নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৪ জুন ২০১৮, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৫, ২৮ রমজান ১৪৩৯
মির্জাপুরে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে নারী কেলেঙ্কারি ও শিক্ষার্থী নির্যাতনের অভিযোগ
মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) থেকে মো. জোবায়ের হোসেন
শিক্ষক মানুষ গড়ার কারিগর। কিন্তু কিছু কিছু শিক্ষক আছে যারা নিজেরাই অমানুষ। ছাত্রীর সাথে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে বাধ্য করা, ওড়না ধরে টান দেয়া, বুকে উপর বেত্রাঘাত করা, শ্রেণী কক্ষে ধুমপান করা ইত্যাদি ইত্যাদি নিশ্চয়ই কোন শিক্ষকের বৈশিষ্ট্য হতে পারে না! অথচ এমন চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ধারণ করেন উপজেলার গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয়ের গণিত শিক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন। বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী ও অবিভাবক এভাবেই বর্নণা করেন এই শিক্ষককে। খোদ স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতির কাছ থেকেই মিলেছে এমন কিছু তথ্যের সত্যতা। এতকিছুর পরও গত এপ্রিলে শুধুমাত্র নিজের নিয়মে অংক না করার দায়ে ক্লাসের ১০-১৫ জন শিক্ষার্থীর উপর পাশবিক নির্যাতন চালান এই শিক্ষক। এর পরই ফোঁসে উঠে শিক্ষার্থী, এলাকাবাসী ও অবিভাবকরা।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গত এপ্রিলে নিজের পদ্ধতি অনুসরণ না করে অংক করায় ৯ম শ্রেনীর প্রায় ১০-১৫ জন শিক্ষার্থীকে শারিরীকভাবে পাশবিক শাস্তি দেন শিক্ষক আনোয়ার। পরে আহত শিক্ষার্থীদের অবিভাবকরা উপজেলা শিক্ষা অফিস ও ম্যানেজিং কমিটি বরাবর তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ করেন।

অভিযোগ করার পর প্রভাবশালী ঐ শিক্ষক বিচার প্রার্থী অবিভাবকদের নানা ভাবে হুমকি প্রদর্শন করতে থাকে। হুমকির অপমান সহ্য না করতে পেরে এক ছাত্রীর অবিভাবক আত্মহত্যার চেষ্টা পর্যন্ত করেছিল। পরে এই ঘটনায় উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে প্রধান করে ৫ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। দীর্ঘ সময় তদন্ত কমিটির অনুসন্ধানের পর প্রভাবশালী এই শিক্ষক দোষী সাব্যস্ত হলে তাকে কারন দর্শানোর জন্য বলা হয়। কিন্তু সন্তোশজনক কোন উত্তর দিতে ব্যর্থ হন এই শিক্ষক।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ঔ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এক শিক্ষক ও কয়েকজন অবিভাবক জানান, ২০১৪ কালিয়াকৈরের একটি আবাসিক হোটেল ছাত্রীসহ আটক হন ঔ শিক্ষক। ঔ ঘটনায় তাকে সাসপেন্ড করা হলেও ৩০টি শর্তে পুনরায় চাকরিতে বহাল করা হয়। তারা আরও জানান , জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে নিয়ে তিনি আপত্তিকর মন্তব্য করেছিলেন। কিন্তু তার মুখের দিকে তাকিয়ে এ ব্যাপারে কেউ মুখ খুলেনি।

তার বিরুদ্ধে এত অভিযোগের বিষয়ে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় শুনে ব্যস্ত আছি বলে ফোন রেখে দেন অভিযুক্ত গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয়ের এই গণিত শিক্ষক।

এদিকে তদন্ত কমিটির রিপোর্টে এই শিক্ষক দোষী সাব্যস্ত হলেও অবিভাবকদের আশংখা ছিল এবারও ঔ শিক্ষক প্রভাব খাটিয়ে সবাইকে ম্যানেজ করে চাকরি চালিয়ে যাবে। তাই আজ(রবিবার) ছাত্রী, অবিভাবক ও এলাকাবাসী স্কুল ম্যানেজিং কমিটি সভাপতির সাথে দেখা করে ঔ শিক্ষকের অব্যাহতিসহ কঠোর শাস্তির জোর দাবি জানান।

এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন মোল্লা দৈনিক জনতাকে জানান, অভিযুক্ত ঔ শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে দোষী সাব্যস্ত করে স্কুল ম্যানেজিং কমিটি বরাবর লিখিত তদন্ত রিপোর্ট দেয়া হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়া হবে এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা চেয়ারম্যান ও গোড়াই উচ্চ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর এনায়েত হোসেন মন্টু জানান, এর আগে তাকে শর্ত সাপেক্ষে চাকরিতে রাখা হয়েছিল। কিন্তু এবার হয় সে নিজে অব্যাহতি নিবে নয়তো দুই-একদিনের মধ্যেই তাকে অব্যাহতি দেয়া হবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুন - ২৩
ফজর৩:৪৪
যোহর১২:০১
আসর৪:৪১
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৬
সূর্যোদয় - ৫:১২সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২১৫৫.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.