নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১২ জুলাই ২০১৮, ২৮ আষাঢ় ১৪২৫, ২৭ শাওয়াল ১৪৩৯
গুড়া ধুনট হাসপাতালের ডাক্তারসহ নানা সঙ্কট
স্বাস্থ্যসেবা ভেঙে পড়ায় চরম ভোগান্তিতে শত শত রোগী
বগুড়া থেকে এম. এ. রাশেদ
একদিকে ডাক্তার, নার্সসহ বিভিন্ন পদে জনবল সঙ্কট অন্যদিকে এঙ্-রে, আলট্রাসনোগ্রাম, ইসিজিসহ রোগ নির্ণয়ের যন্ত্রপাতি অকোজে হয়ে পাড়ায় বগুড়ার ধুনটে ৫০ শয্যা হাসপাতাল এখন নিজেই রোগাক্রান্ত হয়ে পড়েছে। ফলে প্রতিদিন চিকিৎসা নিতে আসা সর্বস্তরের মানুষকে পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে। হাসপাতালের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, ধুনট উপজেলার প্রায় সাড়ে তিন লাখ মানুষের চিকিৎসাসেবার একমাত্র ৫০ শয্যার এ হাসপাতালটিতে বিষয়ভিত্তিক বিশেষজ্ঞসহ মোট ২১ জন চিকিৎসকের বিপরীতে চিকিৎসক আছেন মাত্র ৭ জন।

এক যুগেরও বেশি সময় ধরে এই হাসপাতালের গুরুত্বপূর্ণ যেসব পদ শূন্য রয়েছে তার মধ্যে আর এমও, গাইনি বিশেষজ্ঞ, শিশু বিশেষজ্ঞ, চর্ম ও যৌন বিশেষজ্ঞ, চক্ষু বিশেষজ্ঞ, নাক, কান ও গলা বিশেষজ্ঞ, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ কাডিও লজি, কনসালট্যান্ট সার্জন, অ্যানেসথেসিয়া ও অর্থপেডিঙ্ এই ১১টি পদ অন্যতম। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকর্তা জানান, প্রতিদিন ২৫/৩০ জন ভর্তি রোগী ছাড়াও আউটডোরে প্রায় ৩শ জন রোগী চিকিৎসা নিতে আসেন। ডাক্তার সঙ্কটের কারণে এ হাসপাতালটিতে চিকিৎসা কার্যক্রম অনেকটাই মেডিক্যাল এসিস্টাননির্ভর হয়ে পড়েছে। ঐ কর্মকর্তা আরো জানান, প্রায় ২০ বছর ধরে সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়া অত্যাধুনিক ২টি এঙ্-রে মেশিন কোনোদিনই আলোর মুখ দেখেনি, একই অবস্থা ২টি আলট্রাসনোগ্রাম মেশিনের। ইসিজি ও ডেন্টাল ইউনিট অকেজো হয়ে পড়ে আছে প্রায় এক যুগ ধরে।

বিশেষজ্ঞ সার্জন না থাকায় ২টি অপারেশন থিয়েটারের মুল্যবান যন্ত্রপাতি নষ্ট হচ্ছে অযত্নে অবহেলায়। অথচও মেডিকেল টেকনোলজিস্ট (এঙ্-রে অপারেটর) মোফাজ্জল হোসেন শুধু হাজিরা খাতায় নাম লিখে একই কর্মস্থলে ২৪ বছর ধরে সরকারি বেতন ভাতাসহ বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা ভোগ করছেন। এ ব্যাপারে মোফাজ্জল হোসেন একই কর্মস্থলে শুধু হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করে ২৪ বছর ধরে চাকরি করার কথা স্বীকার করেছেন। স্থানীয় বাসিন্দা এইচ কাফি আব্দুল্লা বলেন, মোফাজ্জাল হোসেন হাসপাতালে হাজিরা দিয়েই নিজের ওষুধের দোকানে সারাদিন সময় দেন। তিনি হাসপাতালের অনিয়ম অব্যবস্থাপনার বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগে দিয়ে কোনো প্রতিকার পাননি বলে জানান। রোগ নির্ণয়ের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি বিকল হয়ে পড়ায় হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার জন্য ব্যক্তি মালিকানায় গড়ে তোলা অননুমোদিত ডায়গনেস্টিক সেন্টারে যেতে হচ্ছে।

ফলে সহজলভ্যে হাসপাতালে রোগ নির্ণয়ের সুবিধা না পেয়ে অনেক গরিব দুস্থ রোগীরা প্রতিনিয়ত অপচিকিৎসার দারস্থ হচ্ছে প্রতি পদে পদে। রোগী বহনকারী দুটি এম্বুলেন্সই বিকল হয়ে পড়ায় জরুরি রোগী পরিবহণে বেশি ভাড়ায় বাইরে থেকে মাইঙ্ােবাস, সিএনজি (অটোরিকশা) ভাড়া করতে হচ্ছে প্রায়ই। অভিযোগ রয়েছে, ডাক্তারদের আবাসিক সুবিধা থাকার পরও স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাসহ কর্তব্যরত ডাক্তারগণ জেলা সদর বগুড়া থেকে অনিয়মিত ধুনটে অফিস করায় চিকিৎসা কার্যক্রম ব্যাহত হওয়ায় স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এলাকার সাধারণ মানুষ।

এ বিষেয়ে স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ডাক্তার সংকটের পাশাপাশী ২০ জন নার্সের বিপরীতে আছে ১৮ জন, ৪ পিওনের বিপরীতে আছে মাত্র একজন, সুইপার পদে ৫ জনের জায়গায় একজন। এসব পদ শূন্য থাকায় বিভিন্ন সেবামূলক কার্যক্রম জোড়াতালি দিয়ে চালানো হচ্ছে। হাসপাতালের নানা সংকটের বিষয়গুলো সমাধানের জন্য ঊর্ধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিকবার চিঠি চালাচালি করেও কোনো কাজ হচ্ছে না।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ১৬
ফজর৩:৫৫
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:২০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৬২৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.