নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৩০ ভাদ্র ১৪২৫, ৩ মহররম ১৪৪০
আমতলীতে গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে রাজি না হওয়ায় সৎ মাকে পিটিয়ে হাসপাতালে
আমতলী প্রতিনিধি
গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে রাজি না হওয়ায় সৎ মা আকলিমা বেগমকে (৩০) বেধড়ক মারধর করছে সৎ ছেলে শাহীন মোল্লা। আহত অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে (সৎ মা) গত বুধবার রাতে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা ঘটেছে বরগুনার

আমতলী পৌর শহরের সবুজবাগ এলাকায় মঙ্গলবার রাতে। জানা গেছে, ২০১০ সালে বরগুনা জেলার বেতাগী উপজেলার গেরদো লক্ষ্মীপুরা গ্রামের কামরুজ্জামান মোল্লা আমতলী পৌর শহরের মিঠা বাজার এলাকার মেসের মলি্লকের মেয়ে আকলিমাকে দ্বিতীয় বিয়ে করে। বিয়ের সময় হতদরিদ্র আকলিমার বাবা জামাতাকে ফুচকা ব্যবসার জন্য ২০ হাজার টাকা যৌতুক দেয়। বিয়ের ৮ বছরে আকলিমা তিন বার সন্তান ধারণ করে। প্রতিবারই সন্তান ধারণ করলে কৌশলে স্বামী কামরুজ্জামান ও সৎ ছেলে শাহীন মোল্লা শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে গর্ভের বাচ্চা নষ্ট করে দেয়। ইতিপূর্বে দু'বার নষ্ট করেছে। বর্তমানে আকলিমা বেগম চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। সৎ মায়ের অন্তঃসত্ত্বার খবর পেয়ে মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার সময় সৎ ছেলে শাহীন মোল্লা এবং স্বামী কামরুজ্জামান মোল্লা বাড়িতে আসে। স্বামী কামরুজ্জামান পেটের সন্তান নষ্ট করার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। এতে রাজি হয়নি আকলিমা। পরে ক্ষিপ্ত হয়ে সৎ ছেলে শাহীন মোল্লা সৎমাকে বেধড়ক মারধর করে। মারধরে আকলিমা জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। মারধর শেষে আকলিমাকে ঘরের মধ্যে আটকে রাখে। খবর পেয়ে গত বুধবার রাতে আকলিমার স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েভর্তি করে। বৃহস্পতিবার আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েগিয়ে দেখা গেছে, আকলিমার বাম চোখের নিচে রক্তাক্ত জখম। শরীরের অসহ্য যন্ত্রণায় কাতরাচ্ছেন। আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেঙ্ েউপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার নিখিল চন্দ্র বলেন, আকলিমা চার মাসের অন্তঃসত্ত্বা। তার বাম চোখের নিচে এবং শরীরে বিভিন্ন স্থান রক্তাক্ত ফোলা জখমের চিহ্ন রয়েছে।

আহত আকলিমা জানান, বিয়ের আট বছরে তিন বার সন্তান ধারণ করেছি। যখনই সন্তান ধারণের খবর জানতে পায় তখনই স্বামী ও সৎ ছেলে মিলে কৌশলে আমার গর্ভের সন্তানকে নষ্ট করে দেয়। নষ্ট করতে রাজি না হলে শারীরিক নির্যাতন করে। নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে সন্তান নষ্ট করে ফেলি। এখন আবার আমার পেটের সন্তানকে নষ্ট করার জন্য চাপ দেয়। আমি রাজি না হওয়াতে আমাকে সৎ ছেলে শাহীন ও স্বামী কামরুজ্জামান মারধর করেছে। তিনি আরও জানান, বিয়ের সময় আমার বাবা তার জামাতাকে ফুচকা ব্যবসার জন্য ২০ হাজার টাকা যৌতুক দিয়েছে। আমার বাবার মৃত্যুর পরে বাবার রেখে যাওয়া জমি বিক্রি করে ৫০ হাজার টাকা এনে দিয়েছি। আমার সবকিছু শেষ করে দিয়েছে। আমি এ ঘটনার বিচার চাই। আহত আকলিমার স্বামী কামরুজ্জামান মোল্লা সন্তান নষ্ট করার চেষ্টার কথা অস্বীকার করে জানান, কথা কাটাকাটির এক পর্যায় ছেলে ওর মাকে কয়েকটি কিল-ঘুষি মেরেছে মাত্র।

আমতলী থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ রেজাউল করিম বাদল বলেন, খবর পেয়ে রাতে হাসপাতালে পুলিশ পাঠিয়েছি। অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৬
ফজর৪:৩৪
যোহর১১:৫১
আসর৪:১১
মাগরিব৫:৫৪
এশা৭:০৭
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৪৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৪৬৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.