নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১২ জুলাই ২০১৯, ২৮ আষাঢ় ১৪২৬, ৮ জিলকদ ১৪৪০
হাফছড়ি উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ
খাগড়াছড়ি থেকে নুরুল আলম
খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলাধীন হাফছড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেনের অনিয়ম-দুর্নীতি ও বিভিন্ন ধরনের জালিয়াতি এখন তুঙ্গে। একের পর এক দুর্নীতি করেও কোনো ধরনের ব্যবস্থা না নেয়ায় বেড়েই চলছে তার অনিয়ম। বর্তমানে অনিয়ম বিদ্যালয়টি প্রধান শিক্ষক ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে স্কুল পরিচালনা কমিটির একটি চক্রের মধ্যেও।

অভিযোগ উঠেছে এ স্কুলে অধিকহারে বেতন, অযৌক্তিক সেশন ফি ও মাধ্যমিক পরীক্ষার ফরমপূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়সহ বিভিন্ন খাতের আয়কৃত টাকা ব্যাংকে জমা না দিয়ে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার, তার নিকট আত্মীয়দের টাকার বিনিময়ে কৌশলে শিক্ষক পদে নিয়োগ দেয়ার অভিযোগ উঠেছে এ শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

জানা যায়, শিক্ষার্থীদের থেকে নেয়া সেশন ফি নিলেও, বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ক্রীড়া অনুষ্ঠান নিয়ে রয়েছে নানা অভিযোগ।

প্রতি শিক্ষার্থী কাছ থেকে ১শ টাকার উপরে অর্থ আদায় করে বিদ্যালয়ে গত ২-৩ বছর যাবৎ কোনো খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়নি বলে জানিয়েছে শিক্ষার্থীরা। এসব বিষয় জানতে চাইলে শিক্ষার্থীদের নয়-ছয় করে বুঝিয়ে দেয়াসহ ভয়-ভীতি দেখানোর অভিযোগ রয়েছে।

এছাড়াও বিদ্যালয়ে রমজানের ছুটিতে স্পেশাল ক্লাস নাম ভাঙিয়ে শিক্ষার্থীদের প্রথমে ফি বাবদ ২শ টাকা বলে পরবর্তীতে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে ৩শ টাকা করে হাতিয়ে নেয়।

শিক্ষার্থীরা এসব ব্যাপারে কিছু বলতে চাইলে এ প্রধান শিক্ষক উল্টোপাল্টা কথা বলেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বিদ্যালটিতে বেতন নিয়েও রয়েছে ঝামেলা। এ বিদ্যালয়ে পরীক্ষার হলে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে জোরপূর্বক বেতনের টাকা আদায় করারও অভিযোগ উঠেছে। এসব বিষয়ে শিক্ষার্থীরা কিছু বলতে না পেরে বাসা গিয়ে অভিভাবকদের চাপ প্রয়োগ করে।

অথচ পার্বত্য এলাকায় বেশির ভাগ শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা দরিদ্র, দিনে এনে দিনে খাওয়া অভিভাবকদের পক্ষে অর্থের টানাপোড়েনের মধ্যেও এ সকল কারণে অভিভবকরা পরিবার নিয়ে হিমশিম খাচ্ছে অভিভাবকরা।

এ ধরনের আচরণে দেশে হাজার হাজার শিক্ষার্থী লেখাপড়া ছেড়ে দিতে বাদ্য হচ্ছে। কারণ তাদের পরিবারের পক্ষে তার পড়া লেখার খরচ চালনো অনেক কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়ছে। এ ধরনের কর্মকা- অমানবিক বলে মন্তব্য করেন সচেতন সমাজ।

এছাড়াও বিদ্যালয়টি সড়ক ও জনপদ বিভাগের জায়গার উপর দোকানঘর নির্মাণ করে প্রতি বছর তা থেকে আদায়কৃত ভাড়ার প্রায় লাখ লাখ টাকা আত্মসাৎ করছে এ শিক্ষক ও পরিচালনা কমিটির একটি চক্র। হাফছড়ি হাই বিদ্যালয়ের ফাউন্ডেশনহীন এ ছাদে টাওয়ারটি ভেঙে পড়ে যে কোনো সময় শিক্ষার্থীদের দুর্ঘটনায় মৃত্যুসহ ঝুঁকি থাকলেও মোবাইল টাওয়ারের নির্মাণসহ মোট অঙ্কের টাকা মোবাইল কোম্পানির সাথে চুক্তি করে প্রতি বছর হাতিয়ে নিচ্ছে বলে অভিযোগ এলাকাবাসী ও অভিভাবকদের।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোনো কিছু মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তাই এই দুর্নীতিবাজ প্রধান শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেন ও পরিচালনা কমিটির জড়িতদের অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে স্থানীয় সচেতন মহল।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২১
ফজর৪:৫৮
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৪৯৬.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.