নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৬ মে ২০১৮, ২ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৯ শাবান ১৪৩৯
সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ
ক্রসফায়ারের নামে হত্যা
আবু জাফর
ক্রসফায়ারের নামে ১৮ বছরের যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ২০১৪ সালে ৯ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করে সে বাবার ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিল। এ পর্যন্ত তার বিরুদ্ধে একটি মামলা তো দূরের কথা একটি জিডিও তার নামে নেই, সে কি করে রাতারাতি বড় সন্ত্রাসী হয়ে উঠল। গতকাল বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন কার্যালয়ে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এমন অভিযোগ করেছেন নারায়ণগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানার তারাব উত্তর পাড়া গ্রামের বাসিন্দা মো. শামিম প্রধান।

লিখিত অভিযোগে তিনি জানিয়েছেন, গত ৮ মে ২০১৮ সন্ধ্যার পর তার ছেলে রাজু প্রধান বাসা থেকে তার বন্ধু সাবি্বরের সাথে বের হয়। রাজু বাসা থেকে বের হওয়ার পর বাসা থেকে তার মা তাকে খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। আর রাজুকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। ঘটনার পরের দিন ৯ মে দুপুরের দিকে রূপগঞ্জ থানা থেকে ফোনে অবহিত করা হয় রাজু মারা গেছে। বিষয়টি জানার পর সপরিবার নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েগিয়ে তার লাশ শনাক্ত করা হয়।

রাজুর বাবা জানান, লাশের ছবি দেখে বোঝা যায় রাজুকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। সেই সাথে গুলিও করা হয়েছে। রাজুর বাম হাত ভাঙা, বাম পায়ের হাঁটুর উপরে মারাত্মক জখম এবং পায়ের গোড়ালিতেও একাধিক আঘাতের চিহ্ন। তার বুকে ১টি গুলির চিহ্ন পাওয়া গেছে। যা সামনের দিকে ঢুকে পেছনের দিক দিয়ে বের হয়ে গেছে। রাজুকে হত্যার পর বিভিন্ন গণমাধ্যমে তাকে চাঁদাবাজ, ছিনতাইকারী ও ডাকাত হিসেবে চিহ্নিত করে প্রকাশ করা হয়।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে নিহতের বাবা আরও জানান, দীর্ঘ ১৮ বছরের মধ্যে কোনো দিন কোনো পত্রিকায় একটি সংবাদও প্রকাশ হলো না। থানায় একটি মামলাও তার নেই। রাজু মাস্তানি তো দূরের কথা, কোনো ধরনের নেশাও সে করত না। বাবার ছোটখাট ব্যবসা রক্ষা করা ছিল তার লক্ষ্য। সে কি করে চাঁদাবাজি করতে যাবে। তার তো ভাতের কোনো অভাব নেই। কিন্তু কি উদ্দেশ্যে কারা তার সন্তানকে নির্মমভাবে হত্যা করলো তার বিচার তিনি প্রধানমন্ত্রীর কাছে চেয়েছেন।

তিনি জানান, সন্তানহারা এক পিতার আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে ওঠছে। বাবার কাঁধে সন্তানের লাশ এর চেয়ে বড় বেদনার আর কি হতে পারে। এভাবে ক্রসফায়ারের নামে মানুষকে খুন করা কতটা যুক্তিযুক্ত। এদিকে তার সন্তানের বিচার চাইতে গিয়ে আবারও ক্রসফায়ারের ভয়ে তার পুরো পরিবার এখন আতঙ্কিত। এ সময় সাংবাদিক সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন নিহতের মা, বোন ও চাচা। সবার একটাই দাবি আর যেন কোনো সন্তান এভাবে না হারাতে হয়।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমে - ২৬
ফজর৩:৪৭
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪১
এশা৮:০৪
সূর্যোদয় - ৫:১৩সূর্যাস্ত - ০৬:৩৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৭৯০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.