নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার ১৬ এপ্রিল ২০১৮, ৩ বৈশাখ ১৪২৫, ২৮ রজব ১৪৩৯
ঐতিহ্য রক্ষার হালখাতা পুরান ঢাকায়
ব্যবসার পরিস্থিতি খারাপকেই দায়ী ব্যবসায়ীদের
অর্থনৈতিক রিপোর্টার
রীতি মেনে বরাবরের মতো এবারও বৈশাখের দ্বিতীয় দিন গতকাল রোববার হালখাতা করছেন পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীরা। তবে আগে হালখাতায় যেমন জমজমাট থাকতো এখন আর তেমন হয় না পুরান ঢাকার এই ঐতিহ্যবাহী অঞ্চল। আর এর জন্য ব্যবসার পরিস্থিতি খারাপকেই দায় দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। তাদের ভাষ্য, চাঁদের ওপর নির্ভর করে আমরা হালখাতা করি। এখন হালখাতা আর আগের মতো জমজমাট নেই। শুধু ঐতিহ্য ধরে রাখতেই হালখাতা করা হয়।

এদিকে সরকারি কর্মচারীরা এবার পৌনে ৫০০ কোটি টাকার বৈশাখী ভাতা তুলেছেন। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে তথ্যটি মিললেও পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে সারা দেশে কত টাকার ব্যবসা-বাণিজ্য হয়, তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। তবে ব্যবসায়ীদের ধারণা, কয়েক হাজার কোটি টাকার ব্যবসা হয় সমগ্র দেশে। সেই হিসেব থেকেই ধারণা করা হয় শুধু পুরান ঢাকাতেই হাজার কোটি টাকার ব্যবসা হয়েছে এবারের পহেলা বৈশাখে। তবে জমজমাট হোক বা

না হোক নতুন বছরকে বরণ করে নিতে পুরো দেশের মতো দেশের ব্যাবসা-বাণিজ্যের অন্যতম প্রাণকেন্দ্র পুরান ঢাকাও নানা আয়োজনে নতুন বছরকে বরণ করে নিতে তৈরি হয়েছিলো। ঐতিহ্যবাহী হালখাতা উৎসব, নানা রঙের মুখোশ কিংবা মুখরোচক মিঠাই-মন্ডা সবই ছিলো এবারের হালখাতা উৎসবে। পুরান ঢাকার ব্যবসায়ীদের কাছে ঐতিহ্যপূর্ণ হালখাতা নতুন বছর বরণের অন্যতম অনুসঙ্গ। পুরান ঢাকার ব্যাবসার জন্য প্রসিদ্ধ চকবাজার, বাদামতলী, শাঁখারীবাজার, ইসলামপুর, পাটুয়াটুলি, তাঁতীবাজার ইত্যাদি নানা স্থানে ব্যাবসায়ীরা পহেলা বৈশাখে তাঁদের পুরানো হিসাব-নিকাশ শেষ করে নতুন খাতা খোলেন। এই শুভ কাজটি উৎসবমূখর পরিবেশে খদ্দরদের মিষ্টি মূখ করিয়ে শুভ সূচনা হয়। হালখাতা নামেই এর পরিচিতি।

এদিকে হালখাতার প্রসঙ্গে পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান লোকনাথ বুক এজেন্সির পরিচালক আসিফ উজ জামান ইহাম বলেন, এ প্রতিষ্ঠান পঞ্জিকা এবং হালখাতা তৈরি করে। তবে হালখাতা বিক্রি এখন আগের মতো নেই। এখন অনেক কিছুই পরিবর্তন হয়ছে, ব্যবসার ধরণ বদলেছে। অনেকে খাতায় হিসেব রাখে না। যারা খাতায় মধ্যে হিসেব রাখেন, তারা হালখাতা নিয়ে যাচ্ছেন। তবে এর সংখ্যা অনেক কম। প্রতিবছরই কমছে হালখাতার চাহিদা। গতবারও ব্যবসা এবারের চেয়ে ভালো ছিল। হালখাতা জমজমাট না হওয়ার কারণ হিসেবে পুরান ঢাকার এক ব্যবসায়ী বলেন, এখন ব্যবসা পরিস্থিতি খারাপ। তাঁতীবাজারে স্বর্ণ ব্যবসার সঙ্গে ১ হাজারের বেশি প্রতিষ্ঠান জড়িত আছে। সবারই একই অবস্থা। ব্যবসা ভালো না হওয়ায় হালখাতাও জমজমাট হচ্ছে না।

ঐতিহ্য ধরে রাখতে হালখাতার ব্যবস্থা করা হয়েছে উল্লেখ করে দীপ জুয়েলার্সের সুমন ঘোষ বলেন, হালখাতা ভালোই হচ্ছে, তবে আমরা যে প্রত্যাশা করেছিলাম তেমন হচ্ছে না। ৫-৭ বছর ধরে এখানকার হালখাতা জমজমাট হচ্ছে না। সবাই ঐতিহ্য ধরে রাখতে হালখাতার আয়োজন করছে। ২০ বছর ধরে তাঁতীবাজারে স্বর্ণ ব্যবসায় জড়িত এই ব্যবসায়ী হালখাতা জমজমাট না হওয়ার কারণ হিসেবে বলেন, আমাদের প্রধান ব্যবসা অলঙ্কার বিক্রি করা। এর পাশাপাশি বন্ধকী ব্যবসাও করছি। অর্থনৈতিক অবস্থার কারণে এখন হালখাতা জমজমাট হয় না। এছাড়া এখন মহল্লায় মহল্লায় প্রতিষ্ঠান হয়ে গেছে। কিন্তু আগে স্বর্ণ ব্যবসার মূল কেন্দ্র ছিল তাঁতীবাজার ও শাঁখারীবাজার।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৪
ফজর৪:৫৩
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৩৮
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩২
সূর্যোদয় - ৬:১১সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৫৮২.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.