নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ৩০ জুন ২০২০, ১৬ আষাঢ় ১৪২৭, ৮ জিলকদ ১৪৪১
আমতলীতে মহাসড়কে প্রাক্কলন অনুসারে ড্রেন নির্মাণ না করায় পানি নিষ্কাশন বন্ধ
আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
আমতলী-কুয়াকাটা মহাসড়কের আমতলী বাঁধঘাট চৌরাস্তা বঙ্ কালভার্ট থেকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেঙ্ পর্যন্ত তিন'শ ৭৩ মিটার ড্রেন নির্মাণ কাজে অনিয়নের অভিযোগ পাওয়া গেছে। প্রাক্কলন অনুসারে কাজ না করায় পানি নিষ্কাশন বন্ধ রয়েছে। ড্রেনের পানি জমে ভরে গেছে। পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ময়না-আবর্জনায় ভরে পচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পরেছে। এতে দুভর্োগে পরেছে ড্রেনের পাশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ। পচা দূর্গন্ধে এলাকায় বসবাস অনুপোযোগী হয়ে পরেছে। দ্রুত এর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

জানা গেছে, পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথ বিভাগ এ বছর জানুয়ারি মাসে আমতলী-কুয়াকাটা মহাসড়কের আমতলী বাঁধঘাট চৌরাস্তা বঙ্ কালভার্ট থেকে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেঙ্ পর্যন্ত তিন'শ ৭৩ মিটার ড্রেন নির্মাণের দরপত্র আহবান করে। ওই ড্রেন নির্মাণের কাজ পায় মির্জাগঞ্জের ঠিকাদার বারেক মিয়া। এ বছর ফেব্রুয়ারী মাসে তিনি ড্রেন নির্মাণ কাজ শুরু করেন। মহাসড়কের দুই পাশে তিন'শ ৭৩ মিটার দৈঘ্য, তিন ফুট প্রস্থ ও তিন ফুট গভীর এ ড্রেনটি। ড্রেন শুরুতেই তিনি প্রাক্কলন অনুসারে কাজ করে নি। দৈর্ঘ্য-প্রস্থ ঠিক থাকলেও ড্রেনেজের গভীরতা ঠিক নেই। এছাড়াও নিম্নমানের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে তিনি কাজ করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। স্থানীয় লোকজন কাজের শুরুতে ঠিকাদারের এ অনিয়মের বিষয়টি সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাব ডিভিশন প্রকৌশলী মো. বেলায়েত হোসেনকে জানালেও তিনি কোনো কর্নপাত করেনি। উল্টো তিনি তাদের সাথে খারাপ আচরন করেছেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ফলে ড্রেন দিয়ে পানি নিষ্কাশন হচ্ছে না বলে জানান স্থানীয়রা। ড্রেনেজের মধ্যে পানি ও ময়লা জমে পচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পরেছে। এতে ভোগান্তিতে পরেছে ড্রেনেজের পাশে ব্যবসারত অন্তত পাঁচ হাজার মানুষ।। দ্রুত এ ড্রেন সংস্কার করা না হলে পরিবেশ মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে। স্থানীয়রা অভিযোগ করেন পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাব ডিভিশন প্রকৌশলী মো. বেলায়েত হোসেন ঠিকাদারের সাথে যোগসাজশে নিম্নমানের সামগ্রী ও প্রাক্কলন অনুসারে কাজ না করে অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। গতকাল সোমবার সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, ড্রেন দিয়ে পানি নামছে না। ড্রেনেজে পানি ও ময়লা আবর্জনায় ভরা। ড্রেন থেকে পঁচা দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়েছে। ড্রেনের দু'পাশের ব্যবসায়ীরা খুবই কষ্টে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছেন। আমতলী চৌরাস্তার ফল ব্যবসায়ী আল-আমিন বলেন, এটা ড্রেন করা হয়নি, ময়লার ভাগার করা হয়েছে। ড্রেন দিয়ে কোনো পানি নামছে না। পচা দুর্গন্ধে আমাদের টিকতে সমস্যা হচ্ছে। ড্রেনেজে পানিতে ভরে আছে। দ্রুত ড্রেন সংস্কারের দাবি জানাই।

বরগুনা জেলা পরিষদ সদস্য মো. আবুল বাশার নয়ন মৃধা বলেন, সড়ক ও জনপথ বিভাগের প্রকৌশলী ও ঠিকাদারের যোগসাজশে প্রাক্কলন অনুসারে কাজ না করে টাকা আত্মসাৎ করেছেন। পরিকল্পনা অনুসারে ড্রেন না করায় পানি নিষ্কাশন বন্ধ রয়েছে। ড্রেন দিয়ে পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ময়লা আবর্জনায় ভরে গেছে। এখন পঁচা দূর্গন্ধে এলাকায় বসবাস করা কষ্টসাধ্য ব্যপার হয়ে দাড়িয়েছে। তিনি আরো বলেন, এটাকে কোনো ড্রেন বলা যায় না। সরকারের লাখ লাখ টাকা নষ্ট করেছে। এ ড্রেন দিয়ে আমতলীবাসীর কোন কাজে আসবে না। ড্রেন নির্মাণের অনিয়মের সাথে জড়িতদের দ্রুত শাস্তি দাবী করছি। এ বিষয়ে ঠিকাদার মো. বারেক মিয়ার মুঠোফোনে (০১৭১৬৫৯৮৬৩১) বারবার যোগাযোগ করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

পটুয়াখালী সড়ক ও জনপথ বিভাগের সাব ডিভিশন প্রকৌশলী মো. বেলায়েত হোসেন ড্রেন নির্মাণের অনিয়মের কথা অস্বীকার করে বলেন, ড্রেন দিয়ে পানি নিস্কাশন হচ্ছে না তা আমি সরেজমিনে পরির্দশন করে দেখেছি। ঠিকাদারকে দ্রুত সময়ের মধ্যে ড্রেন সংস্কার করার নির্দেশ দিয়েছি। তিনি সংস্কার না করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ১১
ফজর৩:৫২
যোহর১২:০৪
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫২
এশা৮:১৫
সূর্যোদয় - ৫:১৮সূর্যাস্ত - ০৬:৪৭
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৩৭৬.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.