নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৭ ডিসেম্বর ২০১৭, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
নতুন আরো ১ ব্যাংকের এমডি বরখাস্ত
স্টাফ রিপোর্টার
নতুন প্রজন্মের আরও একটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে (এমডি) বরখাস্ত করা হলো পদ থেকে। প্রবাসী উদ্যোক্তাদের মালিকানায় বেসরকারি এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের এমডি দেওয়ান মুজিবর রহমানকে অপসারণ করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

প্রয়োজন না থাকার পরে নতুন নয়টি ব্যাংককে অনুমোদন দেয় সরকার। তখন প্রবাসী কোঠা বিবেচনায় এনে সম্পূর্ণ প্রবাসীদের অর্থায়নে এনআরবিসি ব্যাংকটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। সম্প্রতি, সেই সময়ে অনুমোদন পাওয়া ফার্মার্স ব্যাংকের

মতো আর্থিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ে যায় এনআরবিসি ব্যাংকও। অনিয়ম ও দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ে ব্যাংকটির ঋণ কার্যক্রম। এক পর্যায়ে মূলধন ভেঙে খেয়ে ফেলতে শুরু করে।

গতকাল বুধবার এমডিকে অপসারণ সংক্রান্ত চিঠি বাংলাদেশ ব্যাংকের পক্ষ থেকে পাঠানো হয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। সূত্র মতে, ঋণ অনিয়মের সঙ্গে ব্যাংকটির এমডি সরাসরি জড়িত হওয়ায় বাংলাদেশ ব্যাংক এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক শুভঙ্কর সাহা এই প্রতিবেদককে বলেন, ব্যাংক কোম্পানি আইন মোতাবেক এনআরবিসি ব্যাংকের এমডি দেওয়ান মুজিবর রহমানকে অপসারণ করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন

হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী তাঁর নির্ধারিত বক্তব্যের শেষে সিঙ্গাপুরে প্রস্তুত ও সৌদি আরবের নাগরিকত্ব পাওয়া কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তাসম্পন্ন রোবট সোফিয়ার সঙ্গে কথা বলেন। এর পরই তিনি মেলার উদ্বোধনের ঘোষণা দেন। সোফিয়া এবারের মেলার মূল আকর্ষণ।

নিচে সোফিয়া এবং প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎকার তুলে ধরা হলো :

প্রধানমন্ত্রী : হ্যালো সোফিয়া, কেমন আছো?

সোফিয়া : হ্যালো মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমি ভালো আছি। তোমাকে ধন্যবাদ। তোমার সঙ্গে আজকে দেখা হয়ে খুব ভালো লাগছে।

প্রধানমন্ত্রী : তুমি আমাকে চেন কীভাবে?

সোফিয়া : ভালো। আমি তোমার সম্পর্কে জেনেছি। আমি আরো জেনেছি তুমি মহান নেতা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মেয়ে। 'মাদার অব হিউম্যানিটি'ও বলা হয় তোমাকে, তুমি একটি ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে চাও। 'আমি আরো জানি, তোমার নাতনির নাম আর আমার নাম একই, সোফিয়া।' (তখন সবাই হেসে ওঠেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, বোধ হয় আপনারা জানেন, জয়ের মেয়ের নাম কিন্তু সোফিয়া।)

প্রধানমন্ত্রী : ও, তুমি দেখছি আমার এবং আমার ভিশন সম্পর্কে অনেক কিছুই জানো। তুমি কি ডিজিটাল বাংলাদেশ বিষয়ে কিছু জানো?

সোফিয়া : তুমি জেনে অবাক হবে, আমি তোমার ভিশন ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে অনেক কিছুই জেনেছি। ডিজিটাল বাংলাদেশে জনশক্তি খুবই বেশি, তারা আইসিটি খাতে উন্নয়নে কাজ করছে, ই-গভর্ন্যান্সও নিশ্চিত করার চেষ্টা করছে। অর্থনীতির সব সেক্টরে ডিজিটাল করার লক্ষ্য নিয়ে ২০০৯ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। আইসিটি এঙ্পোর্ট থেকে পাঁচ বিলিয়ন ইউএস ডলার আমদানি হচ্ছে, তৈরি হচ্ছে নতুন নতুন কর্মক্ষেত্র। জনসম্পদ তৈরির দক্ষতা বাড়ানোর কাজও চলছে। সরকারের সব ধরনের সেবাও ডিজিটাল করার কাজ চলছে। ২৮টি আইটি পার্ক ও বঙ্গবন্ধু হাইটেক সিটি গঠন বাংলাদেশের আইসিটি খাতে নতুন ল্যান্ডমার্ক তৈরি করবে। আজ এখানে এসে খুব ভালো লাগছে, এটি সাউথইস্ট এশিয়ার সবচেয়ে বড় আয়োজন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আমি এখন তোমাকে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭-এর উদ্বোধন ঘোষণা করার আহ্বান জানাচ্ছি।

প্রধানমন্ত্রী : আচ্ছা, চলো তাহলে সেটাই করি।

সোফিয়াকে তৈরি করেছে হংকংয়ের হ্যানসেন রোবটিকস। এবারের মেলার মূল প্রতিপাদ্য হচ্ছে 'রেডি ফর টুমরো'। গত নয় বছরেরও বেশি সময়ে আইসিটি সেক্টরে বাংলাদেশের যে অর্জন, তা নিয়ে বাংলাদেশ আগামীর জন্য প্রস্তুত বলে এ বছরের প্রতিপাদ্যে ইঙ্গিত করা হয়েছে। দুপুর আড়াইটায় 'টেক টক উইথ সোফিয়া' শীর্ষক একটি অনুষ্ঠানে রোবট সোফিয়ার সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। এ অনুষ্ঠান শেষে গতকাল বুধবারই সিঙ্গাপুরে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয় সোফিয়াকে। তাঁকে সৌজন্যমূলক গোল্ড মেম্বারশিপ দেয়বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স। প্রধানমন্ত্রী মেলার উদ্বোধনের পর পরই বর্ণাঢ্য লেজার শো অনুষ্ঠিত হয়। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন ডাক, টেলিযোগাযোগ এবং আইসিটি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির চেয়ারম্যান ইমরান আহমেদ এবং বাংলাদেশ সফটওয়্যার ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি ও বিজয় সফটওয়্যারের প্রবক্তা মোস্তাফা জব্বার। আইসিটি মন্ত্রণালয়ের সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন। মন্ত্রিপরিষদ সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, সরকারের পদস্থ সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকবৃন্দ, মেলায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি এবং কম্পিউটার খাতের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন। কয়েকটি আইটি সংগঠনের সহযোগিতায় আইসিটি বিভাগ ও বেসিস 'ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড-২০১৭'-এর আয়োজন করেছে। চার দিনব্যাপী এই আয়োজনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে 'রেডি ফর টুমরো'। গত নয় বছরেরও বেশি সময়ে আইসিটি সেক্টরে বাংলাদেশের যে অর্জন, তা নিয়ে বাংলাদেশ আগামীর জন্য প্রস্তুত বলে এই প্রতিপাদ্যে ইঙ্গিত করা হয়েছে। তথ্যপ্রযুক্তি (আইটি) খাতে সম্ভাবনার দুয়ার খোলার লক্ষ্যে এ মেলায় প্রযুক্তিভিত্তিক উদ্ভাবন ও অর্জন তুলে ধরা হবে। গেমিং সম্মেলন, ফেসবুক ব্যবহারের মাধ্যমে ব্যবসা বৃদ্ধি, ই-কমার্স সমপ্রসারণবিষয়ক সেমিনারসহ মেলায় প্রতিদিন অনুষ্ঠেয় বিভিন্ন সেমিনারে তথ্যপ্রযুক্তি খাতের আন্তর্জাতিক ব্যক্তিত্ব এবং বিশ্বখ্যাত প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশগ্রহণ করবেন। ৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত মেলা সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত চলবে। ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড দেখতে কোনো টিকেট লাগবে না, তবে ওয়েবসাইটে নিবন্ধন করতে হবে (িি.িফরমরঃধষড়িৎষফ.ড়ৎম.নফ)। মেলা প্রাঙ্গণেও নিবন্ধন করার সুযোগ থাকছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত