নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার, ৯ অক্টোবর ২০১৯, ২৪ আশ্বিন ১৪২৬, ৯ সফর ১৪৪১
ইলিশের প্রজনন মৌসুম পাল্টালেও পাল্টায়নি শিকারে নিষেধাজ্ঞার সময়
আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি
ইলিশ প্রজনন মৌসুম উপলক্ষে ৯ অক্টোবর মধ্যরাত থেকে থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত ২২ দিন ইলিশ শিকারের উপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার। কিন্তু গত মাসে সাগরে প্রচুর মা ইলিশ ধরা পড়েছে। এসব ইলিশ ডিম ছাড়ার জন্য উপকূলের নদ-নদীতে আসছিল। আর বর্তমানে যে ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়ছে তা জাটকা। এ কারণে প্রজনন বিশেষজ্ঞ ও অভিজ্ঞ জেলেদের অভিমত, প্রজনন মৌসুম পাল্টে গেছে। কিন্তু সরকারের নিষেধাজ্ঞার সময় পাল্টায়নি।

মা ইলিশ প্রজননের উদ্দেশ্যে স্বাদুপানি ও স্রোতের উজানে অগভীর পানিতে উঠে আসে এবং ডিম ছাড়ে। মুক্ত ভাসমান ডিম থেকে বাচ্চা ফুটে। অপ্রাপ্তবয়স্ক মাছ (জাটকা) নদীর ভাটিতে নেমে সমুদ্রে পৌঁছে বড় হয়। প্রাপ্তবয়স্ক ও প্রজননক্ষম হয়ে জীবনচক্র পূর্ণ করার জন্য আবার নদীতে ফিরে আসে। ইলিশ উচ্চ-উৎপাদনশীল। বড় আকারের একটি ইলিশ ২০ লাখ পর্যন্ত ডিম ছাড়তে পারে। ইলিশ সারা বছর ডিম ছাড়লেও সবচেয়ে কম ছাড়ে ফেব্রুয়ারি-মার্চে ও সবচেয়ে বেশি সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে।

বিষেশজ্ঞদের মতে, প্রজনন ঋতু নির্ধারণের ক্ষেত্রে অবলম্বন করা হয় স্ত্রী মাছের জিএসআই পরিমাপ পদ্ধতি। জিএসআই হলো মাছের ডিমের ওজন ও দেহের ওজনের অনুপাতের শতকরা হার। সাধারণত প্রজনন ঋতুতে ডিমের আকার বড় হতে থাকে বলে জিএসআই বাড়তে থাকে এবং ভরা প্রজনন মৌসুমে গিয়ে তা সর্বোচ্চ হয়। প্রজনন ঋতুতে পূর্ণিমা ও অমাবস্যার সময়ে বিগত পাঁচ বছরের জিএসআইর পরিমাপ থেকে দেখা গেছে, বাংলাদেশে ইলিশ সাধারণত সেপ্টেম্বর মাসের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে অক্টোবরের শেষ পর্যন্ত প্রজনন করে। সেপ্টেম্বরের শেষ ভাগে জিএসআই ১০-১১ থেকে বাড়তে বাড়তে অক্টোবরের মাঝামাঝি কিংবা শেষের দিকে এসে সর্বোচ্চ ১৫-১৭ পর্যন্ত পৌঁছায় এবং নভেম্বরে এসে তা হঠাৎ করে কমে যায়। ১৫-১৭ জিএসআই ইলিশের ভরা প্রজনন মৌসুম নির্দেশ করে। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বছর প্রজনন মৌসুম শুরু হবে অক্টোবরের প্রথম দিকে। এজন্য শিকারে নিষেধাজ্ঞা হওয়া উচিত ছিলো সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে।

সরকারিভাবে চন্দ্র মাসের ভিত্তিতে প্রধান প্রজনন মৌসুম ধরে এ বছর আশ্বিন মাসের প্রথম চাঁদের পূর্ণিমার দিন এবং এর আগে চার ও পরের ১৭ দিনসহ মোট ২২ দিন ইলিশ ধরা বন্ধ থাকবে। সেই হিসেবে ইলিশের প্রজনন মৌসুম গতকাল মধ্যরাত থেকে (৯ অক্টোবর) শুরু।

অনেক অভিজ্ঞ জেলেদের মতে, ইলিশ প্রজনন মৌসুম মূলত শুরু হয়েছে সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহ থেকে শুরু করে অক্টোম্বর মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত। এই সময়ে মা ইলিশ ডিম ছাড়ার জন্য উপকূলের নদ-নদীতে আসে। কিন্তু পুরো সেপ্টেম্বর জুড়ে সাগরে মা ইলিশ ধরা পড়েছে। ওই ইলিশগুলোই ডিম ছাড়ার জন্য স্বাধু পানির নদ-নদীতে প্রবেশ করার উপযুক্ত সময় ছিল সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে। কিন্তু সরকার প্রজনন মৌসুমের মাঝামাঝি সময়ে এসে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে।

পায়রা নদীতে মাছ শিকারি জেলে রহমান গাজী, আলম তালুকদার ও আবদুল হক মৃধা বলেন, গত ১৫ দিন পূর্ব থেকে নদীতে প্রচুর মা ইলিশ ধরা পরেছে। গত এক সপ্তাহ ধরে নদীতে জাটকা ইলিশ ধরা পড়েছে। বর্তমানে প্রজনন মৌসুম হলেও প্রজননক্ষম তেমন বড় ইলিশ জেলেদের জালে ধরা পড়ছে না। তারা আরও বলেন, ধারণা করা হচ্ছে সেপ্টেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে প্রজননের উপযুক্ত সময় ছিল।

আমতলী উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুল আলম বলেন, ইলিশ সারা বছরই ডিম ছাড়ে। কিন্তু সবচেয়ে বেশি ডিম ছাড়ে আশ্বিনের বড় পূর্ণিমা ও অমাবশ্যায়। তাই উপযুক্ত সময়েই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে সরকার।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট চাঁদপুর মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রধান ইলিশ গবেষক ড. মোঃ আনিসুর রহমান বলেন, আশ্বিন মাসের বড় পূর্ণিমায় মা ইলিশ সবচেয়ে বেশি ও পরিপক্ক ডিম ছাড়ে। ওই বড় পূর্ণিমার দিন পরেছে ১৩ অক্টোবর। আবার একই মাসের অমাবশ্যায় বেশি ও পরিপক্ক ডিম ছাড়ে। ওই অমাবশ্যার দিন পরেছে ২৮ অক্টোবর। বড় পূর্ণিমা ও অমাবশ্যার তারিখ ঠিক রেখে সরকার ৯ অক্টোবর থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত মা ইলিশ ডিম ছাড়ার সময় নির্ধারণ করেছে। সেই হিসেবে ২২ দিন মাছ ধরা নিষিদ্ধ। তিনি জেলের অভিমতকে স্বীকার করে বলেন, সেপ্টেম্বর মাসে মা ইলিশ পরিমাণে কম ডিম ছাড়ে। কিন্তু অক্টোবর মাসে বেশি ডিম ছাড়ে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২৩
ফজর৪:৫৯
যোহর১১:৪৫
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৮সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৩৬৮৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.