নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ৯ নভেম্বর ২০১৮, ২৫ কার্তিক ১৪২৫, ২৯ সফর ১৪৪০
দিনাজপুর-৫ আসন
প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি'র চেয়ে আওয়ামী লীগের বেশি
পার্বতীপুর (দিনাজপুর) থেকে মিজানুর রহমান মিজান
দিনাজপুর জেলার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নির্বাচনী আসন দিনাজপুর-৫ (পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী)। আওয়ামী লীগের শক্ত ঘাঁটি এ আসন। বৃহত্তর রংপুরে জাতীয় পার্টির প্রভাব থাকলেও এখানে তেমন কোনো জনপ্রিয়তা নেই। তবে বিএনপির দাপট আছে আসনটিতে। পার্বতীপুরে বড়পুকুরিয়া কয়লাখনি, কয়লাভিত্তিক তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র, মধ্যপাড়া কঠিন শিলা প্রকল্পের মতো গুরুত্বপূর্ণ বড় প্রতিষ্ঠানের কারণে আলোচনা থাকে পার্বতীপুর-ফুলবাড়ী নাম। এ ছাড়াও উত্তরাঞ্চলের সর্ববৃহৎ চার লাইনের রেলওয়ে জংশন পার্বতীপুর উপজেলা নাম তার। আগামী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গুরুত্বপূর্ণ এ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) পদে প্রার্থী হওয়ার টার্গেট রয়েছে অনেকেরই। এরই মধ্যে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের সম্ভব্য প্রার্থীরা নিজ নিজ দল থেকে মনোনয়ন পাওয়ার আশায় শুরু করেছেন তৎপরতা। এ আসনের সম্ভব্য প্রার্থীদের মধ্যে শক্ত অবস্থানে আছেন আওয়ামী লীগের শক্তিশালী নেতা, বর্তমানে এমপি, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী এড. আলহাজ মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। তার বাড়ি ফুলবাড়ী উপজেলার জামগ্রাম এলাকার এক পল্লীতে। এরই মধ্যে সভা-সমাবেশ করাসহ বিভিন্ন ফেস্টুনের মাধ্যমে সম্ভব্য প্রার্থীদের মধ্যে এগিয়ে আছেন ছয় বারের এই এমপি। কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সরব রয়েছে মাঠে। তবে পরিবারের সদস্যদের অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠায় এমপি ফিজারকে নিয়ে দু'উপজেলার নেতাকর্মীদের মধ্যে বিভাজন সৃষ্টি হয়েছে। আগামী নির্বাচনে এর প্রভাব পড়তে পারে বলেও আশষ্কা করা হচ্ছে। এদিকে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতারাও বসে নেই সভা-সমাবেশ করছেন। ইউনিয়ন পর্যায়ে চলছে তাদের কমিটি গঠনসহ কর্মী সংগ্রহ করার তৎপরতা। তবে এ আসনে সম্ভব্য প্রার্থী হিসেবে এখন পর্যন্ত জামায়াতের কারো নাম শোনা যায়নি। জোট হলে বিএনপির বাঙ্ েভোট পড়বে- এমনটাই মনে করা হচ্ছে। এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে এমপি এড.আলহাজ মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। এ ছাড়াও অন্যরা হলেন- পার্বতীপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মো. সৈয়দুল আলম শান্তু, এপিপি জজকোর্ট দিনাজপুর। তার বাবা সাবেক এমপি ও বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহোচর মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক সাবেক প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা মরহুম এড. খতিবুর রহমান। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপকমিটির সাবেক সহ-সম্পাদক মো. মাহমুদুন্নবী চৌধুরী। পার্বতীপুর পৌরসভার আয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এসএইচ সাজ্জাদ, দিনাজপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া জাকির ও যুবলীগের কেন্দ্রী কমিটির সদস্য মরহুম এম আব্দুর রহিমের নাতি এবং হুইপ ইকবালুর রহমানের ভাগিনা সফেদ আশফাক আকন্দ তুহিন। এরই মধ্যে আর এক নতুন মুখ দেখা যাচ্ছে অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. তোজাম্মেল হক। তিনি আওয়ামী লীগের কোনো পদে না থাকলেও একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করবেন বলে প্রচার প্রচারণা আব্যাহত রেখেছেন। তারা প্রত্যেকেই মনোনয়ন পাওয়ার আশায় আলাদাভাবে সভা-সমাবেশ করছেন।

এদিকে বিএনপির সম্ভব্য প্রার্থীদের মধ্যে শীর্ষে রয়েছেন দিনাজপুর জেলা বিএনপির আহ্বায়ক, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও সাবেক এমপি আলহাজ এ জেড এম রেজওয়ানুল হক। আর এক উদ্য়মান তরুণ নেতা সাবেক জেলা কমিটির সদস্য ও উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকারিয়া বাচ্চু । তিনিও ধানের শীষের জন্য মাঠ পর্যায়ে নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। এ ছাড়া ফুলবাড়ী উপজেলার বাসিন্দা সাবেক এমপি ও এরশাদ সরকার আমলে শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী আলহাজ মুক্তিযোদ্ধা মো. মনসুর আলী সরকারও মনোনয়ন চাইতে পারেন। তবে এ আসনে বিএনপি থেকে আলহাজ মো. এ জেড এম রেজওয়ানুল হক মনোনয়ন পাবেন বলে জোর দিয়ে জানায় দলের কয়েকজন নেতাকর্মী। অন্যদিকে জাতীয় পার্টির (জাপা) মনোনয়ন প্রত্যাশা করছেন পার্বতীপুর উপজেলা সভাপতি কাজী আব্দুল গফুর। তিনিও মনোনয়ন পাওয়ার আশায় দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রেখেছেন। স্থায়ীয় আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা গেছে, এ আসনে মাত্র দুইবার ছাড়া প্রতিটি নির্বাচনেই আওয়ামী লীগর প্রার্থী বিজয়ী হন। জাতীয় পার্থীর প্রার্থী মনসুর আলী সরকার একবার এ আসনে বিজয়ী হন এবং ১৯৯৬ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বর্জনের মধ্যে বিজয়ী হন বিশষ্ট ব্যবসায়ী এজেডএম রেজওয়ানুল হক। এর পর থেকে টানা এ আসন আওয়ামী লীগেরই দখলে রয়েছে। আর এর মূল নেতৃত্বে আছেন মো. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। এ পর্যন্ত তিনি ছয়বার এমপি নির্বাচিত হন। এলাকার তার জনপ্রিয়তা এখন তুঙ্গে। ২০০৯ সালের নির্বাচনে জিতে প্রথম পরিবেশ ও বন প্রতিমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেন। পরে ভূমি প্রতিমন্ত্রী দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ২০১৪ সালের নির্বাচনের জিতে দায়িত্ব নেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের । তবে ফিজারের পরিবারের লোকজনের কারণে সমপ্রতি তার বিরুদ্ধে নাখোশ দলের তৃণমূলের অনেক নেতাকর্মী। মন্ত্রী মোস্তাফিজুরের বিষয়ে ফুলবাড়ী ও দিনাজপুরের একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, অতীতে মন্ত্রী যে সুনাম ছিল, বর্তমানে তা নেই। এ কারণে তার বিকল্প খোঁজার সময় এসেছে বলে মন্তব্য করেন তৃণমূলের কিছু নেতা। তারা বলেছেন, মন্ত্রী গত ৭ বছর নেতাকর্মী-সমর্থকদের চেয়ে নিজেকে ও তার পরিবারকে নিয়েই বেশি ব্যস্ত ছিলেন, যে কারণে তিনি জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে পারেননি। এদিকে এ আসনে জাপার জনসমর্থন না থাকলেও বিএনপি নেতা এ জেড এম রেজওয়ানুল হকের বিপুল জনসমর্থন রয়েছে তৃণমূলের কাছে। ফলে আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রার্থীর মধ্যে চূড়ান্ত প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে বলে মনে করছেন মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা। বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী সাবেক এমপি এ জেড এম রেজওয়ানুল হক বলেন, আন্দোলন সংগ্রামসহ বিএনপির দুর্দিনে দলের সঙ্গেই আছি। জাতীয় স্বার্থে বিএনপি যদি নির্বাচনে যায় তাহলে দলের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনের অংশগ্রহণ করবো। সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের চেয়ে বিএনপির প্রার্থীর অনুকূলেই জনসমর্থন থাকবে বলে দাবি করেন এই পার্বতীপুর উপজেলা বিএনপি'র সভাপতি ও সাবেক এমপি রেজওয়ানুল হক।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৬
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৪সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৭৩৫.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.