নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০ ফাল্গুন ১৪২৭, ১০ রজব ১৪৪২
এনবিআরের গোয়েন্দা ইউনিটের কার্যক্রম নিয়ে প্রশ্ন দুদকের
স্টাফ রিপোর্টার
জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) আয়কর, মূসক ও শুল্ক ফাঁকি রোধে সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স সেলের (সিআইসি) কার্যক্রম ও সেলটিতে কর্মরত কর্মকর্তাদের অতিরিক্ত প্রণোদনা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে কার্যক্রম পরিচালনা করে সিআইসি। তাদের কার্যক্রমের স্বচ্ছতা ও কার্যকারিতা আনা প্রয়োজন বলে মনে করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গত ৭ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতির কাছে দেয়া দুদকের বার্ষিক প্রতিবেদনে এই সুপারিশ করে সংস্থাটি। দুদকের ২০১৯ সালের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সিআইসির কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত কর্মকর্তারা প্রণোদনা স্বরূপ বিপুল পরিমাণ আর্থিক সুবিধা পাচ্ছেন। এই ধরণের গোয়েন্দা কার্যক্রমের জন্য প্রণোদনা প্রদান যুক্তিসঙ্গত হলেও তা একটি আইনের আওতায় যুক্তিসঙ্গত পরিমাণ হওয়া দরকার। এখন প্রণোদনা প্রদান ব্যবস্থাটি পরীক্ষাপূর্বক প্রশাসনিক সিদ্ধান্তের পরিবর্তে নির্দিষ্ট যৌক্তিক হারে প্রণোদনা প্রদানের জন্য আইন প্রণয়ন প্রয়োজন বলে মনে করে দুদক। প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, কর ফাঁকির বিষয়ে তথ্য পাওয়ার পর থেকে প্রাপ্য রাজস্ব আদায় ও মামলা নিষ্পত্তিতে অনেক ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রিতা লক্ষ করা যায়। তাই কর ফাঁকির বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যক্রম দ্রুত সম্পন্ন করার জন্য নির্দিষ্ট সময় নির্ধারণ করা প্রয়োজন। অর্থাৎ কোনো একটি কর ফাঁকির বিষয়ে অনুসন্ধান শুরুর পর এক বছরের মধ্যে (ছয় মাসও হতে পরে) রিপোর্ট প্রদান ও কর আদায় নির্ধারণের সময়সীমা নির্দিষ্ট করা প্রয়োজন। তাহলে এই সংস্থার কাজে দায়বদ্ধতা ও গতিশীলতা বৃদ্ধি পাবে এবং কর ফাঁকিবাজদের মধ্যে ভীতি সৃষ্টি করতে সক্ষম হবে। সংস্থাটির কার্যক্রমে স্বচ্ছতা ও কার্যকারিতার আনার প্রয়োজনীয়তা আছে বলে মনে করে দুদক। এ ছাড়া একটি নির্দিষ্ট মাত্রার কর ফাঁকির ক্ষেত্রে এ সংস্থা উদ্যোগী হয়ে কাজ করবে সেটি নির্ধারণ করা জরুরি। অন্যথায় ছোট ছোট কর ফাঁকির বিষয় যা জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাঠ পর্যায়ের অফিসসমূহ নিরোধ করতে পারে সেখানে কর ফাঁকির বিষয়ে সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স সেলের (সিআইসি) সম্পৃক্ত না হওয়াই শ্রেয়। দুদকের প্রতিবদেন আরও বলা হয়েছে, ভ্যাট ও আয়কর একে অপরের পরিপূরক। ভ্যাটের মাধ্যমে ব্যবসার পরিধি বিক্রয়, আয় জানা যায়। যা প্রকৃত আয়কর নির্ধারণের জন্য একান্ত প্রয়োজন। এ কারণে আয়কর ও ভ্যাটকে একই প্রশাসনিক কাঠামোর আওতায় আনা প্রয়োজন। পৃথিবীর অধিকাংশ দেশেই প্রত্যক্ষ কর প্রশাসনই ভ্যাট ও আয়কর আদায় করে থাকে। শুল্ক বিভাগের কাজের প্রকৃতির সঙ্গে ভ্যাটের আদৌ কোনো সম্পর্ক না থাকা সত্ত্বেও আমাদের দেশে শুল্ক বিভাগ ভ্যাট আদায় করে থাকে। আর এতে প্রকৃত আয়কর ও ভ্যাট আদায় করা সম্ভব হচ্ছে না। কর ফাঁকি, বিদেশে অর্থপাচার, সন্ত্রাসী কার্যক্রমে অর্থপাচার ও মাদকপাচার রোধে দুর্নীতি দমন কমিশন, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, বিএফআইইউ, সিআইডি ও জাতীয় নিরাপত্তা সংস্থার ঊর্ধ্বতনদের নিয়ে একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব দিয়েছে দুদক। দুদক মনে করে আয়কর, শুল্ক ও মূসক আদায়ে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখার ক্ষেত্রে প্রণোদনা প্রদানের যে বিধানবলি রয়েছে তা পুনঃনিরীক্ষা প্রয়োজন। সিআইসি, এলটিইউ, শুল্ক বা মূসক আদায়ে তথাকথিত অসাধারণ ভূমিকা রাখার ভিত্তিতে মাত্রাতিরিক্ত প্রণোদনা বা পুরস্কার প্রদান করা হলে এসব সংস্থায় কর্মরত কর্মকর্তাদের মাঝে একটি আত্মশ্লাঘা জন্ম নেয়, যা অন্য কর্মকর্তাদের অস্বস্তির কারণ হতে পারে। প্রতিবছর এবং সমগ্র কর্মজীবনে একজন কর্মকর্তার জন্য এরূপ আর্থিক প্রণোদনার একটা সুনির্দিষ্ট সীমা নির্ধারণ করা প্রয়োজন।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুন - ১৫
ফজর৩:৪৩
যোহর১১:৫৯
আসর৪:৩৯
মাগরিব৬:৪৯
এশা৮:১৪
সূর্যোদয় - ৫:১১সূর্যাস্ত - ০৬:৪৪
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১২৪৮৩.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.