নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, রোববার ২২ নভেম্বর ২০২০, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ৬ রবিউস সানি ১৪৪২
ত্যাগীদের মূল্যায়ন করবে আওয়ামী লীগ
স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বঞ্চিত ও মাঠের পরীক্ষিত নেতাদের মূল্যায়নের পরিকল্পনা
সফিকুল ইসলাম
স্থানীয় সরকার নির্বাচনে যোগ্য ও মাঠের ত্যাগী-পরীক্ষিত নেতাদের মূল্যায়নের পরিকল্পনা করছে সরকারি দল আওয়ামী লীগ। তবে এবারের নির্বাচনে বঞ্চিতদের মূল্যায়নের পাশাপাশি সুবিধাবাদীদের বাদ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দলের হাইকমান্ড। তৃণমূল থেকে প্রার্থী নির্বাচন করে পাঠানো নামের মধ্য থেকেই চূড়ান্ত প্রার্থী বাছাই করবে স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ড। আগামী ডিসেম্বর থেকেই শুরু হচ্ছে পৌরসভাসহ স্থানীয় সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ের নির্বাচন। ইতোমধ্যে পালা করে মনোনয়ন ফরমও বিক্রি করেছে ক্ষমতাসীন দল। দলের প্রতি ত্যাগ ছাড়াও প্রার্থী বাছাইয়ে করোনায় ত্রাণ বা অনিয়মের বিষয়টিও এবার মাথায় রাখা হচ্ছে। আওয়ামী লীগের একাধিক সূত্রে এমন আভাস পাওয়া গেছে। দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দীর্ঘদিনের পরীক্ষিত ত্যাগী এবং দুঃসময়ে আওয়ামী লীগের জন্য যারা হাল ধরেছেন, এবার মনোনয়নে তারাই প্রাধান্য পাবেন। দলের ভিতর উড়ে এসে জুড়ে বসা, হাইব্রিড ও দলের নাম ভাঙিয়ে যারা গত ১২ বছরে টাকার মালিক হয়েছেন তাদের মনোনয়ন দেয়া হবে না। এ ব্যাপারে দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি গাইডলাইন দিয়েছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের। সর্বশেষ ২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর দলীয় প্রতীকে ২৩৪ পৌরসভার ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এরই মধ্যে আওয়ামী লীগও ভিতরে ভিতরে প্রার্থী বাছাইয়ের কাজ শুরু করেছে। পৌরসভাসহ অন্য স্থানীয় সরকার নির্বাচনে সরকারি দলের মনোনয়নের জন্য এখনই শুরু হয়েছে লবিং-তদবির। এলাকায় পোস্টার, ব্যানার, ফেস্টুন সাঁটিয়েছেন। করে চলেছেন গণসংযোগ। কেউ কেউ নিজ এলাকার কর্মী-সমর্থক কিংবা জনগণের কাছে যাওয়া বাদ দিয়ে কেন্দ্রীয় নেতাদের কাছেও ধরনা দেয়া শুরু করেছেন। বিভিন্নভাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতাদের মন জয় করে নৌকা পেতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন।

সরকারি দলের একাধিক সূত্র জানায়, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা এখন খুঁজে খুঁজে ত্যাগীদের মূল্যায়ন করছেন। হাইব্রিডদের দাপটে যেসব ত্যাগী ও নিবেদিত নেতাকর্মী নিজেদের গুটিয়ে নিয়েছেন তাদেরই খুঁজে মূল্যায়ন শুরু করেছেন তিনি। চলতি বছরে কয়েকটি উপনির্বাচন এবং সর্বশেষ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে প্রশাসক নিয়োগে এমন নজির স্থাপন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আসন্ন পৌরসভা নির্বাচনেও এমন পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন তিনি। স্থানীয় সরকারের যে কোনো নির্বাচনে প্রার্থী চূড়ান্তকরণে তৃণমূলকে দায়িত্ব দেয়া হয়। তারা ভোট কিংবা সমঝোতার মাধ্যমে তিনজনের নাম কেন্দ্রে পাঠান। সেখান থেকে যাচাই-বাছাই করে প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়। কিন্তু বিগত সময়ে প্রার্থী চূড়ান্তকরণে তৃণমূলে বিশেষ করে জেলা-উপজেলা নেতাদের পক্ষপাতিত্ব, এমপি-মন্ত্রীদের প্রভাব বিস্তারের অভিযোগ পাওয়া গেছে। আবার দলের ভিতরে গণতান্ত্রিক চর্চার নামে ভোট 'কেনাবেচা'ও অভিযোগও আছে। এতে ভোট কেনাবেচায় ত্যাগী পরীক্ষিত নেতারা হাইব্রিড ও টাকার মালিকদের কাছে হেরে যান। এবার এখানে ব্যতিক্রমী সিদ্ধান্ত আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন দলীয় প্রধান। দলের পুরনো, ত্যাগী ও পরীক্ষিত প্রায় সব নেতাকেই ব্যক্তিগতভাবে চেনেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। এবার স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তাদের কপাল খুলতে পারে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত, ত্যাগী পরীক্ষিত নেতাদেরই আগামী স্থানীয় সরকার নির্বাচনে মূল্যায়ন করা হবে। যারা ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত ছিলেন, কিছুই পাননি কিন্তু জনগণের মধ্যে গ্রহণযোগ্যতা আছে এমন নেতাকেই বেছে নেয়া হবে। তিনি বলেন, ইতোমধ্যে কয়েকটি উপনির্বাচনেও পরীক্ষিত ও ত্যাগীদের মূল্যায়ন করা হয়েছে। দলীয় সভানেত্রী এখন ত্যাগীদের খুঁজে খুঁজে বের করছেন। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, জাতীয় সংসদের শূন্য আসনের উপ-নির্বাচনের মনোনয়নের ব্যাপারে পরিবারের অবদানের চেয়ে দলের নেতাকর্মীদের অবদান প্রাধান্য দেয়া হবে। আগামী নির্বাচনগুলোতেও বার্তা দেয়া হয়েছে যারা দলের জন্য দীর্ঘদিন ত্যাগ-তিতিক্ষা করেছেন তাদেরই মনোনয়ন দেয়া হবে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেন, বিএনপি তাদের প্রার্থী খুঁজে পাচ্ছে না এটাই তাদের বড় ব্যর্থতা। তারা ঢাক-ঢোল পিটিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে কিন্তু নির্বাচন যত ঘনিয়ে আসে তাদের প্রার্থীকে আর মাঠে পাওয়া যায় না। গেলো উপজেলা নির্বাচনে তৃণমূলের তালিকা ধরে মনোনয়ন বিতরণ শুরু করেছিল। কিন্তু এতে তৃণমূলের কোন্দল প্রকাশ্য হওয়ায় সে সিদ্ধান্ত থেকে সরে সবার জন্য ফরম সংগ্রহ উন্মুক্ত করা হয়।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, আমরা আশা করছি দলীয় প্রতীকেই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমাদের গঠনতন্ত্রে সিদ্ধান্ত আছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ মিটিং করে তাদের প্রার্থী নির্ধারণ করবে। সেই প্রার্থীদের উপজেলা কমিটির মাধ্যমে জেলা এবং কেন্দ্রীয় কমিটিতে জমা দিবে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১
ফজর৫:০৪
যোহর১১:৪৮
আসর৩:৩৫
মাগরিব৫:১৪
এশা৬:৩১
সূর্যোদয় - ৬:২৪সূর্যাস্ত - ০৫:০৯
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৭০১২.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.