নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৮ এপ্রিল ২০২১, ২৫ চৈত্র ১৪২৭, ২৪ শাবান ১৪৪২
আমাদের সংযুক্তি
ছৈয়দ আন্ওয়ার
বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকায় আয়োজিত দক্ষিণ এশীয় মিলনমেলা বাংলাদেশের সমৃদ্ধির পথকে সুগম করেছে। এই অনুষ্ঠানে পাঁচটি দেশের সরকারপ্রধান সরাসরি যোগদান করে বাংলাদেশের সাথে পারস্পরিক যোগাযোগ ও বাণিজ্যের ওপর জোর দিয়ে আন্তঃদেশীয় সম্পর্ককে উচ্চমাত্রায় নিয়ে যাওয়ার দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তাছাড়া, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, রাশিয়াসহ অনেক রাষ্ট্রপ্রধানেরা বাংলাদেশের সাফল্য কামনা করে সহযোগিতার অঙ্গীকার করেছেন। নিঃসন্দেহে দেশের সমৃদ্ধির জন্য এ এক যুগান্তকারী পর্ব।

বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সংযুক্তিতে সমৃদ্ধি বাড়ে। যেকোনো দেশের সাথে দ্বিপক্ষীয় সমঝোতা এবং বহু দেশের সাথে সংযুক্তি নিশ্চয়ই বহির্বিশ্বের সাথে যোগাযোগের দ্বার উন্মোচন করে। একইভাবে দেশের অভ্যন্তরীণ সংযুক্তিও অত্যধিক গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস একেবারেই আলাদা। আমাদের স্বাধীনতা অর্জিত হয় সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে এবং এটি ছিল গণযুদ্ধ। এতে দল-মত নির্বিশেষে, সর্বস্তরের মানুষ অংশ নিয়েছিল। সর্বস্তরের মানুষের ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত হয় বাংলার স্বাধীনতা। কিন্তু তার স্বতস্ফূর্ত স্বীকৃতি আজও মেলেনি। নির্দলীয়, নির্মোহ মুক্তিযুদ্ধকে আজ অনেক সময় প্রশ্নবিদ্ধ করতে শোনা যায়। যার যা প্রাপ্য তার স্বীকৃতিতে নানা আপত্তিজনক কথাও কম শোনা যায় না। তাই আজ পত্রিকার পাতায় আক্ষেপের সাথে শিরোনামে উঠে আসে 'অন্যদের অবদান অস্বীকার করলে বঙ্গবন্ধুর মর্যাদা বাড়ে না।' এই শিরোনামের মধ্য দিয়ে আমাদের অন্তরদ্বন্দ্বের প্রমাণ মেলে। সুতরাং বহির্বিশ্বের সংযুক্তির চেয়ে নিজেদের সংযুক্তি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

পুনশ্চ : 'একতাই বল' বলে যে শক্তির উৎসাহ যোগানো হয়, সেখানে আমরা অনেক পিছিয়ে। এক সাথে যুদ্ধ করে স্বাধীনতা অর্জনের পর নিজেদের মধ্যে বিভেদের দেয়াল তুলে দেয়া কোনো জাতির জন্যই কল্যাণকর হতে পারে না। সবার আগে প্রয়োজন নিজেদের সংযুক্তি নিশ্চিত করা।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমে - ১৩
ফজর৩:৫৪
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:৩৫
এশা৭:৫৪
সূর্যোদয় - ৫:১৭সূর্যাস্ত - ০৬:৩০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৭৮১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.