নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রোববার ১৮ অক্টোবর ২০২০, ২ কার্তিক ১৪২৭, ৩০ সফর ১৪৪২
ইলিশের প্রজনন মৌসুম
মেঘনায় ২২ দিন মাছ ধরা বিক্রি নিষিদ্ধ
লক্ষ্মীপুর থেকে গাজী গিয়াস উদ্দিন
প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষায় লক্ষ্মীপুরে মেঘনায় ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ঠা নভেম্বর পর্যন্ত ২২ ইলিশসহ সকল ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে জেলা মৎস্য বিভাগ। এই ২২ দিন লক্ষ্মীপুরের রামগতি থেকে চাঁদপুরের ষাটনাল এলাকা পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত মেঘনা নদীতে মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এসময় সব রকমের ইলিশ সংরক্ষন, আহরণ, পরিবহণ, বাজারজাত করন ও মজুদকরন নিষিদ্ধ রয়েছে। এ সময়ে জেলেরা বেকার হয়ে পড়েছে ৫২ হাজার জেলে। এ সময়ে সরকারি সহায়তা বাড়ানোসহ মোবাইলের মাধ্যমে নগদ প্রদানের দাবি জানিয়েছেন জেলেরা। জেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় প্রায় ৫২ হাজার জেলে রয়েছে। এদের মধ্যে ৪৩ হাজার ৪ শত ৭২ জন জেলে নিবন্ধিত রয়েছে।

রামগতির আলেকজান্ডার থেকে চাঁদপুরের ষাটনল এলাকার ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত এদের অধিকাংশই মেঘনা নদীতে মাছ শিকার করে জীবিকা নির্বাহ করে। মা ইলিশ রক্ষায় এ সময় বরফ কলের বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন অন্য কোথাও থেকে বরফ আসতে না দেয়া নদী সংলগ্ন খাল থেকে নৌকা বের হতে না দেয়া, মাছঘাট সংলগ্ন বাজারের নৌকা ও ট্রলারের জ্বালানি তেলের দোকান বন্ধ রাখাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। এ বছরও বিশেষ তদারকি করবে প্রশাসন ও মৎস্য বিভাগ। অন্যান্য বছরের মতো নিষিদ্ধ এ সময়ে সরকারের পক্ষ থেকে জেলেদের ২০ কেজি করে চাল দেয়া হবে। জেলেরা জানান, তারা সরকারি প্রণোদনা সঠিকভাবে প্রকৃত জেলেরা পান না। এ সময়ে বরাদ্দকৃত চাল লুটপাট না করে সঠিক তালিকা তৈরি করে দ্রুত তা বাস্তবায়ন করার দাবি জেলেরা আরো বলেন, প্রকৃত জেলেদের মধ্যে বরাদ্দকৃত ভিজিএফের চাউল বন্টনসহ তাদের জন্য সরকারি সহায়তা আরও বাড়ানোসহ মোবাইলের মাধ্যমে নগদ অর্থের দেয়া হোক।

এ দিকে স্থানীয় জন প্রতিনিধি, ব্যবসায়ী, জেলে ও আড়ৎদাররা জানান, জাটকা সংরক্ষন ও মা ইলিশ রক্ষায় এবং উৎপাদন বাড়াতে সরকার যে নিষোজ্ঞা দিয়েছে সেটা মেনে জেলেরা নদীতে যাবেনা বলে ঘোষণা দিয়েছেন তারা। জেলেদের পূর্নবাসন করার কথা সেটা এখন পর্যন্ত হয়নি। যে পরিমাণ জেলে রয়েছে, সে পরিমাণ সরকারি খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়না বলে অভিযোগ করেন তারা। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মোহাম্মদ বিলাল হোসেন জানান, ইলিশের প্রজনন ক্ষেত্রে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ শিকারে ২২ নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এসময় মাছ শিকার,পরিবহণ,মজুদ ও বাজারজাতকরন অথবা বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। প্রতিদিন নদী মৎস্য বিভাগ, জেলা প্রশাসন ও কোস্টগার্ডের যৌথ অভিযান চলবে। এ আইন অমান্য করলে ১ থেকে ২ বছরের জেল অথবা জরিমানা এবং উভয়দন্ডের বিধান রয়েছে। গত বছরের অভিযান সফল হওয়ায় ইলিশের উৎপাদন কয়েকগুণ বেড়েছে। এবারও অভিযান সফল হলে অধিক পরিমাণ ইলিশ উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে। এরপরও যারা আইন অমান্য করে নদীতে যাবে, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ৩১
ফজর৪:৪৭
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৪
মাগরিব৫:২৪
এশা৬:৩৮
সূর্যোদয় - ৬:০৪সূর্যাস্ত - ০৫:১৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭৫২৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.