নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৫ রবিউস সানি ১৪৪১
জনতার মত
ক্ষমতার ব্যবহার হোক দেশ ও জাতির কল্যাণের জন্য
জুবায়ের আহমেদ
বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে রাজনীতি সবসময়ই ক্ষমতার হাতিয়ার হয়ে দাঁড়িয়েছে, সাম্প্রতিক সময়ে যা মহামারি আকার ধারণ করেছে। রাষ্ট্র ক্ষমতায় থাকা দলের ন্যুনতম সাধারণ সদস্য হলেও যেনো অঢেল ক্ষমতা ও অর্থবিত্তের মালিক হওয়া যায়, তারই প্রমাণ মিলছে এখন। স্বয়ং সরকারের দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের মাধ্যমেই তা সুস্পষ্টভাবে প্রমাণিত হয়েছে। সহায় সম্বলহীন অবস্থায় কথিত ক্ষমতার রাজনীতিতে যোগ দেয়া ব্যক্তিরাও আজ কোটি কোটি টাকার মালিক হয়েছে অবৈধভাবে, যারা শুধুমাত্র অবৈধভাবে সম্পদের মালিকই হয়নি বরং ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে নিজেদের স্বার্থ হাসিরের জন্য এমন কোন কাজ নেই যা তাদের দ্বারা হচ্ছে না।

একজন মানুষের কাছে ক্ষমতা আসলে সে ক্ষমতা দুভাবে ব্যবহার করতে পারে, এক. দেশ ও জাতির কল্যাণের জন্য দুই. ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের জন্য। বর্তমানে ক্ষমতা ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের হাতিয়ার হয়ে গেছে, যার কারণে পাশের বাড়ীর একজন ব্যক্তিও যদি ক্ষমতার অধিকারী হয়, তাতেও প্রতিবেশীদের কোন উপকারে আসে না, ক্ষমতাবান ব্যক্তিরা নিজেদের আখের গুছাতেই ব্যস্ত থাকে সর্বদা, যার বহু নজির আমাদের সমাজে বিদ্যমান। সম্প্রতি ঢাকার একজন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের গ্রেফতারে এলাকাবাসীর মিষ্টি বিতরণই বড় উদাহরণ। এলাকাবাসী কতটা অতিষ্ট হলে একজন জননেতা গ্রেফতার হলে ব্যতিত হওয়ার পরিবর্তে মিষ্টি বিতরণ করে, তা সহজেই বোধগম্য। শুধুমাত্র ঢাকার সেই জননেতা নয়, সারা দেশের চিত্র একই। ক্ষমতাবান ব্যক্তিদের ক্ষমতার প্রভাবে জিম্মি সাধারণ নাগরিকরা, যা কাম্য নয়।

সুনাগরিকদের সঠিক কাজের মাধ্যমে যেমন সমাজ, দেশ ও জাতি এগিয়ে যায়। তেমনি জনপ্রতিনিধি কিংবা প্রভাবশালী ব্যক্তিরা যদি মানুষের কল্যাণে নিজেদের ক্ষমতার ব্যবহার করে, তাহলে ক্ষমতা ও সাধারণ নাগরিকদের স্বদইচ্ছা মিলে একটি এলাকা বা অঞ্চল উন্নয়ণ, সম্প্রতি ও ভ্রাতৃত্বের সর্বোৎকৃষ্ট উদাহরণ হয়। শত মন্দের মাঝেও কিছু ভালো উদাহরণ থাকলেও মন্দের সংখ্যাটাই বেশি, যার কারণে মানুষ নিরাপদে কোন কাজই করতে পারে না, কেউ ভালো কাজ করতে গেলেও ক্ষমতাবান ব্যক্তি বা তার আনুগত্যগণ সে কাজে সায় না দিলে, তা সম্পন্ন করা সম্ভব হয় না। উল্টো ভালো কাজ করতে গিয়ে বিপদে পড়তে হয়, যার কারণে মানুষ অন্যের উপকার কিংবা যেকোন ধরনের ভালো কাজ করতে পিছিয়ে যায় এখন।

রাজনীতি কারো পেশা হতে পারে না, একজন প্রতিষ্ঠিত রাজনীতিবিদকেও আয় রোজগারের কোন ব্যবসা কিংবা আয়ের সুনির্দিষ্ট উৎস থাকতে হয়। যে ব্যক্তি যে দলের রাজনীতি করে, সে দল যদি সরকার গঠন করে এবং সে রাজনীতিবিদ যদি সংসদ সদস্য, মন্ত্রী কিংবা সরকারের অধীনে কোন দায়িত্ব প্রাপ্ত হয়, তখন সে দায়িত্ব পালনের বিপরীতে যে অর্থ সে সম্মানী হিসেবে পায়, এর বাহিরে ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে অবৈধ ভাবে আয়ের একটি পয়সাও তার জন্য বৈধ নয়। ক্ষমতায় থাকা দলের ছত্রছায়ায় থেকে অবৈধ ভাবে আয় রোজগার যে সঠিক নয়, তা সর্বশেষবারের মতো প্রমাণ হয়েছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দুর্নীতি বিরোধী অভিযানের মাধ্যমেই।

একজন ক্ষমতাবান ব্যক্তি চাইলেই তার ক্ষমতার ব্যবহারের মাধ্যমে নিজ এলাকার প্রভূত উন্নতি সাধন করতে পারে। যারা ক্ষমতা, মানুষের কল্যাণের জন্য ব্যবহার করেছে, ভোগ বিলাসে মত্ত হয়নি, তারাই যুগ যুগ ধরে মানুষের ভালোবাসা অর্জন করতে সমর্থ হয়েছে, তারাই বেঁচে আছে ও থাকবে মানুষের মনে চিরদিন। বিপরীতে যারা ক্ষমতাকে ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের হাতিয়ার বানিয়েছে, ক্ষমতার অপব্যবহার করে যারা নিরীহ মানুষদের কষ্ট দেয়, মানুষ খুন করে, অপরাধীদের লালন পালন করে, তারা দেশ ও জাতির চোখে ঘৃণিত ব্যক্তি। মানুষ তাদের নাম স্মরণ করে ঘৃণাভরে।

কাজেই রাষ্ট্র ক্ষমতা ব্যক্তি স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে ব্যবহার নয়, ক্ষমতার ব্যবহার হোক দেশ ও জাতির কল্যাণের জন্য। অর্থবিত্ত নয়, ক্ষমতা নয়, মানুষের ভালোবাসা অর্জনই শ্রেষ্ঠ পাওয়া, এ চিরন্তন সত্যটিকে বুকে ধারণ করে ক্ষমতার অপব্যবহার রোধ করে ক্ষমতা মানুষের কল্যাণে ব্যবহার করবে সকল রাজনীতিবিদ ও ক্ষমতাবাদী ব্যক্তিরা, সে প্রত্যাশা।

জুবায়ের আহমেদ : লেখক

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ৯
ফজর৫:০৮
যোহর১১:৫১
আসর৩:৩৬
মাগরিব৫:১৫
এশা৬:৩৩
সূর্যোদয় - ৬:২৯সূর্যাস্ত - ০৫:১০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪০০৪.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.