নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ২১ মাঘ ১৪২৭, ২১ জমাদিউস সানি ১৪৪২
মাধবদীর ঠাণ্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত রোগীরা চিকিৎসা পাচ্ছে না
মাধবদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি
মাধবদীতে ভোরের কুয়াশায় খেটে খাওয়া মানুষ সকালে ঘর থেকে বের হতে পারছে না। ঠা-াজনিত রোগের সঠিক চিকিৎসা পাচ্ছে না রোগীরা। শেষ মুহূর্তে এসে শীতের কুয়াশায় নিম্নাঞ্চলে সবজি চারা ও বীজতলা জমিতে কুয়াশায় চারা গাছ ঢলে পড়ছে। শুকিয়ে যাচ্ছে।এতে সাধারণ কৃষিজীবী মানুষ দারুনভাবে হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন। অপর দিকে, গত ১ সপ্তাহ থেকে নিম্নাঞ্চলীয় এলাকায় বোরো আবাদের ধূম পড়েছে। কৃষিজীবীগণ বোরোধান আবাদে প্রচন্ড ঠান্ডা আর শীত উপেক্ষা করে নিজ নিজ জমি এবং অনেকেই বর্গাচাষী জমিতে বীজতলা রোপণে ব্যস্ত হয়ে পড়েছে। এতে অধিকাংশ চাষী ও দীনমজুর বিভিন্ন ঠান্ডা জনিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। খেটে খাওয়া এসব নিম্নআয়ের মানুষ চিকিৎসার জন্য স্থানীয় সরকারি হাসপাতাল, প্রাইভেট ক্লিনিক ও সাধারণ চিকিৎসালয় গুলিতে প্রতিদিনই ভীড় করতে দেখা যাচ্ছে।বাড়ছে জ্বর, ঠান্ডা, ট্রন্সিলাইটিজ, স্বাসকষ্ট জনিত রোগীর ভিড়। মাধবদী থানা এলাকার সব ক'টি ইউনিয়নের স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র ঘুরে একই চিত্র পরিলক্ষিত হয়েছে।সব খানে। সাধারণ মানুষ চিকিৎসা নিতে এসে কাংক্ষিত সেবা না পেয়ে চরম হয়রানীর শিকার হচ্ছেন বলে অভিযোগ অধিকাংশ রোগীর। হাসপাতালগুলো রোগের টেস্ট পরীক্ষার নামে মোটা টাকা ফি নিলেও সঠিক রিপোর্ট পাচ্ছেনা এমন অভিযোগ কমবেশী প্রতিটি হাসপাতাল ও প্রাইভেট ক্লিনিকের বিরোদ্ধে রোগী সাধাণের।খোঁজনিয়ে দেখাগেছে এসব প্রইভেট এবং সরকারী স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে এক্সে মেশিন ও অন্যান্য যন্ত্র অকেজো রয়েছে। দু'একটিতে স্বচল থাকলেও অভিজ্ঞ অপারেটর এবং জনবল সংকটে তাতে সঠিক রিপোর্ট পাওয়া যাচ্ছেনা। নিম্নআয়ের সুবিধা বঞ্চিত মানুষ তাদের সন্তান এবং বৃদ্ধদের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা পাচ্ছে না।এ ব্যাপারে কথা বললে কর্তব্যরত চিকিৎসক ও পরিচালকদের দাবী সম্প্রতি শীত বেড়ে যাওয়ায় অধিক রোগীর চাপ থাকায় সবাইকে সীট দেয়া সম্ভব হচ্ছেনা রাতে ও ভোরে প্রচন্ড শীতের কারনে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে কাঁচামাল, মাছ, ব্যবসায়ীসহ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী এবং খেটে খাওয়া সাধারণ মানুষ। তারপরও বাধ্য হয়ে পানি জমিতে বোরো রোপনে কাজ করতে হচ্ছে নিম্নাঞ্চলের কৃষিজীবীদের। ঠান্ডাজনিত রোগ প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে আশঙ্কাজনক হারে। স্থানীয় প্রাইভেট ক্লিনিকি, ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্র ও হাসপাতাল গুলিতে ঠান্ডা কাশি জ্বর, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি রোগীর সংখ্যা প্রতিদিনই বেড়ে চলেছে বলে জানিয়েছে। মাধবদী থানা এলাকার চিকিৎসাসেবা কেন্দ্রগুলো। আক্রান্তদের অধিকাংশই শিশু ও কৃষি জমিতে কাজ করা মানুষ। মাধবদী পূর্বাঞ্চলীয় স্বাস্থ্যকেন্দ্রগুলোতে ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। জানা যায়, গত এক সাপ্তাহে ঠান্ডাজনিত কারনে স্বাসকষ্টে যে পরিমাণ রোগী ভর্তি হয়েছে তাতে সবাইকে সিট দেয়া সম্ভব নয় বলে কয়েকজন রোগী ফ্লোরে ও বাড়ান্দায় থেকে চিকিৎসা রত অবস্থায়ই মারা গেছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এমনই কথা জানালেন মাধবদীর নগর বানিয়াদী গ্রামের অসহায় এক মৃত পিতার একমাত্র ছেলে জয়নাল। তিনি বলেন এসব ক্লিনিকের অপচিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু হলে ময়না তদন্ত বা কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার সুযোগ থাকে না। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে গ্রামাঞ্চলের কৃষিজীবি নিম্নআয়ের মানুষদের প্রতি বিশেষ নজর দেয়া তথা স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে দায়িত্বরতদের প্রতি নিম্নআয়ের এসব সাধারণ মানুষের সমস্যা দূরীকরণে দায়িত্বশীল হওয়ার দাবি জানিয়েছেন সুবিধা বঞ্চিত এসব সাধারণ কৃষিজীবী মানুষ।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীঅক্টোবর - ২৫
ফজর৪:৪৪
যোহর১১:৪৩
আসর৩:৪৭
মাগরিব৫:২৮
এশা৬:৪১
সূর্যোদয় - ৬:০০সূর্যাস্ত - ০৫:২৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
২১৩২৭.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.