নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার ১৫ নভেম্বর ২০১৭, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৫ সফর ১৪৩৯
বরিশাল নগরীর বেশিরভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয় চলছে দফতরি ও নৈশ্যপ্রহরীবিহীন
বরিশাল প্রতিনিধি
বরিশাল নগরীর বেশিরভাগ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় চলছে দফতরিবিহীন। ফলে যা হওয়ার তাই হচ্ছে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সৃষ্ট ময়লা আবর্জনায় পরিপূর্ণ থাকে বেশির ভাগ শিক্ষালয়। কিছু কিছু বিদ্যালয় আবার শিক্ষকরা নিজ অর্থায়নে দফতরির বিকল্প বুয়া রেখে বিদ্যালয় পরিচ্ছন্ন রাখার চেষ্টা করছে। যার ফলে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা রয়েছে স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে। দীর্ঘদিন এই অচলা অবস্থা চললে কর্তৃপক্ষ রয়েছে নীরব দর্শকের ভূমিকায়। এ ব্যাপারে নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক একজন প্রধান শিক্ষক জানান, অনেক বিদ্যালয়ই দফতরি-কাম নৈশ্যপ্রহরী নিয়োগ নেই কিংবা দফতরি অবসরে গেছে। সেসব বিদ্যালয় নতুন করে দফতরি নিয়োগ না দেয়ায় বিদ্যালয় পরিচ্ছন্ন রাখার দায়িত্ব পড়ছে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের ঘাড়ে।

তারা নিজ অর্থায়নে বুয়া রেখে বিকল্প হিসাবে দফতরির কাজ সম্পাদন করছে। তথ্য সূত্রে জানা গেছে, কিছু দিন আগে দফতরি-কাম নৈশ্যপ্রহরী পদে নিয়োগ শুরু হলেও নিয়োগ জটিলতায় মামলার কারণে বর্তমানে তা স্থগিত রয়েছে

যোগাযোগ করলে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার রফিকুল ইসলাম জানান, সদর উপজেলায় ২০২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। তার মধ্যে পুরনো সরকারি প্রা. বিদ্যালয় ১৩৩টি বিদ্যালয় বাকি সব নব সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ১৩৩টি পদে পর্যায়ক্রমে সরকার কর্তৃক নিয়োগ হবে। এর মধ্যে বরিশাল সদরে ২৯টি বিদ্যালয় সরকার কর্তৃক আগেই এমএলএস পদে নিয়োগ ছিল। তারা বেশিরভাগ অবসরে গিয়ে এখন ৪/৫ জন কর্মরত আছে। বাকি পদগুলো শূন্য রয়েছে।

বরিশাল সদরে ২৯টি বিদ্যালয় সরকার কর্তৃক নিয়োগ হবে যা আমাদের বাইরে। আমরা ৪৫টি বিদ্যালয় নিয়োগ সার্কুলার দিয়েছি যা প্রসেসিং চলছে। সিটির মধ্যে রয়েছে ৮৪টি বিদ্যালয়।

তার মধ্যে ৩১টি বিদ্যালয় পিয়ন দেয়ার পরে মামলা হয়। যদি ও মামলার রায় হয়েছে। ফলে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে আশা করি এই সমস্যার সমাধান হবে। এদিকে দফতরি নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারি নিতিমালা অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের এলাকার ছেলেরা ঐ পদে নিয়োগ পাবে বলে উল্লেখ থাকলে ও প্রভাবশালীরা জোর করে সনদ নিয়ে অন্য এলাকার ছেলেদের এনে অর্থ বাণিজ্য করে বিভিন্ন বিদ্যালয় নিয়োগ দেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। বরিশাল প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরে উপ-পরিচালক এস এম ফারুক বলেন, বরিশাল শহরে প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে অনেক আগে থেকেই রাজস্ব খাতে পিয়ন নিয়োগ ছিল আর বাইরে আউট সোর্সিং-এর মাধ্যমে দফতরি নিয়োগ দেয়া হতো। সদরে গত ১০ বছর যাবৎ পিয়ন নিয়োগ বন্ধ রয়েছে। যার ফলে পদগুলো শূন্য হয়ে গেছে। আশা করি শীঘ্রই শূন্য পদে দফতরি-কাম নৈশ্যপ্রহরী নিয়োগ হয়ে যাবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ২৫
ফজর৫:০১
যোহর১১:৪৬
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩০
সূর্যোদয় - ৬:২০সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৭১২.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.