নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৬ মে ২০১৮, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৯ শাবান ১৪৩৯
লক্ষ্যমাত্রার বেশি লবণ উৎপাদনে উপকূলীয় চাষিদের মুখে হাসি
জনতা ডেস্ক
আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চলতি বছর লবণ উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে যাচ্ছে। আর লবণের বাম্পার উৎপাদনে উপকূলীয় চাষীদের মুখে হাসি ফুটেছে। তাদের ধারণা, এবারের উৎপাদিত লবণে দেশের ভোক্তা ও শিল্পখাতে চাহিদা মিটিয়েও বিপুল পরিমাণ লবণ মজুদ থাকবে। কারণ ইতোমধ্যে চাষিরা লক্ষ্যমাত্রার কাছাকাছি লবণ উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছেন আরো অন্তত দু'সপ্তাহ বেশি সময় লবণ উৎপাদন করার সম্ভাবনা রয়েছে। ওই সময়ও যদি একইভাবে লবণ উৎপাদন হয়, তাহলে নিশ্চিত উদ্বৃত্ত থাকবে। বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প (বিসিক) ও লবণ চাষী সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, চলতি মৌসুমে দেশে ভোক্তা ও শিল্পখাতে লবণের চাহিদা রয়েছে ১৬ লাখ ৬৫ হাজার মেট্রিক টন। বিপরীতে বিসিক দেশে লবণ উৎপাদন এলাকার ৬৪ হাজার ১৪৭ একর জমিতে লবণ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে ১৮ লাখ মেট্রিক টন। গতবছরের ১৫ নভেম্বর থেকে চকরিয়া, পেকুয়া, কুতুবদিয়া, মহেশখালী, টেকনাফ, কঙ্বাজার সদরসহ কঙ্বাজার উপকূল এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালীর উপজেলায় লবণ উৎপাদনে নামেন লক্ষাধিক চাষি। চাষ শুরু করার পর থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১৩টি লবণ উৎপাদন মোকামের অধীনে লবণ উৎপাদন হয়েছে প্রায় ১৫ লাখ মেট্রিক টন। আর লবণ উৎপাদনের মৌসুম শেষ হবে মে মাসের মাঝামাঝি সময়ে। ওই সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সেক্ষেত্রে এখন যেভাবে আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে তা বিদ্যমান থাকতে হবে।

সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে ১৩ কেন্দ্রের (মোকাম) অধীনে কঙ্বাজার উপকূল এবং চট্টগ্রামের বাঁশখালী ও আনোয়ারা উপজেলার আংশিক এলাকার ৬৪ হাজার ১৪৭ একর জমিতে লবণচাষ করা হচ্ছে। তার মধ্যে চকরিয়া উপজেলার দরবেশকাটা মোকামে ১১ হাজার ৯৪১ একর, ডুলাহাজারা ইউনিয়নে ২০০ একর, খুটাখালী ইউনিয়নের ফুলছড়িতে ৩ হাজার ৮৫০ একর, মহেশখালী উপজেলার লেমশিখালী মোকামে ৬ হাজার ৬১৮ একর, উত্তর নলবিলা মোকামে ৬ হাজার ৫২৮ একর, গোরকঘাটা মোকামে ৩ হাজার ৮৭৭ একর, মাতারবাড়ি মোকামে ৫ হাজার ৫৮ একর, কঙ্বাজার সদর উপজেলার চৌফলদন্ডী মোকামে ১ হাজার ৮৫৩.৭৪ একর, কুতুবদিয়া উপজেলার পূর্ব বড়ঘোনা মোকামে ৫ হাজার ৭৮৮ একর, টেকনাফের মোকামে ২ হাজার ৪৬৬ একর, কুতুবদিয়ার লেমশীখালী, কঙ্বাজার সদর ও মহেশখালীর মাতারবাড়িতে স্থাপিত লবণ প্রদর্শনী কেন্দ্রে ৯৪.২৬ একর, সদর উপজেলার গোমাতলীর ৩ হাজার ৩০৮ একর, বাঁশখালী উপজেলার সরল ঘোনার প্রদর্শনী কেন্দ্রে ৩৮৮ একর জমিতে লবণ উৎপাদন চলছে। চলতি লবণ উৎপাদন মৌসুমের শুরু থেকে এপ্রিল পর্যন্ত ১৫ লাখ মেট্রিক টন লবণ উৎপাদন সম্ভব হয়েছে। বাকি যে সময় হাতে রয়েছে, ওই সময়ের মধ্যে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে উদ্বৃত্ত লবণ উৎপাদন হবে বলে সংশ্লিষ্টরা আশাবাদী।

সূত্র আরো জানায়, মৌসুমের শুরু থেকেই লবণ উৎপাদন ভালো হয়েছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় চাষিরা লবণ উৎপাদনে দিনরাত কাজ করছে। বিসিকের জরিপে লবণ উৎপাদনের চিত্র কম দেখানো হলেও মাঠপর্যায়ের চাষিদের হিসাব মতে ইতোমধ্যে লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। বাকি যে সময়টুকু এখনো রয়েছে, সেই সময় লবণ উৎপাদন ভালোভাবে করা গেলে তা উদ্বৃত্তই থাকবে। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দেশের লবণশিল্পের সাথে জড়িয়ে আছেন অন্তত ৬ লাখ মানুষ।

এদিকে এবার উৎপাদন মৌসুমের শুরুতে লবণের ভালো দাম থাকলেও বর্তমানে প্রতিটি মোকামে লবণ উৎপাদন বেড়ে যাওয়ায় লবণের দাম কমিয়ে দেয়ার অভিযোগ তুলছেন মাঠপর্যায়ের চাষিরা। তাদের অভিযোগ, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় লবণ উৎপাদন দিনের পর দিন বাড়ছে। কিন্তু দেশের বড় বড় মিল মালিকরা সিন্ডিকেট করে ভুল তথ্য দিয়ে এবারও বিদেশ থেকে লবণ আমদানির পাঁয়তারা শুরু করেছে। যদি ভুল তথ্য উপস্থাপন করে সিন্ডিকেটরা এবারও বিদেশ থেকে লবণ আমদানির সুযোগ পায়, তাহলে বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হবেন চাষিরা।

অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে বিসিক কঙ্বাজার আঞ্চলিক কার্যালয়ের সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মো. মনজুর আলম বলেন, মে মাসের ১৫ তারিখ পর্যন্ত লবণ উৎপাদন করা যাবে। ওই সময় যদি প্রকৃতি বৈরি আচরণ না করে তাহলে লবণ উৎপাদন রেকর্ড গড়বে। তবে পুরোপুরিই তা নির্ভর করবে প্রকৃতির ওপর।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ২১
ফজর৩:৫৮
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১১
সূর্যোদয় - ৫:২৩সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৮১৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.