশ্যে কাঁথায় মুড়িয়ে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়। ফলে বড় ছেলে হৃদয় (৯) সঙ্গে সঙ্গে আগুনে দগ্ধ হয়ে মারা গেলেও গুরুতর আহত অবস্থায় ছোট ছেলে শিহাব (৭) কে তাৎক্ষণিক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ায় সে বেঁচে যায়।

জানা গেছে, আড়াইহাজার উপজেলার উচিৎপুরা ইউনয়িনের বাড়ৈপাড়া গ্রামের বাহরাইন প্রবাসী আনোয়ারের স্ত্রী শেফালীর সাথে একই গ্রামের বাসিন্দা মোমেনের প্রায় দুই বৎসর ধরে পরকীয়ার সম্পর্ক চলছিল। এক বৎসর পূর্বে বিষয়টি তার পরিবারের লোকজন জানতে পেরে শেফালীকে এ কাজ থেকে সরে দাড়ানোর জন্য সতর্ক করে। সতর্কে কাজ না হওয়ায় তার পিতাকে ডেকে এনে বিষয়টি জানান এবং তার পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দেয়া হয়।

সাত মাস পূর্বে তার প্রবাসী স্বামী আনোয়ার দেশে এসে সন্তানদের চিন্তা করে বাড়িতে ঠাঁই দেন। ১৫ দিন দেশে থেকে স্বামী প্রবাসে চলে গেলে আবারও তার প্রেমিক মোমেনের সাথে চিকিৎসার কথা বলে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে বেড়ায়। ৫মাস পূর্বে মোমেনের স্ত্রী একটি মোবাইলে তাদের দুইজনের আপত্তিকর কিছু ছবি ও ভিডিও দেখে আনোয়ারের বাবাকে দেখালে স্থানীয় মাতাব্বরদের মাধ্যমে শেফালীর বিচার করা হয়। এবং আপত্তিকর ছবিগুলো প্রবাসে আনোয়ারের নিকট পাঠালে আনোয়ার তালাকের কগজ পাঠিয়ে দিলেও তার স্বামী দেশে না আসা পর্যন্ত এই বাড়ি ছেরে যাবেনা বলে জানায়। এ নিয়ে পরিবারের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হয়। সে থেকে নিজ সন্তানদের হত্যার পরিকল্পনা করে শেফালী ও তার প্রেমিক মোমেন। শুক্রবার ভোর ৪টার দিকে পাষ- মা শেফালী বেগম ও তার প্রেমিক মোমেন ঘুমন্ত অবস্থায় দুই সন্তান হৃদয় ও শিহাবকে কাঁথায় পেঁচিয়ে এবং কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয়। মুহূর্তের মধ্যে ঝলসে যায় নিষ্পাপ দুই সন্তানের দেহ। আশপাশের লোকজন সন্তানদের আর্তচিৎকারে বেরিয়ে আসে। কিন্তু অগি্নদগ্ধ হৃদয়-এর মধ্যে মারা যায়। প্রতিবেশীরা আরেক সন্তান শিহাবকে (৭) অগি্নদগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েনিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে রেফার করে। সেখান থেকে তাকে শনিবার সকালে বাড়িতে আনা হয়। নিহত হৃদয় ৩৫ নং বাড়ৈইপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩য় শ্রেণির ছাত্র।

এ ব্যাপারে নিহত হৃদয়ের দাদা বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে আড়াইহাজার থানায় শেফালী ও মোমেনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীএপ্রিল - ২৭
ফজর৪:০৮
যোহর১১:৫৭
আসর৪:৩২
মাগরিব৬:২৮
এশা৭:৪৫
সূর্যোদয় - ৫:২৮সূর্যাস্ত - ০৬:২৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৮৬১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.