নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৫ রবিউস সানি ১৪৪১
লক্ষ্মীছড়িতে ভূমি বিরোধে ফায়দা লুটছে দালালরা
খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি
পার্বত্য চট্টগ্রামে ভূমি বিরোধ নতুন কিছু নয়। তারই সূত্র ধরে খাগড়াছড়ির প্রত্যন্ত জনপদ লক্ষ্মীছড়িতে দু'পক্ষের মধ্যে ভূমি বিরোধের সুযোগকে কাজে লাগিয়ে জায়গা ক্রয়-বিক্রয় দালালরা ফায়দা লুটছে। ফলে ভূমি বিরোধ আরো প্রকট আকার ধারণ করছে। ভূমি ক্রয়কে কেন্দ্র করে এমনি একটি ঘটনায় বৃদ্ধা দম্পতির অসহায়ত্বের খোঁজ পাওয়া গেছে লক্ষ্মীছড়ি উপজেলার ময়ুরখীল এলাকায়।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, মকবুল হোসেন নামের এক ব্যক্তির দালাল চক্রের হাত থেকে জায়গা ক্রয় করে প্রতারণার শিকার হয়। অন্যদিকে জায়গার প্রকৃত মালিক সন্তানহীন ময়ুরখীলের বাসিন্দা মো. আবুল বাশার মুন্সি ও মলিনা বৃদ্ধ দম্পতির কিছু জায়গা দখল নিয়ে এখন রয়েছে বিপাকে। তবে তাতে রয়েছে পাল্টাপাল্টি নানা অভিযোগও। এক পক্ষ অপর পক্ষকে দুষলেও কয়েক জন ভূমি দালাল চক্রের কারণে ত্রিমূখী সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে বলে অভিযোগ মকবুল হোসেনের। তবে বৃদ্ধ দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে তার বিরুদ্ধে। বিষয়টি নিয়ে ঐ এলাকার একাধিক ব্যক্তি জানান, মকবুল অত্যাচারের অতিষ্ঠ সন্তানহীন বৃদ্ধ দম্পতি এখন প্রায় নিস্ব। সে সামাজিক ও প্রশাসনিক কোন রায়ের পরও মিথ্যা মামলার ফলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে স্থানীয় এলাকাবাসীও।

১৯৮৩-৮৪ সালের কবুলিতের ৫ একর জায়গায় মো. আবুল বাশার লক্ষ্মীছড়িতে বসবাস শুরু করে। তার মৃত্যুর গুজব ছড়িয়ে দিয়ে প্রথম তালাকপ্রাপ্তা স্ত্রীর কাছ থেকে অল্প টাকায় হাতিয়ে নিতে প্রতারক চক্রের কৌশলে কাগজ করে নেয়। পরে মো. আবুল বাশার মুন্সি জীবিত অবস্থায় তার জায়গা বিক্রয় না করলেও সেখানে ভূমি নিয়ে নানামূখী সমস্যার সৃষ্টি হয়। সে সুযোগকে কাজে লাগিয়ে কয়েকজনের সুবিধাবাদী একটি চক্র (ভূমির ক্রেতা-বিক্রেতা) কৌশলে অসহায়ত্বের সুযোগে মো. আবুল বাশার মুন্সিকে চাপ দিয়ে দলিলে স্বাক্ষর করিয়ে নেয় বলে অভিযোগ আনেন তার স্ত্রী মলিনা বেগম। এ অভিযোগ অস্বীকার করে অভিযুক্ত মকবুল হোসেন বলেন, আমি স্থানীয় রায় ও প্রশাসনিক বৈঠকের রায় মানতে রাজি তবে একটি কুচক্রি মহল যৌথ বিরোধ মিমাংসায় বাধা বলে তিনি উল্লেখ করেন। দখল হওয়া জায়গা উদ্ধারের আকুতি জানিয়ে বিভিন্ন দপ্তরে ঘুরলেও ঐ দম্পতি এখন প্রায় পরাস্থ। ফলে অসহায় ও মানবেতর জীবনযাপন করছে পরিবারটি। মিথ্যা একটি মামলার ফলে পরিবারটি হয়রানির শিকার হচ্ছে বলে সামাজিক ব্যক্তিরা অভিযোগ তুলেন।

নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক জনপ্রতিনিধি জানান, সত্যিকার অর্থেই ভূমির মালিক মো. আবুল বাশার মুন্সি। মকবুল হোসেন নামের অর্থশালী সে ক্ষমতাধর যুবদল নেতা হওয়ায় সন্তানহীন এ দম্পত্তির জায়গা দখল করে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করার অভিযোগ করেন তিনি। এ বিষয়ে মো. আবুল বাশার মুন্সির দখলীয় ভূমি উদ্ধারে এলাকাবাসীর গণস্বাক্ষরিত একটি কাগজ প্রশাসনের দপ্তরে দিলেও তাও যেন এখন পর্যন্ত অকার্যকর।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমে - ২৮
ফজর৩:৪৬
যোহর১১:৫৬
আসর৪:৩৫
মাগরিব৬:৪৩
এশা৮:০৫
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৩৮
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১২৫৯৯.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.