নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৫ রবিউস সানি ১৪৪১
দীপু চাকমা-আমি এখনো ঘোরের মধ্যেই আছি!
এস এ গেমসে তায়কোয়ান্দোতে প্রথম স্বর্ণ পদক জয়
জনতা ডেস্ক
নেপালের কাঠমান্ডু ও পোখারায় চলমান সাউথ এশিয়ান (এস এ) গেমসে তায়কোয়ান্দোর পুরুষ ইভেন্টে বাংলাদেশকে এবারের আসরে প্রথম স্বর্ণপদক এনে দিয়েছেন দীপু চাকমা। নারী কারাতের ব্যক্তিগত কাতা ইভেন্টের পর, পুরুষ ব্যক্তিগত কাতাতেও ব্রোঞ্জ জিতেছে বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। নারীদের দলগত কাতা ইভেন্টেও ব্রোঞ্জ এসেছে বাংলাদেশের ঘরে।

কম্পিটিশন রাউন্ডে বিচারকদের সামনে নৈপুণ্য প্রদর্শন করেন বাংলাদেশের অ্যাথলেটরা। সেখানে পুল এ থেকে দ্বিতীয় হয়ে গোল্ড ফাইট থেকে ছিটকে পড়েন লাল সবুজের প্রতিনিধি হুমায়রা আক্তার অন্তরা শেফা। পুল বি তে তার প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা হলেও লটারি ভাগ্যে এগিয়ে যান তিনি। এর আগে গতকাল সোমবার কারাতের কাতা ইভেন্টে নারী ও পুরুষ এককে বাংলাদেশের হয়ে ব্রোঞ্চ পদক জিতেছেন হুমায়রা আক্তার অন্তরা শেফা এবং হাসান খান সান। ব্রোঞ্চ জেতার পর হুমায়রা আক্তার অন্তরা শেফা বলেন, আনন্দ ভাষায় প্রকাশ করতে পারছি না। কিন্তু আমার পারফরম্যান্স আশানুরূপ হয়নি। ব্রোঞ্চ জয়ী হাসান খান সান বলেন, আমার পারফরম্যান্স আরও ভালো হওয়ার কথা ছিল। খেলার ম্যাট অনেক পিচ্ছিল ছিল, তাই সুবিধা করতে পারিনি। তায়কোয়ান্দো ২৯+ পোমসে ইভেন্টে সোনা জেতেন তিনি। ভারতের প্রতিযোগীকে হারিয়ে আনন্দে ভাসেন রাঙামাটির দীপু! পোডিয়ামে দাঁড়াতেই বেজে ওঠে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত। এবারের গেমসে বাংলাদেশের এটিই প্রথম স্বর্ণপদক!

দীপু চাকমা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে কর্মরত আছেন ২০০৫ সাল থেকে। এই সাফল্যের পর জানাচ্ছিলেন, 'এই অনুভূতি আসলে ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না। সব সময় দেশকে কিছু দিতে চেষ্টা করেছি। এবার স্বপ্ন পূরণ হলো।'

গেমস শুরুর আগে তিনি ইনজুরিতে ছিলেন। কিন্তু তায়কোয়ান্দো ফেডারেশনের শীর্ষ কর্তা মাহমুদুর রহমান রানা তার ওপর ঠিকই আস্থা রাখেন। সেই আস্থারই প্রতিদান দিলেন যেন দীপু চাকমা। চলতি এস এ গেমসে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম স্বর্ণপদক জিতেছেন দীপু। তায়কোয়ান্দোর ফুনসো ইভেন্টে দীপু হারিয়েছেন ভারত ও নেপালের প্রতিযোগিকে। এই ইভেন্টে ছয়টি দেশ অংশ নিয়েছিল। পয়েন্ট পদ্ধতির এই ইভেন্টে দীপু সর্বোচ্চ পয়েন্ট অর্জন করে স্বর্ণ জিতেন। ভারত ও নেপালের প্রতিযোগি এই ইভেন্টে রৌপ্য ও ব্রোঞ্জ জিতেছে। স্বর্ণ জেতার আনন্দময় সময় দীপু তার তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া বলছিলেন-'২০০৫ সাল থেকে সেনাবাহিনীতে কাজ করি। ২০০৬ সালে আমি যখন ব্যাটেলিয়নে ছিলাম তখন পত্রিকায় দেখেছিলাম যে তায়কোয়ান্দোতে সেনাবাহিনীর মিজানুর রহমান স্বর্ণপদক জিতেছেন। আমি তায়কোয়ান্দোর সঙ্গে জড়িত সেই ২০০১ সালে। সেনাবাহিনীর তায়কোয়ান্দো দলে আমি সুযোগ পাই ২০০৮ সালে। সেই তখন থেকেই স্বপ্নের শুরু। আমাকেও একদিন স্বর্ণপদক জিততে হবে! নিজের ভেতর একটা অনুপ্রেরণা ছিল যে বাংলাদেশের পতাকাকে এমন বড় কোন আসরে আমি যেন মেলে ধরতে পারি। উড়াতে পারি। পোডিয়ামে আমি পতাকা নিয়ে থাকবো। আর জাতীয় সঙ্গীত আমার সোনার বাংলা বাজছে-এই অনুভূতিটাই আসলে অন্যরকম কিছু। আজ আমার সেই স্বপ্ন পুরো হয়েছে। আসলে এই অনুভূতি ভাষায় প্রকাশ করা যাবে না। সত্যিকার অর্থেই এই আনন্দ-অনুভূতি তুলনাহীন। মিজান স্যার, রানা স্যার এবং ফেডারেশনের সবাই আমাদের অনেক সহায়তা করেছে। আমাদের প্রেরণা যুগিয়েছে। সবার কাছ থেকে অনুপ্রেরণা পেয়ে দেশকে কিছু দেয়ার একটা চেষ্টা করেছি আমি। সফল হয়েছি। এটাই আমার আনন্দ। আমি এখনো সেই আনন্দের ঘোরেই আছি!' রাঙামাটির জেলার ছেলে দীপু চাকমরাও দুই ভাই। গেমসের শুরুতে তার এই সাফল্য অন্যান্য ইভেন্টেও বাংলাদেশের প্রতিযোগিদের অনুপ্রেরণা যোগাবে বলে বিশ্বাস করেন দীপু-'শুরুতে ভাল ফল হলে পরের ইভেন্টে প্রতিযোগিদের মানসিকতায় সেটা ইতিবাচক একটা প্রভাব ফেলে। আশা করছি আমার এই সাফল্য অন্য ইভেন্টে বাংলাদেশের প্রতিযোগিদের জন্যও একটা বড় প্রেরণা, উদ্দীপনা যোগাবে। আমারও একটা ইভেন্ট আছে। সেখানেও আমি স্বর্ণের জন্যই লড়বো।' এস এ গেমসে তায়কোয়ান্দোতে ২০১০ সালে দুটো স্বর্ণপদক জিতে বাংলাদেশ। কিন্তু ২০১৬ সালের গেমসের তায়কোয়ান্দো শেষ করে বাংলাদেশ বড় ব্যর্থতা দিয়ে। সে দফায় কোন স্বর্ণপদক জেতেনি বাংলাদেশ। আর এবার তায়কোয়ান্দোতে স্বর্ণ জয় দিয়েই বাংলাদেশের সাফল্যের শুরু। নিশ্চয়ই সামনের সময়টাও আরো সুখের হবে?
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২২
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৯৫৬৯.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.