নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৩ জুন ২০১৮, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৭ রমজান ১৪৩৯
সরাইল জনতা ব্যাংকের কাউন্টারে জমা দেয়ার পর গ্রাহকের ২ লাখ টাকা গায়েব
সরাইল (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) থেকে মো. রাকিবুর রহমান রকিব
ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল জনতা ব্যাংকে ঘটে গেল তুঘলকি কা-। কাউন্টারে জমা দেয়ার পর গ্রাহকের অজান্তেই গায়েব ২ লাখ টাকা। টাকা ও ভাউচার কোনটাই ফেরৎ না পেয়ে ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে গ্রাহক। বাক-বিতন্ডা ও আর্তচিৎকারে কিছুক্ষণ বন্ধ থাকে ব্যাংকের কার্যক্রম। এ ঘটনায় দায়ী থাকায় ব্যাংকের ক্যাশিয়ার সুভাষ বাবুকে জরিমানা গুনতে হয়েছে ৫০ হাজার টাকা। আর গ্রাহকের ২৫ হাজার টাকা। গত রোববার সরাইল জনতা ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারে ঘটেছে এ ঘটনা। সরেজমিনে ভুক্তভোগী গ্রাহক ও ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, দেওড়া গ্রামের শাহজাহান মিয়ার ছেলে রাকিব মিয়া চাঁদপুরে টিটি করার জন্য ভাউচারসহ ২ লাখ টাকা জমা দেন ক্যাশ কাউন্টারে বসা হাসান মিয়ার নিকট। হাসান মিয়া দেন ক্যাশিয়ার সুভাষ বাবুর নিকট। সুভাষ বাবু কিছুক্ষণ পর গ্রাহক রাকিবকে জানান হিসাব নাম্বারে ভুল আছে টাকা পাঠানো যাবে না। সঠিক আরেকটি নাম্বার দিতেও বলেন। রাকিব তখন টাকা ও ভাউচার ফেরত চাইলে ক্যাশিয়ার তাকে অপেক্ষা করতে বলেন। দেড় ঘন্টা পর কাউন্টারে গিয়ে টাকা ফেরৎ চাইলে রাকিবকে জানানো হয় 'আপনার সাথের লোকটি টাকা নিয়ে গেছেন।' আশ্চর্য্য ও হতভম্ভ হয়ে পড়ে রাকিব। দিশেহারা হয়ে দিগি্বদিক ছুটাছুটি করতে থাকে রাকিব ও তার বাবা।

এ ঘটনায় ক্যাশিয়ারের সাথে রাকিবের স্বজনদের বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এসময় ব্যাংকের কৃষি ক্লার্ক মো: কবির উদ্দিন রাকিবের স্বজনদের সাথে চরম দুর্ব্যবহার করেন। এছাড়া ভুক্তভোগী একাধিক গ্রাহক জানান অনৈতিকভাবে প্রভাব খাটিয়ে কৃষি ক্লার্ক কবির উদ্দিন ব্যাংকের গ্রাহকদের নিয়মিত নানাভাবে হয়রানি করে যাচ্ছেন। এ অবস্থায় কিছু সময় বন্ধ থাকে ব্যাংকের কার্যক্রম। ব্যবস্থাপকের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। ক্যাশিয়ার সুভাষ ভাউচার সহ ২ লাখ টাকা জমা নেয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, হিসাব নাম্বার ভুল ছিল। রাকিবের লোকের কাছেই টাকা ফেরৎ দিয়েছি। নাম্বার ভুল না সঠিক তা যাচাইয়ের জন্য ভাউচার দেখতে চাইলে ক্যাশিয়ার বলেন, ছিঁড়ে ফেলে দিয়েছি। রাকিবকে বসতে বলে আরেকজনের কাছে ভাউচার ছাড়া টাকা ফেরৎ দিলেন কেন? এমন প্রশ্নের উত্তরে নীরব থাকেন সুভাষ বাবু। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য রোববার বিকেলে ব্যাবস্থাপকের সাথে বসেন শাহজাদাপুর ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খোকন।

ভিডিও ফুটেজ দেখে তারা ৩ জনকে জরিমানা করেন। ভাউচারে এনালগ নাম্বার লেখা ও যে লোকটি টাকা নিয়ে গেছে তার সাথে ব্যাংকের ভেতরে আন্তরিক পরিবেশে দেখা যাওয়ায় রাকিবের আত্মীয় রবিউলকে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা এবং নাম্বার কি এনালগ না ডিজিটাল তা না দেখে ভাউচার ছিঁড়ে ফেলার অপরাধে ক্যাশিয়ার সুভাষ বাবুকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ঐ লোকটির সাথে ব্যাংকে বসা এবং হাঁটাহাটি করার দায়ে রাকিবকে জরিমানা গুনতে হয়েছে ২৫ হাজার টাকা। জনতা ব্যাংকের ব্যবস্থাপক মানবেন্দ্র পাল ভবনের মালিক, বাজার কমিটির মাখন মিয়া ও চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম খোকনকে নিয়ে নিষ্পত্তি সভা করার কথা স্বীকার করে বলেন, ক্যাশিয়ারের ক্রটি থাকায় জরিমানা করা হয়েছে। সেই সাথে নাম্বার ভুল লেখার দায়ে লেখক সোয়া লাখ ও টাকা নিয়ে যাওয়া প্রতারকের সাথে দহরম মহরম সম্পর্ক ভিডিও ফুটেজে ধরা পড়ায় রাকিবকে ও জরিমানা করা হয়েছে। তবে প্রতারককে চিহ্নিতকরণ বা বিচার করার বিষয়ে কিছু বলেননি ব্যবস্থাপক।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীআগষ্ট - ১৯
ফজর৪:১৬
যোহর১২:০৩
আসর৪:৩৭
মাগরিব৬:৩২
এশা৭:৪৮
সূর্যোদয় - ৫:৩৫সূর্যাস্ত - ০৬:২৭
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৮২৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.