নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৩ জুন ২০১৮, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৭ রমজান ১৪৩৯
ঈদে তৃণমূল আ'লীগের নেতাকর্মীদের কদর বাড়ছে
ডিসেম্বরে নির্বাচন-ঈদে ২ হাতে খরচ করছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা
স্টাফ রিপোর্টার
ঈদকে সামনে রেখে কদর বাড়ছে তৃণমূলের সকল রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের। আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হচ্ছে পবিত্র ঈদুল ফিতর। এবার ঈদ সামনে রেখে দুই হাতে 'ঈদ সামগ্রী বিতরণ' করছেন সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। তৃণমূল থেকে শুরু করে কেন্দ্র পর্যন্ত 'ঈদ উপহার'। বাদ যাচ্ছে না কেউ। সবাইকে খুশি করতে উঠে পড়ে লেগেছেন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। রাজনৈতিক দলগুলোর এমন তৎপরতায় তৃণমূলের কর্মীরা বলছেন, সব সময় ঈদ আসলে নেতারা যদি আমাদের পাশে ঈদ উপহার নিয়ে (এবারের ঈদের মতো) আসতো, তাহলে কর্মী এবং নেতাদের মধ্যেও একধরনের মেলবন্ধন সৃষ্টি হতো।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এ বছরের ডিসেম্বরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই এবার তৃণমূলে ঈদ হবে জমজমাট। তাছাড়া গত ১০ বছরের মধ্যে এবার তৃণমূলের বাজেট হবে কয়েকগুণ বেশি। তারা বলেছেন, এরই মধ্যে ইউনিয়ন থেকে জেলা পর্যায়ে এমপি প্রার্থীরা একেকজন শতাধিক ইফতারি অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছেন। আবার রোজার প্রথমদিন থেকেই এলাকার গরিব-দুখী মানুষদের মধ্যে পোশাক ও খাবার বিতরণ শুরু হয়েছে। এমপি প্রার্থীরা ইফতার মাহফিলগুলোকে নির্বাচনী প্রচারণার চমৎকার ক্ষেত্র হিসেবে উপস্থাপন করছেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে স্থানীয় আওয়ামী লীগের তৃণমূল নেতাকর্মীদের ঈদ উপহার দিয়েছেন সরকারি দলটির নবীন-প্রবীণ নেতারা। তারা প্রথম রমজান (মনোনয়ন প্রত্যাশীরা) থেকেই নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ইফতার সংযোগ করে বেড়াচ্ছেন। ভোটের আগে ঈদ হাতে পেয়ে যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী শাড়ি, লুঙ্গি, পাঞ্জাবি কোথাও কোথাও 'ঈদ বকশিস' অর্থও বিতরণ করছেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন, শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনসহ অধিকাংশই মন্ত্রীই ইতোমধ্যে নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় কয়েক দফা ঘুরে এসেছেন। তারা দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে পাঞ্জাবি-পায়জামা, শাড়িসহ উপহার সামগ্রী বিতরণ করেছেন। একইসাথে গরিব-দুঃখীদের মধ্যে বস্ত্র ও ঈদসামগ্রী বিতরণ করেছেন। এ ছাড়াও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, ডা. দীপু মনি, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, সাংস্কৃতিক সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, কৃষি সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন, রিয়াজুল কবির কাওছারসহ অনেক কেন্দ্রীয় নেতা নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় ঈদ সামগ্রী বিতরণ করেছেন।

ব্যতিক্রম ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি : প্রতি বছরের মতো এবারো রমজানে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। তিনি দক্ষিণের অধীনে ২৪টি থানা, ৭৫টি সাংগঠনিক ওয়ার্ড ও এর অধীনের প্রত্যেকটি ইউনিটের ২৭ হাজার নেতাকর্মীকে পাঞ্জাবি উপহার দিয়েছেন। একইভাবে দিয়েছেন ভোলা-৩ আসনে নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, ভোলা-৪ আসনে আবদুল্লাহ ইসলাম জ্যাকব। তৃণমূল নেতদাকর্মীদের ঈদ উপহার দিয়েছেন যশোর-৫ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী বীরমুক্তিযোদ্ধা এস এম ইউনুস আকবর। নারায়ণগঞ্জ-৩ (সোনারগাঁ) আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক সংসদ আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত প্রতি বছরের মতো এবারো দলীয় নেতাকর্মীদের ঈদ উপহার দিয়েছেন। এছাড়াও ঢাকা-৬ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে ঈদ উপহার দিয়েছেন। মুন্সীগঞ্জ-১ আসনে গোলাম সারোয়ার কবির, নাটোর-৪ আসনে কোহেলি কুদ্দুস মুক্তি, ঢাকা-১৪ আসনে বর্তমান মহিলা এমপি সাবিনা আক্তার তুহিন, কিশোরগঞ্জ-২ (পাকুন্দীয়া-কটিয়াদী) আসনে এম এ আফজাল, ও ড. জায়েদ মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ, কিশোরগঞ্জ-৫ (নিকলী-বাজিদপুর) আসনে ফারুক আহমেদ গণসংযোগ করে চলেছেন। তারাও কর্মীদের ভালোবাসা পেতে পাঞ্জাবি-পায়জামা এবং গরিব-দুঃখীদের মধ্যে কাপড় বিতরণ করছেন।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের একজন সভাপতিম-লীর সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ডিসেম্বরে জাতীয় সংসদ নির্বাচন। তাই রোজার আগে থেকেই ইফতার মাহফিলের শিডিউল করা শুরু হয়েছে। তৃণমূলের মানুষদের কাছে গ্রহণযোগ্যতা না পেলে এবার আওয়ামী লীগ সভাপতি মনোনয়ন দেবেন না বলে হুঁশিয়ার করেছেন। ফলে যারা বিগত সময়ে এমপিও হয়েও এলাকায় কম গিয়েছেন তারাও রোজার প্রায় প্রতিদিনই নির্বাচনী এলাকায় ইফতার মাহফিলে যোগ দিচ্ছেন।

এ বিষয়ে দলের সভাপতিম-লীর সদস্য কর্নেল ফারুক খান বলেন, আওয়ামী লীগের এমপিরা সব সময়ই রোজায় ইফতার মাহফিলে অংশ নিয়ে থাকেন। তবে যেহেতু সামনে নির্বাচন, তাই এবার গ্রামে বেশি যাচ্ছেন মনোনয়ন প্রত্যাশীরা। দান খয়রাতও বেড়ে গেছে। এটা দোষের কিছু না। জনপ্রতিনিধি উৎসবে আয়োজনে অবশ্যই তার নির্বাচনী এলাকার মানুষের কাছে থাকবেন এটাই গণতন্ত্রের নিয়ম।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১০
ফজর৫:০৮
যোহর১১:৫১
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:২৯সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৯১০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.