নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২১ মাঘ ১৪২৭, ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪২
জনতার মত
দেশের উন্নয়নে রেমিট্যান্স যোদ্ধারা
রাজু আহমেদ
আধুনিক যুগে মানুষ এক দেশ থেকে অন্য দেশে যেতে পারে খুব সহজে। তারই সুফলে স্বল্পোন্নত দেশগুলো উন্নত দেশগুলোতে তাদের শ্রমবাজার খুঁজে নিচ্ছে। বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর নাগরিক তাদের কর্মসংস্থান খুঁজতে সৌদি আরব, কাতার, কুয়েত, মালয়েশিয়াসহ বিভিন্ন উন্নত দেশে পাড়ি জমায়।

বাংলাদেশ একটি ছোট্ট দেশ। এদেশ থেকে হাজার হাজার মানুষ বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে। তাদের উপার্জিত অর্থ দেশে পাঠায়। তাদের এই অর্থকে বলে রেমিট্যান্স। আর যারা এই অর্থ পাঠায় তাদের আমরা রেমিট্যান্স যোদ্ধা বলে জানি। প্রবাসী আয় বা রেমিট্যান্স বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকাকে সচল রেখেছে। দেশের মোট জিডিপিতে রেমিট্যান্সের অবদান ১২ শতাংশের মতো। জীবনযাত্রার মান, আবাসন, কর্মসংস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা বিভিন্ন উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখে রেমিট্যান্স।

বিশ্বব্যাপী মহামারী কালে বড় বড় অর্থনৈতিক সংস্থাগুলোর পূর্বাভাসকে ভুল প্রমাণিত করেই চলেছে বাংলাদেশের রেমিট্যান্স প্রবাহ। কোভিড-১৯ মহামারী শুরু হওয়ার পরপরই বিশ্বব্যাংক, আই এম এফের এক গবেষণায় বাংলাদেশের রেমিট্যান্স ১৯ দশমিক ৭ শতাংশ কমে যাওয়ার আশঙ্কা করা হয়েছিল কিন্তু বাস্তবে উল্টো পরিস্থিতি দেখা গেছে। ২০১৯ সালের স্বাভাবিক সময়ে প্রবাসীরা যে রেমিট্যান্স প্রেরণ করেছিল, মহামারী সময়ে সেই প্রবাহ উল্টো ৩৮ শতাংশ বেড়ে গেছে।

দুর্দিনের সঙ্গী রেমিট্যান্স যোদ্ধারা। আজ রেমিট্যান্স যোদ্ধারা আছে বলে পদ্মা সেতুর মতো বড় বড় প্রকল্প করতে অন্যের কাছে হাত পারতে হয় না। দেশ উন্নয়নের দিকে ধাবিত হচ্ছে আর এই উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখার জন্য রেমিট্যান্স যোদ্ধাদের অবদান অনস্বীকার্য।

বর্তমান সরকারের ঐকান্তিক ও সফল শ্রম কূটনৈতিক প্রচেষ্টায় বিগত ১০ বছরে ৬৬ লাখ ৩৩ হাজার মতো কর্মী প্রশিক্ষণ নিয়ে কাজ করছে। বিগত বছর থেকে ২ শতাংশ হারে প্রণোদনাসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ নিচ্ছে। আরো কিছু পদক্ষেপ যেমন, মানবপাচারকারী বা দালাল চক্রকে চিহ্নিত করা, বিমানবন্দরের ভোগান্তি দূর, পর্যাপ্ত ঋণ, শ্রমবাজার বৃদ্ধি, এসব বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা নিলে নিরাপদে থাকবে আমাদের রেমিট্যান্স যোদ্ধারা। এই রেমিট্যান্স যোদ্ধারা দেশের অর্থনীতির অন্যতম চালিকাশক্তি। রেমিট্যান্স যোদ্ধারা বাঁচলে অর্থনীতি বাঁচবে আর অর্থনীতি বাঁচলে দেশ বাঁচবে।

রাজু আহমেদ : লেখক

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ২৫
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৭
মাগরিব৫:২৮
এশা৬:৪১
সূর্যোদয় - ৬:০০সূর্যাস্ত - ০৫:২৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২১৩৫৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.