নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ২৭ জুলাই ২০২১, ১২ শ্রাবণ ১৪২৮, ১৬ জিলহজ ১৪৪২
আমাদের সচেতন হতে হবে
করোনাভাইরাসের আক্রমণে বিশ্ব আতঙ্কিত। প্রতিদিনই দেশে দেশে নানা তথ্যের সূত্রপাত ঘটছে। জীবন মরণের খেলায় মত্ত করোনাভাইরাসকে পরাজিত করে জীবনের গান গাইলেও শরীরে নানা সমস্যা সৃষ্টি করে। ইক্লিনিক্যাল মেডিসিন সাময়িকীতে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, যাদের দীর্ঘদিন করোনার সংক্রমণ থাকে তাদের দেহের দশটি অঙ্গ-প্রতঙ্গের দু'শতাধিক প্রভাব দেখা গেছে। বিশ্বের ৫৭টি দেশের ৩৭৬২ জন রোগীর ওপর অনলাইনে এ গবেষণা পরিচালিত হয়েছে। এতে দেহের ১০ অঙ্গ- প্রত্যঙ্গে ২০৩ প্রভাব দেখা গেছে। এরমধ্যে ৬৭টি লক্ষণের ওপর নজর রাখা হয়েছিল সাত মাস।

দীর্ঘমেয়াদি করোনা আক্রান্ত নিয়ে প্রচুর আলোচনা হলেও এই জনগোষ্ঠীর ওপর প্রক্রিয়াগত অনুসন্ধানী গবেষণা একেবারে নেই বললেই চলে। এর লক্ষণগুলোর ব্যাপ্তি সময়ের সাথে সাথে লক্ষণগুলোর বিস্তার, তীব্রতা, প্রত্যাশিত ক্লিনিক্যাল কোর্স, দৈনন্দিন জীবনে এর প্রভাব এবং প্রত্যাশিত স্বাস্থ্য ফিরে পাওয়ার সময় নিয়ে তুলনামূলক কমই জানা গেছে। তবে ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডনের নিউরো বিজ্ঞানী অ্যাথেনা আকরাসি এ গবেষণা প্রতিবেদনে বলেছেন, সবচেয়ে সাধারণ যে প্রভাবগুলো দেখা যায় সেগুলো হচ্ছে- অবসাদ, কাজের শেষে অস্বস্তি অর্থাৎ শারীরিক বা মানসিক পরিশ্রমের পর লক্ষণগুলোর অবনতি এবং ভুলে যাওয়া, যাকে প্রায়ই কুয়াশাচ্ছন্ন মস্তিষ্ক বলা হয়। এর বাইরে যে লক্ষণগুলো দেখা যায় তার মধ্যে রয়েছে দৃষ্টিবিভ্রম, কম্পন, চুলকানি, ঋতুস্রাব অনিয়ম, যৌন অক্ষমতা, হৃৎপি-ে ধড়ফড়ানি, প্রস্রাবের বেগ নিয়ন্ত্রণের সমস্যা, স্মৃতিভ্রষ্টতা, ঝাপসা দৃষ্টি, ডায়রিয়া ও কানে শো শো শব্দ শোনা। বস্তুত করোনা এমনই এক ভাইরাস যা দুনিয়াকে গুডবাই জানাতে বাধ্য করে। ভাগ্যক্রমে বেঁচে গেলে জীবন্মৃত অবস্থায় থাকতে হয়। রোগের নানা প্রভাবে জীবন দুর্বিষহ হয়ে ওঠে। কাজেই করোনাভাইরাস খুব ভয়ঙ্কর। যাকে ধরবে তার জীবনের বারোটা বাজিয়ে ছাড়বে। বাংলাদেশের সামগ্রিক অবস্থা বিবেচনায় দেখা যাচ্ছে করোনাভাইরাস নিয়ে কেউ সচেতন নয়। সরকার লাগাতার সর্বাত্মক লকডাউন দিলেও মানুষকে ঘরে আটকে রাখা সম্ভব হয়নি। এরমধ্যে ঈদ-উল-আজহা উপলক্ষে ১৫ থেকে ২২ জুলাই লকডাউন শিথিল করে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আগস্ট পর্যন্ত সর্বাত্মক লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার। যদিও লকডাউন শিথিল করায় করোনা জাতীয় পরামর্শক কমিটি ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। এদিকে লকডাউনে মানুষ ঈদ করতে ছুটেছে ঝাঁক বেঁধে, গেছে শপিংমলে। পথে-ঘাটে যান ও জনজট ছিল ব্যাপক আকারে। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা খুবই আতঙ্কিত। তারা বলছে, এমনি প্রতিদিনই মৃত্যু ও সংক্রমণের রেকর্ড হচ্ছে? ঈদের পর তা আরো বাড়ছে। আক্রান্ত ও মৃত্যুর ভয়াবহতায় দেশের সব হাসপাতালগুলো তাদের চিকিৎসা সহায়তায় সক্ষমতা হারিয়েছে রোগীর চাপের কারণে। সাথে আছে অক্সিজেন সংকট।

কাজেই স্বাস্থ্যবিধি মেনে, নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে নিজেকে ঘরে বন্দি রেখে আক্রান্তদের হোম কোয়ারেন্টাইনে রেখে জীবন বাঁচাতে, জীবন চালাতে তৎপর হওয়া উচিত। জীবন হারাবেন না। নানা উপসর্গে নিজেকে আক্রান্ত করবেন না। এ বিষয়গুলোতে সবারই সাবধান হওয়া উচিত।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৪
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৬
এশা৭:০৯
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৬৯৮৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.