নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১০ ফাল্গুন ১৪২৭, ১০ রজব ১৪৪২
কিশোরগঞ্জে নববধূ খুন
দুই নারীসহ ৬ জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড
কটিয়াদী (কিশোরগঞ্জ) থেকে সুবল চন্দ্র দাস
কিশোরগঞ্জের আদালত বিয়ের দুই সপ্তাহের মধ্যে নববধূকে খুন করার দায়ে এক পরিবারের দুই নারীসহ ৬ জনকে যাবজ্জীবন কারাদ- ও এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেছেন। প্রথম অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম গতকাল সোমবার সকালে দ-িতদের উপস্থিতিতে তার রায়ে করিমগঞ্জের ভাটিয়া মোড়লপাড়া গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে লুৎতু উরফে রোকন (৩০), মৃত মীর হোসেনের ছেলে সোহরাব (৪৫), সোহরাবের ছেলে শরীফ (২২), সোহরাবের স্ত্রী জোস্না (৪০), মৃত হালু মিয়ার ছেলে মুসলিম (৫৫) ও মুসলিমের স্ত্রী নূর নাহারকে (৪০) যাবজ্জীবন কারাদ-ের পাশাপাশি প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা করেছেন। রায়ের পর আসামিরা মামলার বাদী আল আমিনকে হুমকি দিচ্ছিলেন, জামিনে বেরিয়ে এসে তাকে উপযুক্ত শিক্ষা দেবেন বলে। মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, করিমগঞ্জের ভাটিয়া মোড়লপাড়া

গ্রামের মৃত আব্দুল কুদ্দুছের ছেলে শামীমের সঙ্গে তারই চাচাত বোন মৃত আবু বকর সিদ্দিকের মেয়ে স্থানীয় হাইস্কুলের ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী রুবার (১৮) পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়েছিল। তখনই আাসামিরা হুমকি দিয়ে ছিলেন, রুবাকে ১৫ দিনও বাঁচতে দেবেন না। বিয়ের দুই সপ্তাহ পর ২০১১ সালের ৩ জুন রাতে স্বামী শামীম রুবার বড়ভাই আল আমিনকে জানান, রুবাকে কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না। এরপর খোঁজাখুজি করে রাত সোয়া ১০টার দিকে শামীমের বাড়ির পেছনের একটি ডোবা থেকে রুবার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এসময় আাসমীরা বলতে থাকেন, রুবাকে জ্বীনে হত্যা করেছে। আসলে রুবাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছিল। রুবার স্বজনরা জানান, শামীম এক বছর বয়সে বাবাকে হারান। তার অনেক সম্পত্তি। দাদার ইচ্ছা পূরণে দু'জনের বিয়ে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু আসামিরা তাদের ঘরের মেয়েকে বিয়ে দিতে চেয়েছিলেন বলে রুবার ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন। সেই কারণেই হত্যাকা-ের ঘটনাটি ঘটেছে।

হত্যাকা-ের পরদিন ৪ জুন রুবার বড়ভাই আল আমিন বাদী হয়ে করিমগঞ্জ থানায় রুবার স্বামী শামীম, লুৎতু, সোহরাব, শরীফ, মুসলিম, নূর নাহার ও জোস্নাকে আসামি করে হত্যা মামলা রুজু করেন। তবে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিদর্শক শওকত জাহান ওই বছর ৩০ ডিসেম্বর শামীমকে বাদ দিয়ে বাকি ৬ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেছিলেন। ২০১২ সালের ২৮ মে মামলার চার্জ গঠন হয়। সোমবার সকালে এ মামলার উপরোক্ত রায় ঘোষিত হলো। সরকার পক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন এপিপি অ্যাডভোকেট সৈয়দ শাহজাহান, আর আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট অশোক সরকার।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীজুলাই - ২৫
ফজর৪:০০
যোহর১২:০৫
আসর৪:৪৪
মাগরিব৬:৪৮
এশা৮:০৯
সূর্যোদয় - ৫:২৫সূর্যাস্ত - ০৬:৪৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
১৩৬৫১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.