নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শনিবার ১০ আগস্ট ২০১৯, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৬, ৮ জিলহজ ১৪৪০
ঈদ ঘিরে চাঙ্গা অর্থনীতি
মুদ্রাস্ফীতি বাড়ার আশঙ্কা
মো. কামরুল হাসান
দেশের উত্তরাঞ্চলে তীব্র ও মধ্যাঞ্চলে হালকা বন্যার পর নতুন করে ডেঙ্গু আতঙ্কে অনেকটাই ঝিমিয়ে পড়ে দেশের অর্থনীতি। তবে ঈদ উল আজহার আমেজে গতি বেড়েছে ওই অর্থনীতিতে। বেড়েছে অর্থনৈতিক কর্মচাঞ্চল্যও। ঈদ উপলক্ষে প্রবাসীরা বৈদেশিক অর্থ (রেমিট্যান্স) প্রেরণ করছেন দেশে। পাশাপাশি সরকারি ও বেসরকারি অধিকাংশ অফিসে সম্পন্ন করা হয়েছে বেতন-বোনাস প্রদান। সেই সঙ্গে হাতে অর্থ পাচ্ছেন গার্মেন্ট শ্রমিকসহ প্রায় সব শ্রেণীর সাধারণ মানুষ। যার ফলে ঈদের সময়ে খরচের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ থাকছে সবার হাতে হাতে। একই সঙ্গে পশুর হাটগুলোতে পশু কেনাবেচায় হবে বড় ধরনের আর্থিক লেনদেন। ফলে সবকিছু মিলিয়ে চাঙ্গা ভাব তৈরি হয়েছে দেশের অর্থনীতিতে।

ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদের বাকি মাত্র ২ দিন। ফলে ঈদ সামনে রেখে বিভিন্ন পণ্যের ব্যবসায়ীদের এখন দম ফেলার সময় নেই। ফলে কেনাকাটা সর্বত্র। এদিকে দেশে প্রস্তুত রয়েছে কোরবানির মূল আকর্ষণ ১ কোটি ১৮ লাখ পশু। সীমান্তে কড়াকড়ির মধ্যেও ভারত ও মায়ানমার থেকে কোরবানির পশু আসছে বলে জানা গেছে। একই সঙ্গে বাড়ছে টাকার প্রবাহ। বাড়তে শুরু করেছে রেমিট্যান্স। বোনাস পেয়েছেন সরকারি-বেসরকারি চাকরিজীবীরা, যার ফলশ্রুতিতে শহর থেকে টাকা যাচ্ছে গ্রামে। সবকিছু মিলে দেশের অর্থনীতিতে কোরবানির আমেজ চলছে। তবে এর নেতিবাচক দিকও রয়েছে। বাজারে বাড়তি টাকার প্রবাহের কারণে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যেতে পারে। যদিও এ বছর ব্যতিক্রম চিত্র রয়েছে। দেশের ২০টিরও বেশি জেলায় বন্যা এবং সব জেলায় ডেঙ্গুর ভয়াবহতার কারণে এবার উৎসবে কিছুটা ঘাটতির আশঙ্কা করছেন কেউ কেউ। ইতোমধ্যেই আক্রান্তের এ সংখ্যা ৩০ হাজার ছাড়িয়েছে। সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, দুই ঈদেই বাজারে টাকার প্রবাহ বেড়ে যায়। শহর থেকে গ্রামমুখী হয় টাকা। অর্থনীতিতে এর ইতিবাচক দিক হলো, বণ্টন ব্যবস্থায় একটি পরিবর্তন হয়। এতে অধিকাংশ মানুষের কাছেই টাকা পৌঁছে যায়। আর নেতিবাচক দিক হলো মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বৃদ্ধির কারণে মূল্যস্ফীতি বেড়ে যায়।

এদিকে ঈদকে সামনে রেখে ব্যাংকিং চ্যানেলে বেড়েছে প্রবাসীদের আয় বা রেমিট্যান্স প্রবাহ। সদ্য সমাপ্ত জুলাই মাসে প্রবাসীরা ১৫৯ কোটি ৭৬ লাখ মার্কিন ডলারের সমপরিমাণ রেমিট্যান্স দেশে পাঠিয়েছেন। যা গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ২১ দশমিক ২০ শতাংশ বেশি। অন্যদিকে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই'র এক সমীক্ষায় বলা হয়, ঈদে পরিবহণ খাতে অতিরিক্ত যাচ্ছে ৬০০ কোটি টাকা। এই উৎসবে ভ্রমণ ও বিনোদন বাবদ ব্যয় হয় ৪ হাজার কোটি টাকা। এসব খাতে নিয়মিত প্রবাহের বাইরে যোগ হচ্ছে ১ লাখ ২৫ হাজার কোটি টাকা।

এর বাইরে আরও কয়েকটি খাতের কর্মকা- অর্থনীতিতে যোগ হচ্ছে। যেমন- ২১ লাখ সরকারি কর্মকর্তা ও কর্মচারীর সম্ভাব্য বোনাস বাবদ ১২ হাজার কোটি টাকা, দেশব্যাপী ৬০ লাখ দোকান কর্মচারীর বোনাস ৫ হাজার কোটি টাকা, পোশাক ও বস্ত্র খাতের ৭০ লাখ শ্রমিকের সম্ভাব্য বোনাস ২ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। এদিকে পশু কোরবানির সঙ্গে সঙ্গে অর্থনীতিতে চামড়ার ব্যাপক গুরুত্ব রয়েছে। ব্যবসায়ীদের মতে, প্রতি বছর দেশে দেড় কোটিরও বেশি পশুর চামড়া পাওয়া যায়। এর বড় অংশই আসে কোরবানির পশু থেকে। চামড়া ব্যবসায়ীরা বলছেন, এ খাতের মূল বাজার ৪ থেকে ৫ হাজার কোটি টাকা। কিন্তু এর সঙ্গে জড়িত অন্যান্য বাজারসহ এ খাতে ১০ হাজার কোটি টাকার বেশি লেনদেন হয়। এ বছর কোরবানির চামড়া কিনতে ১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা ঋণও দিচ্ছে কয়েকটি ব্যাংক।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২১
ফজর৪:৫৮
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৭সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১২৬৭২.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.