নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৩০ ভাদ্র ১৪২৫, ৩ মহররম ১৪৪০
শিশুশ্রম বন্ধে আইন প্রণয়নের প্রক্রিয়া চলছে : শ্রম প্রতিমন্ত্রী
স্টাফ রিপোর্টার
শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, দেশে ১২ লাখ শিশু শিশুশ্রমের সাথে জড়িত। সরকার শিশুশ্রম বন্ধে বদ্ধপরিকর। নীতিমালা হয়েছে। শিশুশ্রম বন্ধে আইন করার প্রক্রিয়াও চলছে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে শিশুশ্রম নিরসন করা হবে। এজন্য প্রয়োজনে মেগা প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফা?রেন্স লাউঞ্জে আয়োজিত গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণ নীতি, ২০১৫-এর আলোকে শিশু গৃহকর্মীর

সুরক্ষা ও কল্যাণে করণীয় শীর্ষক এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের আয়োজনে ও শাপলা নীড়ের সহযোগিতায় এ মতবিনিময় সভার আয়োজন করা হয়।

মুজিবুল হক বলেন, ৪৭ বছর আগে পাকিস্তান আমলে ছিল প্রচ- খাদ্য ও বস্ত্রের অভাব। একবেলা খাবারের জন্য মানুষ সারাদিন কাজ করতো। লেংটি পরা ছিল সামাজিক আচার। কিন্তু সময় বদলে গেছে। এখন বাংলাদেশ খাদ্য ও বস্ত্রে স্বয়ংসম্পূর্ণ।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, গৃহকর্মী নির্যাতন কারা করে? সেই বিবি সাহেবা কিংবা সাহেবরা কি সাইকো? মানসিকভাবে অসুস্থ? আসলে তা নয়, তারা সুস্থ মানসিকতা নিয়েই গৃহের শিশুকর্মীকে নির্যাতন করছেন। মাতৃস্নেহে নিজের সন্তানদের লালন পালনকারী মায়েরাই বেশি নির্যাতন করেন শিশু গৃহকর্মীদের। আবার গৃহকর্মীর সঙ্গে খারাপ ব্যবহার, যৌন নির্যাতনের মতো অপরাধ করবে সাহেব, আর সেই গৃহকর্মীর ওপর বিবিসাহেবা ও তার সন্তানেরা নির্যাতন করবে। শত শত কেস স্টাডিতে তাই দেখেছি। মানসিকতা যদি না বদলায় তবে এই সমস্যার সমাধান হবে না।

তিনি আরও বলেন, অনেকেই মানবাধিকারের কথা বলে মুখে ফেনা তোলেন, তাদের উদ্দেশে বলছি, মানবাধিকারের দাবিতে সেস্নাগানবাজি না করে আগে নিজের ঘর ঠিক করুন, নিজের গৃহের শিশুকর্মীটির সঙ্গে মানবিক হোন। আমাদের দেশে আইন আছে, নীতিমালা আছে। কিন্তু সবাই তা মানি না। আবার অনেকে আইন ও নীতিমালা সম্পর্কে জানিই না। স্বার্থে ব্যাঘাত ঘটলে সবাই বিরোধিতা করি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, দেশ থেকে একেবারে শতভাগ শিশুশ্রম বন্ধ করা সম্ভব নয়। আবার উচিতও হবে না। কেন না সকল শিশুশ্রমকে আপনি শিশুশ্রম বলতে পারেন না। একটা শিশু তার কাঠমিস্ত্রি বাবাকে যখন সহযোগিতা করছে তখন তাকে শিশু শ্রমিক বলতে পারেন না। কারণ ঐ শিশুটির অনেক দক্ষতা সেখান থেকে উন্নতি ঘটছে।

বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা হক মিনুর সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি শফিকুর রহমান, শাপলা নীড়ের নীলা শামসুন্নাহার। দৈনিক যুগান্তরের সাংবাদিক রিতা ভৌমিক মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। আলোচনা সভায় নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের আয়োজনে ও শাপলা নীড়ের পক্ষ থেকে শিশুশ্রম ও গৃহকর্মী নির্যাতন বন্ধে ১৭টি সুপারিশ তুলে ধরা হয়।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৬
ফজর৪:৩৪
যোহর১১:৫১
আসর৪:১১
মাগরিব৫:৫৪
এশা৭:০৭
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৪৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৪৪৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.