নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
সব দেশেরই তেল রফতানি বন্ধ করে দেয়ার হুঁশিয়ারি ইরানের
জনতা ডেস্ক
ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে ইরানের তেল রফতানি বন্ধ করে দেওয়া সম্ভব নয়। এ কোনও প্রচেষ্টা চালানো হলে পারস্য উপসাগর দিয়ে সব দেশেরই তেল রফতানি বন্ধ করে দেওয়া হবে। গত মঙ্গলবার টিভিতে সমপ্রচারিত এক বক্তব্যে তিনি এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। রুহানি বলেন, আমেরিকার জানা উচিৎ, ইরানের তেল রফতানি অব্যাহত থাকবে। তাদের পক্ষে এটি থামিয়ে দেওয়া সম্ভব নয়। তারা ইরানের তেল রফতানি বন্ধ করতে গেলে পারস্য উপসাগর দিয়ে সব ধরনের তেল সরবরাহ ব্যবস্থাই বন্ধ হয়ে যাবে। ২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে ছয় বিশ্বশক্তির স্বাক্ষরিত পরমাণু চুক্তি থেকে ট্রাম্প প্রশাসন বেরিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেওয়ার পর থেকেই ওয়াশিংটনের সঙ্গে তেহরানের উত্তেজনা আরও বাড়তে থাকে। ২০১৮ সালের মে মাসে যুক্তরাষ্ট্র ওই চুক্তি থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়ে ইরানের ওপর নতুন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের আঞ্চলিক প্রভাব হরাস এবং দেশটির তেল রফতানি শূন্যের কোটায় নামিয়ে আনাই এ নিষেধাজ্ঞার লক্ষ্য। এর প্রেক্ষিতেই ইরানের প্রেসিডেন্ট বলেন, আমেরিকার পক্ষে অর্থনৈতিকভাবে পুরো দুনিয়া থেকে ইরানকে বিচ্ছিন্ন করে ফেলা সম্ভব নয়। মার্কিন হুঁশিয়ারি উপেক্ষা করে ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদন ও পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর সিনিয়র মুখপাত্র ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আবুলফজল শেকারচি। তিনি বলেন, 'ইরানের সামগ্রিক প্রতিরক্ষা নীতির আলোকে ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষাসহ অন্যান্য সমরাস্ত্রের সক্ষমতা শক্তিশালী করা হচ্ছে। আমরা ক্ষেপণাস্ত্র উৎপাদন ও পরীক্ষা চালিয়ে যাবো।' মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও অভিযোগ করেছেন, ইরানি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা ২০১৫ পরমাণু চুক্তির লঙ্ঘন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ইরানবিষয়ক কর্মকর্তা ব্রায়ান হুক সাংবাদিকদের বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র আলোচনার মাধ্যমে ইরানের সঙ্গে সমঝোতা করতে আগ্রহী। কিন্তু প্রয়োজনে সামরিক ব্যবাস্থা গ্রহণে পিছপা হবে না দেশটি। সে সংক্রান্ত প্রস্তাবও বিবেচনায় আছে। জেনারেল শেকারচি বলেন, এটি আমাদের জাতীয় নিরাপত্তার বিষয় বলে যেকোনো ধরনের আলোচনার কাঠামো থেকে এ বিষয়টিকে বাইরে রাখতে হবে। আমরা প্রতিরক্ষা নীতিতে অন্য কোনো দেশের কাছ থেকে অনুমতি নেব না। ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর এই মুখপাত্র বলেন, প্রতিবেশী দেশগুলোকে তেহরান এই বলে আশ্বস্ত করেছে যে, সেসব দেশের প্রতি আগ্রাসন চালানোর কোনো ইচ্ছে ইরানের নেই। শুধু আত্মরক্ষার জন্য প্রতিরক্ষা সক্ষমতা শক্তিশালী করছে তেহরান। সূত্র: রয়টার্স
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৭
ফজর৫:১৩
যোহর১১:৫৫
আসর৩:৩৯
মাগরিব৫:১৮
এশা৬:৩৬
সূর্যোদয় - ৬:৩৪সূর্যাস্ত - ০৫:১৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২৫৬০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.