নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ৭ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫, ২৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০
বাংলামোটরে ছেলের লাশ : বাবা ৩ দিনের রিমান্ডে
স্টাফ রিপোর্টার
রাজধানীর বাংলামোটরের এক বাড়ি থেকে আড়াই বছরের নূর সাফায়েতের লাশ উদ্ধারের ঘটনায় তার বাবা নুরুজ্জামান কাজলকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তিন দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত। পুলিশের রিমান্ড আবেদনের শুনানি করে ঢাকার মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র ম-ল গতকাল বৃহস্পতিবার এই আদেশ দেন। আগের দিন ছয় ঘণ্টার রুদ্ধশ্বাস নাটকীয়তার পর বাংলামোটর লিংক রোডের ১৬ নম্বর বাড়ি থেকে সাফায়েতের কাফন মোড়ানো লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। পাশাপাশি তার ভাই চার বছর বয়সী সুরায়েতকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। আটক করা হয় তাদের বাবা কাজলকে। 'মাদকাসক্ত' কাজল ছোট ছেলেকে

'হত্যা করে' বড় ছেলেকে কোলে নিয়ে দা হাতে ঘরের ভেতর ঘুরে বেড়াচ্ছেন খবর পেয়ে গত বুধবার সকালে ওই বাড়িতে যায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। দীর্ঘ চেষ্টার পর বেলা ২টার দিকে সঙ্কটের অবসান হয়। কাজলের ভাই নুরুল হুদা উজ্জ্বল সে সময় বলেছিলেন, ও (কাজল) সারাদিন নেশা করে, খায় আর ঘুমায়। এটা ওর নিজের বাড়ি। চাচার সাথে গত ঈদের আগেও মারামারি করেছে। এতদিন আমরা সহ্য করছি, পুলিশ আনি নাই, শুধু ওই বাচ্চাগুলোর কারণে। এখন বাচ্চাটাকেই মেরে ফেলছে। কাজলের মার খেয়ে ওর বৌ বাপের বাড়ি চলে গেছে। বাসায় দুই বাচ্চা নিয়ে ও থাকতো। আজকে এই কা- করল। তবে আটক হওয়ার পর কাজল পুলিশের কাছে দাবি করেন, সাফায়াতের মৃত্যু হয়েছে বৈদ্যুতিক শকে, তিনি তাকে হত্যা করেননি। কিন্তু সাফায়াতের মা মালিহা আক্তার রাতে কাজলের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন বলে শাহবাগ থানার ওসি আবুল হাসান জানান। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই চম্পক চক্রবর্তী গতকাল বৃহস্পতিবার কাজলকে আদালতে হাজির করে দশ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেন। অন্যদিকে কাজলের পক্ষে রিমান্ড আবেদনে বিরোধিতা করেন আইনজীবী আবদুস সাত্তার। তিনি বলেন, কাজলের বাড়ি নিজের নামে লিখিয়ে নিতে চাইছিলেন তার স্ত্রী মালিহা। তা না দেওয়ায় তিনি বাড়ি ছেড়ে চলে যান। কাজল দুই সন্তানের অন্তত একজনকে নিয়ে যাওয়ার জন্য মালিহাকে অনুরোধ করেছিলেন। সেজন্য তাকে পরে উকিল নোটিসও দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু মালিহা শিশু দুটোকে ওই বাড়িতেই ফেলে রাখেন। শুনানি শেষে বিচারক আসামি নুরুজ্জামান কাজলকে তিন দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের অনুমতি দেন। কাজল শুনানিতে ছেলের মৃত্যুর বিষয়ে কোনো কথা বলেননি। তবে আদালতের বাইরে তিনি সাংবাদিকদের সামনে দাবি করেন, ছেলেকে তিনি মারেননি। আগের দিন বিদ্যুৎস্পৃষ্টে সাফায়েতের মৃত্যুর কথা বললেও আদালতের বাইরে কাজল সাংবাদিকদের বলেন, তার ছেলের জ্বর হয়েছিল, মারা গেছে ঘুমের মধ্যে।

শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে: নিহত শিশু সাফায়াতের শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে বলে জানিয়েছেন ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক ডা. সোহেল মাহমুদ। গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে শিশুটির মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে তিনি একথা জানান। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩ সদস্যের চিকিৎসক বোর্ড সাফায়াতের মৃতদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করেন। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের প্রধান ডা. সোহেল মাহমুদ বলেন, সাফায়াতের শরীরে বাহ্যিক আঘাতের চিহ্ন আছে। কপালে একটি ছোট আঘাত রয়েছে। তবে তাতে কোনো রক্তক্ষরণ হয়নি। তার ব্রেইন ও লিভারে কিছুটা ফোলা পাওয়া গেছে। তবে অপুষ্টি ও অসুস্থতার কারণে এই ফোলা হতে পারে। তার ব্রেইন, লিভার, বস্নাড ও লাংস্ হিস্টোপ্যাথলজিতে পাঠানো হয়েছে। তিনি বলেন, শিশুর শরীরে কোনো ধারালো অস্ত্রের আঘাত ও বিদ্যুৎস্পৃষ্টের আলামত নেই। তার কপালে যে আঘাতটি রয়েছে তা পড়ে গিয়েও হতে পরে। তবে সেই আঘাত তার মৃত্যুর জন্য দায়ী কি-না বা কি কারণে তার মৃত্যু হয়েছে তা হিস্টোপ্যাথলজির প্রতিবেদন পাওয়ার পর বলা যাবে।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীনভেম্বর - ১৭
ফজর৫:১৩
যোহর১১:৫৫
আসর৩:৩৯
মাগরিব৫:১৮
এশা৬:৩৬
সূর্যোদয় - ৬:৩৪সূর্যাস্ত - ০৫:১৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২১২২.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। উপদেষ্টা সম্পাদক : মোঃ শাহাবুদ্দিন শিকদার। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata@dhaka.net
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.