নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার ১৮ জুন ২০১৭, ৪ আষাঢ় ১৪২৪, ২২ রমজান ১৪৩৮
যশোর ২৫০ শয্যা হাসপাতালে কমিশনে রোগী বিক্রি!
যশোর প্রতিনিধি
যশোরে কমিশন চুক্তিতে জড়িত ২৫০ শয্যা হাসপাতালের চিকিৎসকরা। কমিশনে রোগী বিক্রির হাটে পরিণত হয়েছে সরকারি এ হাসপাতালটি। স্বাস্থ্যসেবা নিতে আসা মানুষকে খোদ চিকিৎসকরাই ঠেলে দিচ্ছেন বেসরকারি ক্লিনিক ও দালালের খপ্পরে। সূত্র জানায়, বৃহত্তর যশোর (ঝিনাইদহ, মাগুরা, নড়াইলসহ) জেলার মানুষের উন্নত চিকিৎসার শেষ ভরসা ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল। এই হাসপাতাল ঘিরে তৈরি হয়েছে রোগী ঠকানোর শক্ত সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেট মূলত পরিচালিত হয়ে থাকে চিকিৎসকদের সহায়তায়। যশোরের অধিকাংশ বেসরকারি ক্লিনিকের মালিক সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকরা। অনেকে যৌথ মালিকানায় গড়ে তুলেছেন বেসরকারি ক্লিনিক। আবার যারা নিজেরা ক্লিনিক করতে পারেননি তারা বেসরকারি ক্লিনিকের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন চিকিৎসা বাণিজ্য। এসব ক্লিনিকে চিকিৎসা চিকিৎসাসহ চিকিৎসরা ফি'র নামে আদায় করা হচ্ছে কয়েকজন অতিরিক্ত টাকা।

যশোর শহরের ৫৫টি বেসরকারি ক্লিনিকের মধ্যে ১৫-২০টির মালিকানায় রয়েছেন যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে কর্মরত চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন পদে থাকা কর্মকর্তারা। এর মধ্যে ডা. আবদুর রউফের পুঙ্গ মেডিকেল সেন্টার, ডা. মোসলেম উদ্দিনের ল্যাবএইড মেডিকেল সার্ভিসেস, ডা. আতিকুর রহমান খানের কিংস মেডিকেল সার্ভিসেস, ইয়াকুব আলী মোল্লার শুভ্র ডেন্টাল কেয়ার, ডা. গিয়াস উদ্দিনের ইউনাইটেড আই কেয়ার, ড. নিলুফার রহমান এমিলির অংশীদারী প্রতিষ্ঠান ইবনে সিনা ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ডা. গোলাম ফারুকের উত্তরা প্রাইভেট হাসপাতাল, ডা. সালাউদ্দিন ও ডা. আবুল কালাম আজাদের একতা হসপিটাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ডা. শেখ মোহাম্মদ আলীর হেলথ কেয়ার নেটওয়ার্ক এবং ইয়াসিন আরাফাতের ফেমাস ডেন্টাল সার্জারি। এছাড়া বাকি ক্লিনিকগুলোর সঙ্গে সরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকদের কমিশন চুক্তি রয়েছে বলে জানা গেছে। কমিশনের ভিত্তিতে তারা রোগী ভাগিয়ে নিচ্ছেন। যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে তৈরি হয়েছে অর্ধশতাধিক দালালের সিন্ডিকেট। প্রতিদিন হাসপাতাল চত্বরে মিলবে দালালদের দৌরাত্ম্য। ডাক্তারের কক্ষ থেকে রোগী বের হলেই ছিনিয়ে নেয়া হয় প্রেসক্রিপশন। ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান চালিয়ে বেশ কয়েকজনকে দন্ড দিয়েছে। তবুও থামছে না দালালদের দৌরাত্ম্য। গুল্লু, জুয়েল, তোয়েব, বাঁধন, সুমন, উকিল, আহাদ, মোস্তাক, ইস্তাক, রোমেল, সুজন, মানিক, রবিন, হীরক, হাবিব, সোলেমান, কালা সুমন, লালু সিন্ডিকেট চিকিৎসকদের পাশাপাশি কমিশনের ভিত্তিতেই দিনের পর দিন রোগী ঠকাচ্ছেন। একজন রোগী ক্লিনিকে নিয়ে যেতে পারলে মোট খরচের ৩০-৪০ শতাংশ চিকিৎসক, ২০-৩০ শতাংশ দালাল ও বাকি ২০-৩০ শতাংশ ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের পকেটে যায়। একইভাবে দালাল চক্র রোগীদের ভাগিয়ে ফার্মেসিতে নিয়ে যায়। সেখানেও রয়েছে কমিশন-বাণিজ্য। একজন রোগীকে ক্লিনিক বা ফার্মেসিতে নিয়ে প্রয়োজনীয়-অপ্রয়োজনীয় টেস্ট ও নিম্নমানের ওষুধ সরবরাহ করে সর্বনিম্ন ১৪০০-১৫০০ টাকা বিল করা হয়। এই টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে নাজেহালের শিকার হয় রোগীর স্বজনরা।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৬
ফজর৫:১২
যোহর১১:৫৪
আসর৩:৩৯
মাগরিব৫:১৭
এশা৬:৩৫
সূর্যোদয় - ৬:৩৩সূর্যাস্ত - ০৫:১২
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৪৬০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.