নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ৯ নভেম্বর ২০১৮, ২৫ কার্তিক ১৪২৫, ২৯ সফর ১৪৪০
চট্টগ্রামের ৪ থানায় শীর্ষ সন্ত্রাসী অবৈধ অস্ত্রধারীর তালিকা হলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে
পটিয়া (চট্টগ্রাম) থেকে সেলিম চৌধুরী
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সক্রিয় হয়ে উঠেছে পেশাদার এবং উঠতি সন্ত্রাসীরা। রাজনৈতিক দলের নেতাদের ছত্রছায়ায় পুলিশের তালিকাভুক্ত বা এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা ভোটের মাঠ দখলের চেষ্টায় এখন থেকে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এলাকাভিত্তিক শীর্ষ সন্ত্রাসীদের সেল্টারে উঠতি ও মৌসুমী সন্ত্রাসীদেরও আনাগোনা বেড়েছে। তবে সিএমপির তালিকভুক্ত শীর্ষ সন্ত্রাসীরা পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসন আশঙ্কা করছে, নির্বাচনকে সামনে রেখে সীমান্ত পথেও অস্ত্রের চালান আসতে পারে। চট্টগ্রাম জেলার সীমান্ত পথে অস্ত্রের চালান ঠেকাতে নিরাপত্তা জোরদার করেছে প্রশাসন।

সতর্ক অবস্থানে থাকার জন্য বিজিবিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সেই সাথে সীমান্তবর্তী থানাগুলোকেও ব্যাপক আকারে অভিযান ও তল্লাশি চালাতে বলা হয়েছে। নির্বাচনকে ঘিরে তিন পার্বত্য জেলার পাহাড় থেকে যেন অস্ত্রের চালান না আসতে পারে সেই ব্যাপারেও তৎপরতা বৃদ্ধি করেছে পুলিশ প্রশাসন। এবিষয়ে চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারুক সাংবাদিকদের বলেন, আসামি নির্বাচনকে ঘিরে যেন এ অঞ্চলের সীমান্ত দিয়ে সড়ক, সাগরপথ এবং পাহাড়ি পথে অস্ত্রের চালান যেন না আসতে পারে সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বিষয়টি গুরুত্বের সাথে নিয়ে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত বিভাগীয় আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় বিভাগীয় কমিশনার আবদুল মান্নান এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকদের সতর্ক থাকার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এ অঞ্চলের সীমান্ত দিয়ে সড়ক, সাগরপথ এবং পাহাড়ি পথে অস্ত্রের চালান আসতে পারে।

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সন্ত্রাসীরা যেন বেপরোয়া হয়ে উঠতে না পারে সেজন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে জানালেন চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক ইলিয়াস হোসেন তিনি বলেন, আসামি নির্বাচনে যেন কোন সন্ত্রাসী কার্যক্রম না হয় সে বিষয়ে নগরীর প্রতিটি থানায় শীর্ষ সন্ত্রাসী, অবৈধ অস্ত্র ব্যবহারকারী ও বিক্রেতাদের তালিকা তৈরি করে তাদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনা হবে এবং সন্ত্রাসীরা যেই দলের হোক না কেন তাদের ছাড় দেওয়া হবে না।

নির্দেশনা মোতাবেক অবৈধ অস্ত্রের ঝন ঝনানি ও নির্বাচনে নাশকতারোধে অবৈধ অস্ত্রধারী ও চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের ভিন্ন ভিন্ন তালিকা তৈরি করেছে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই নগরীর থানাগুলো তালিকা হালনাগাদ করে সিএমপি সদর দপ্তরে জমা দেয়। এর মধ্যে নগরীর চারটি থানায় একাধিক অস্ত্র মামলা ও শীর্ষ সন্ত্রাসী হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে ৭৭ জন। এদের মধ্যে ডবলমুরিং থানায় ৩৪ জন, হালিশহর থানায় ১৬ জন, আকবরশাহ থানায় ১০ জন এবং নগরীর পাহাড়তলী থানায় ১৭ জন শীর্ষ সন্ত্রাসীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

ডবলমুরিং থানা সূত্রে জানা যায়, সিএমপি কমিশনার এর নির্দেশনায় চলতি বছরের অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের তালিকা হালনাগাদ করা হয়েছে। তালিকায় ৩৪ জনের নাম রয়েছে যারা একাধিক অস্ত্র ও সন্ত্রাসী মামলার আসামি। এরমধ্যে এক নম্বরে রয়েছে পাঁচ মামলার আসামি নেছার আহমেদ প্রকাশ নেছার, দশ মামলার আসামি বেলাল হোসেন সেলিম (৩৮), দুই মামলার আসামি জাহিদুল আলম প্রকাশ লক্ষী (৩৪), নয় মামলার আসামি আলমগীর প্রকাশ ছোট আলমগীর (৩৪), চৌদ্দ মামলার আসামি সাইফুল ইসলাম প্রকাশ হাতকাটা সাইফুল (৩৪), চার মামলার আসামি ইকবাল হোসেন প্রকাশ সুমন (৩৪), সাত মামলার আসামি মো. ছগির হোসেন প্রকাশ ছগির (৩৩), এগারো মামলার আসামি মো. জসিম (২৯), তিন মামলার আসামি শহীদুল আলম মিন্টু প্রকাশ বেস্নক মিন্টু, তিন মামলার আসামি মো. মহসিন, চার মামলার আসামি এইচ এম সোহেল, তিন মামলার আসামি সাদ্দাম, দুই মামলার আসামি ইমন, তিন মামলার আসামি খলিলুর রহমান বাপ্পি, দুই মামলার আসামি জিয়া, তিন মামলার আসামি মো. নুরুল আবছার প্রকাশ কালা আবছার, আট মামলার আসামি মো. গুলজার, দুই মামলার আসামি মো. বজল, দুই মামলার আসামি জামাই রিপন, দুই মামলার আসামি সুমন, এক মামলার আসামি মো. রাজু, পাঁচ মামলার আসামি জসিম উদ্দিন রাজু, এক মামলার আসামি ছগির প্রকাশ গরু ছগির, এক মামলার আসামি মো. সোহেল প্রকাল লক্ষীর ছেলে সোহেল, এক মামলার আসামি মহিউদ্দিন, দুই মামলার আসামি আলমগীর হোসেন আলো প্রকাশ পিচ্ছি আলো, চার মামলার আসামি সুমন প্রকাশ দাঁতলা সুমন, তিন মামলার আসামি মো. সাদ্দাম, তিন মামলার আসামি মো. সাইফুল ইসলাম, এগারো মামলার আসামি ইমতিয়াজ খান প্রকাশ রনি প্রকাশ মাইকেল রনি, পাঁচ মামলার আসামি জালাল আহমেদ ফক্রু রানা, দুই মামলার আসামি বাবুল প্রকাশ ভাঙ্গা বাবুল, তিন মামলার আসামি আলাউদ্দিন আলো ও তিন মামলার আসামি জাহেদ প্রকাশ জুয়াড়ী জাহেদ।

হালিশহর থানা সূত্রে জানা যায়, সিএমপি কমিশনারের নির্দেশে থানা পুলিশ ১৬ জন শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকা তৈরি করেছে। হালিশহর থানার শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় রয়েছে পাঁচ মামলার আসামি মো. মাসুদ প্রকাশ মোটা মাসুদ, পাঁচ মামলার আসামি পিচ্ছি মাসুদ, চার মামলার আসামি শাহাদাত হোসেন, চার মামলার আসামি দিদারুল আলম, চার মামলার আসামি মো. মনির, ছয় মামলার আসামি মো. সোহেল, চার মামলার আসামি গোলাম শরীফ লালু, এক মামলার আসামি মো. কোরবান আলী, চার মামলার আসামি আবদুল মান্নান, একাধিক মামলার আসামি আবু সালেক রুবেল প্রকাশ কাকু রুবেল, মো. খোকন, তরিকুল ইসলাম জীবন, আরমান, এস্কান্দার, সাইফুল আসলাম প্রকাশ কালা সাইফুল ও মাইদুল টিপু।

আকবরশাহ থানা সূত্রে জানা যায়, শীর্ষ সন্ত্রাসীর তালিকায় ১০ জনের নাম রয়েছে। যারা আসামি সংসদ নির্বাচনে নাশকতা সৃষ্টি করতে পারে। এমন আশংকা থেকেই থানা পুলিশের তালিকায় রয়েছে ছয় মামলার আসামি শীর্ষ সন্ত্রাসী নুরে আলম প্রকাশ নুরু, চার মামলার আসামি সালাউদ্দিন চান্নু, দশ মামলার আসামি জানে আলম, দুই মামলার আসামি কাউসার প্রকাশ পিচ্ছি কাউসার, তিন মামলার আসামি রাজন প্রকাশ পুলিশ রাজন, তিন মামলার আসামি মো. সোহেল, দশ মামলার আসামি মো. এরশাদ হোসেন এরশাদ, দুই মামলার আসামি আলী আক্কাস, এগারো মামলার আসামি সফিকুল ইসলাম প্রকাশ মামুন ও পুলিশের সোর্স হিসেবে পরিচিত দশ মামলার আসামি আলাউদ্দিন প্রকাশ চট্টপট্টি আলাউদ্দিন। পুলিশের সোর্স হওযায় থানার নাকের ডগায় ঘুরে বেড়ায় বলে বিভিন্ন জনের অভিযোগ রয়েছে আলাউদ্দিনের বিরুদ্ধে। পাহাড়তলী থানার তালিকা ১৭ জন শীর্ষ সন্ত্রাসীর নাম অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যারা অতীতে সন্ত্রাসী কর্মকা-ে জড়িত ছিলো।

শীর্ষ সন্ত্রাসীদের তালিকায় রয়েছে ১০ মামলার আসামি সুজন মলি্লক, ১৩ মামলার আসামি রহমত উল্যাহ ডন, আট মামলার আসামি মো. সোহেল, ৫ মামলার আসামি মো. ইয়াসিন, ৯ মামলার আসামি কুতুবউদ্দিন, ৪ মামলার আসামি মো. আশরাফ, ৪ মামলার আসামি মো. শাহজাহান, ৬ মামলার আসামি মো. এরশাদ, ২ মামলার আসামি কামরুল হাসান রানা প্রকাশ কুত্তা রানা, ৩ মামলার আসামি মো. মাসুদ, ৬ মামলার আসামি মো. আলী, ৩ মামলার আসামি মো. রায়হান প্রকাশ ছোট রায়হান, ৬ মামলার আসামি কায়েস উদ্দিন অপু, ৪ মামলার আসামি রায়হান প্রকাশ গরু রায়হান ও ৫ মামলার আসামি মো. রাসেল।

নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন থানা পুলিশের তালিকাভুক্ত এসব সন্ত্রাসীদের অধিকাংশই পলাতক রয়েছে। তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসীদের অনেকে পুলিশের সোর্স হিসেবেও কাজ করছে। অনেকে আবার রাজনৈতিক প্রভাবশালী নেতাদের ছত্রছায়ায় প্রকাশ্য দিবালোকে ঘুরে বেড়াচ্ছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৬
ফজর৪:৫৬
যোহর১১:৪৪
আসর৩:৩৭
মাগরিব৫:১৬
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:১৪সূর্যাস্ত - ০৫:১১
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৭৩৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.