নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২
প্রাণঘাতী ডেঙ্গু রোগের কার্যকর ওষুধ আবিষ্কার করলো বাংলাদেশ
স্টাফ রিপোর্টার
প্রাণঘাতী ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসায় কার্যকর ওষুধ পাওয়ার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশি গবেষকরা। রোগের চরম পর্যায়ে প্ল্যাটিলেটের ভাঙন রোধ করে রক্তক্ষরণ বন্ধের উপায় আবিষ্কারের দাবি করেছেন তারা। এর মাধ্যমে অনেক জীবন রক্ষা করা সম্ভব হবে বলে মনে করছেন গবেষকরা। প্রায় দুই বছরের গবেষণায় মিলেছে 'এ্যালট্রম্বোপ্যাগ' নামে একটি জেনেরিক ওষুধ। যদিও তৃতীয় ট্রায়ালের আগে এখনই একে ব্যবহার না করতে চিকিৎসকদের পরামর্শ দেয়া হয়েছে। প্রতি বছর মে থেকে আগস্ট মাস, কখনো কখনো তারো পরের কয়েক মাসজুড়ে চলে ডেঙ্গুর তা-ব। মরণঘাতী রোগটি কখন কাকে ধরে সে ভয়ে থাকতে হয় কম বেশি সবাইকে। তবে এবার মনে হয় সে অবস্থার অবসান হতে যাচ্ছে। কারণ ডেঙ্গু রোগের চিকিৎসায় কার্যকর ওষুধ পাওয়ার কথা বলছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানীরা। বলছেন 'এ্যালট্রম্বোপ্যাগ' নামে জেনেরিক ওষুধটি এতদিন রক্তের ইমিউথ্রম্বোসাইটোপেনিয়া ক্রনিক লিভার রোগ সারাতে ব্যবহার হতো। একই ওষুধ ডেঙ্গুর ফলে সৃষ্ট রক্তক্ষরণ বন্ধেও কাজ করে যার প্রমাণ তারা পেয়েছেন। গত বছর ডেঙ্গুর ভয়াবহতা বাড়তে থাকলে মৌসুমি স্যানাল নামে এক চিকিৎসক কয়েকজন রোগীকে ওষুধটি দিয়ে সফলতা পান। এটি দেখে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণ রসায়ন ও অনুপ্রাণ বিভাগের অধ্যাপক এ এইচ এম নুরুন নবী ও ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যাপক ডাক্তার আহমেদুল কবিরের নেতৃত্বে ১২ জনের গবেষক দল এর ওপর কাজ শুরু করেন। প্রথম ধাপে সফলতার পর দ্বিতীয় ধাপের ট্রায়ালেও 'এ্যালট্রম্বোপ্যাগে'র কার্যকারিতা পান তারা।

ডিএমসির অধ্যাপক ডা. আহমেদুল কবির বলেন, রোগীদের গ্রুপ-১ এবং গ্রুপ-২ দেয়ার পর খুব আশাবাদী রেজাল্ট পাওয়া যায়। এটি দেয়ার পর রোগী সাত দিনের মধ্যে ভালো হয়ে যাচ্ছে। এটির সাইটএফেক্ট খুব কম। ওষুধের দামও ৩০০ টাকা, তিনটির দাম ৯০০ টাকা পড়বে এর চেয়ে বেশি খরচ হবে না। বাংলাদেশেও বিশ্ব মানের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্ভব বলে মনে করেন গবেষক দলের প্রধান ডক্টর নুরুন নবী। বিশ্বখ্যাত চিকিৎসা সাময়িকী ল্যানসেট-এর জার্নাল 'ই- ক্লিনিক্যাল মেডিসিনে' প্রকাশিত তাদের নিবন্ধটি বিশ্বের অন্যান্য দেশেও সাড়া ফেলবে বলে মনে করেন তিনি। ১০১ জন রোগীর ওপর চালানো পরীক্ষায় তিন শতাংশের ক্ষেত্রে বমি ও চার শতাংশের ডায়রিয়া হলেও বাকিরা ছিলেন পুরোপুরি নিরাপদ। আগামী বছরের শেষে বিস্তৃত পরিসরে তৃতীয় ধাপের ট্রায়ালের পর ওষুধটির বিষয়টি চূড়ান্ত সিদ্ধান্তে আসার কথা জানালেন তারা।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজানুয়ারী - ২৭
ফজর৫:২২
যোহর১২:১২
আসর৪:০৬
মাগরিব৫:৪৫
এশা৭:০০
সূর্যোদয় - ৬:৪১সূর্যাস্ত - ০৫:৪০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১০১১০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.