নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ১২ জুলাই ২০১৮, ২৮ আষাঢ় ১৪২৫, ২৭ শাওয়াল ১৪৩৯
উলিপুরে নদীভাঙন অব্যাহত ২ শতাধিক বসতবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন
উলিপুর (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
কুড়িগ্রামের উলিপুরে তিস্তা নদীর পানি কমলেও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি সামান্য বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সাথে দেখা দিয়েছে তীব্র ভাঙন। ১৫ দিনের অব্যাহত ভাঙনে উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের প্রায় দুই শতাধিক বসতবাড়িসহ ফসলি জমি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙনের মুখে ঘরবাড়ি সরাতে হিমশিম খাচ্ছেন ভাঙনকবলিত এলাকার ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলো। ভাঙনের কারণে গৃহহারা মানুষজন খাদ্য ও আবাসিক সংকটে পড়েছেন।

জানা গেছে, তিস্তা ও ব্রহ্মপুত্র নদীবেষ্টিত উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি ইউনিয়ন নদী ভাঙনের কবলে পড়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত থেতরাই ইউনিয়নের হোকডাঙ্গা হিন্দু পাড়া, মাঝিপাড়া, মেম্বার পাড়া, ডাক্তার পাড়া, ফকির পাড়া গ্রামের ৫১টি পরিবার গুনাইগাছ ইউনিয়নের সন্তোষ অভিরাম, টিটমা, কাজির চক, শুকদেব কুন্ডর ২০টি পরিবার বজরা ইউনিয়নের সাতালস্কর, চর বজরার ৪৬টি পরিবার হাতিয়া ইউনিয়নের কামারটারি ও হাতিয়া গ্রামের ৮১ পরিবারসহ দুই শতাধিক বসতবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। অবিরাম ভাঙনের মুখে ঘরবাড়ী সরাতে হিমশিম খাচ্ছে ভাঙন কবলিত এলাকার মানুষজন। ভাঙনে গৃহহারা

মানুষজন খাদ্য ও আবাসিক সংকটে পড়েছেন। ভাঙনের হুমকিতে পড়েছে গুনাইগাছ ইউনিয়নে কোটি টাকা ব্যয়ে সদ্য নির্মিত নাগড়াকুড়াটি বাঁধসহ ৫টি গ্রাম ও ১টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ২টি মন্দির।

থেতরাই ইউনিয়নের হোকডাঙ্গা গ্রামের মহুবর রহমান (৫৫), আঞ্জুআরা বেগম (৫০), বিশোদা (৬০), নরেশ চন্দ্র বর্মন (৫৮), মোসলেম উদ্দিন (৪৫), গোপাল চন্দ্র বর্মন (৫০), লালমিয়া (৫৫), বিরেন্দ্র নাথ (৬০), আব্দুল মামুদ (৮৫)সহ নদী ভাঙ্গনে ক্ষতিগ্রস্ত অনেকে জানান, গত বছর থেকে এ সব এলাকায় ভাঙন শুরু হলেও কর্তৃপক্ষ কোনো পদক্ষেপ না নেয়ায় চলতি বছর ভাঙনের তীব্রতা বৃদ্ধি পেয়েছে। জরুরি ভিত্তিতে ভাঙন রোধে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি তাদের। ঐ ইউনিয়নের ৭,৮ ও ৯ নং ওয়ার্ডের সদস্য তারামনি বম্মণী বলেন, পার্শ্ববর্তী সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের খোদ্দারচরে অপরিকল্পিতভাবে তিস্তা নদীর পশ্চিম পাড়ে মাটি ভরাট করে বৃহৎ সোলার প্যানেল প্রকল্প স্থাপনের কারনে নদীর গতি পরিবর্তন হওয়ায় ভাঙ্গনের তীব্রতা বেড়েছে। তিনি আরও জানান, গত কয়েকদিনের ভাঙনে তার বাড়িসহ হিন্দু পাড়া ও ডাক্তার পাড়া গ্রাম নদীতে বিলীন হয়ে গেছে।

থেতরাই ইউপি চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী সরকার জানান, ঐ এলাকায় প্রতি বছর নদী ভাঙ্গছে ভাঙ্গনরোধে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করে আবেদন করা হয়েছে। কার্যকর ব্যবস্থা নিলে নদী ভাঙনরোধ সম্ভব হবে।

গুনাইগাছ ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ খোকা জানান, শুকনো মৌসুমে নাগড়াকুড়া এলাকায় টি'বাঁধের নিকটবর্তী এলাকা থেকে অবাধে বালু উত্তোলন করায় কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত টি'বাঁধটি হুমকির সম্মুখিন। এ ব্যাপারে প্রশাসনকে জানালেও কোন ব্যবস্থা গ্রহন করেননি।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রবিউল ইসলাম বলেন, নদী ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য ইউনিয়ন প্রতি ১ টন করে চাল সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহাম্মদ শফিকুল ইসলাম জানান, ভাঙন কবলিত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্তদের খাদ্য সহায়তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের কাছে ভাঙন রোধের ব্যবস্থার জন্য জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যে ভাঙন কবলিত এলাকায় টি'বাঁধ নির্মাণের প্রস্তাব কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বোর্ড ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে প্রেরন করেছেন।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ১৬
ফজর৩:৫৫
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৫১
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:২০সূর্যাস্ত - ০৬:৪৬
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৬৯১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.