নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বৃহস্পতিবার ৮ এপ্রিল ২০২১, ২৫ চৈত্র ১৪২৭, ২৪ শাবান ১৪৪২
মানবিক কর্মসূচি নিয়ে ফের মাঠে আওয়ামী লীগ
সফিকুল ইসলাম
আবারো ভয়াবহ রূপে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ। এ কারণে দেশজুড়ে চলছে (তৃতীয় দিন) লকডাউন। এতে কঠির সংকটে পড়েছে নিম্ন আয়ের মানুষ। জীবন-জীবিকার তাগিদে রাস্তায় নামছে নিম্ন-মধ্যবিত্ত আয়ের মানুষ। করোনার এমন পরিস্থিতিতে আবারো মানবিক কর্মসূচি হাতে নিয়েছে টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার দল আওয়ামী লীগ। ইতোমধ্যে অসহায়, দরিদ্র, শ্রমজীবী, দুস্থ, নিম্ন এবং মধ্যবিত্ত পরিবারের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী ও নগদ অর্থ পৌঁছে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দলটি। এজন্য দলীয় নেতাদের কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একইসাথে দলীয়প্রধান ও প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মেনে করোনাভাইরাসের নতুন ঢেউয়ে সতর্ক হয়ে নিজ নিজ অবস্থান থেকে সরকারি নির্দেশনা মেনে চলতে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে কাজ করছে দলটি।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গবন্ধু কন্যার এমন নির্দেশ বাস্তবায়নে মহানগর, জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ইউনিটের দায়িত্বশীল নেতাদের বার্তা দেয়া শুরু করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সিনিয়র নেতারা। তারা বলছেন, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আওয়ামী লীগ সবসময় মানুষ ও মানবতার কল্যাণে কাজ করে আসছে। বৈশ্বিক মহামারী করোনার সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় ফের মানবিক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। সারাদেশেই ত্রাণ তৎপরতা শুরু করা হবে। এরআগে গত বছর মার্চ মাসে বাংলাদেশে আঘাত করে করোনাভাইরাস। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ওই মাসেই সারাদেশে লকডাউন ঘোষণা করে সরকার। এমন পরিস্থিতিতে চরম বিপর্যয়ে পড়ে দেশের অসহায়, দরিদ্র, শ্রমজীবী, নিম্ন ও মধ্যবিত্ত পরিবারের মানুষ। এ অবস্থায় তাদের পাশে দাঁড়াতে

ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি সরকারের পাশাপাশি অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে কেন্দ্র, মহানগর, জেলা-উপজেলা, ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীদের কঠোর নির্দেশনা দেন। দলীয় সভানেত্রীর এমন নির্দেশনা বাস্তবায়ন করতে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে মাঠে নামে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ, কৃষক লীগ, মহিলা আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন ইউনিটের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা। তারা চাল, ডাল, তেল, লবণসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী অসহায় মানুষের বাড়ি বাড়ি পৌঁছে দেন। ত্রাণ তৎপরতায় সক্রিয় হয়ে ওঠেন স্থানীয় মন্ত্রী, এমপি, জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। তবে মাঝে করোনা সংক্রমণ কিছুটা স্বাভাবিক হলে সারাদেশে আওয়ামী লীগের ত্রাণ তৎপরতায় কিছুটা ভাটা পড়ে। কিন্তু বর্তমানে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ও সরকারের লকডাউনের সিদ্ধান্তকে সামনে রেখে সারাদেশে ত্রাণ তৎপরতা বৃদ্ধি করতে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধু কন্যার নির্দেশনার পর সারাদেশের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নির্দেশনা দেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে জেলা-উপজেলা পর্যায়ের দায়িত্বশীল নেতাদের সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন দলটির বিভাগীয় দায়িত্বপ্রাপ্তরা।

মহামারী করোনাভাইরাস শুরুর পর থেকেই ত্রাণ তৎপরতা চারিয়ে আসছে আওয়ামী লীগের ত্রাণ উপকমিটি। দলের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক এবং ত্রাণ উপকমিটির সদস্য সচিব সুজিত রায় নন্দীর নেতৃত্বে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি উপেক্ষা করে প্রথম থেকেই জাতি-ধর্ম-বর্ণ, দলমত নির্বিশেষে ত্রাণ উপকমিটি রয়েছে সাধারণ মানুষের পাশে। তারা অসহায় মানুষের মাঝে চাল, ডাল, তেল, লবণ ও ময়দাসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী এবং নগদ টাকা অনুদান বিতরণের পাশাপাশি সারাদেশে বিভিন্ন হাসপাতাল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক এবং সামাজিক সংগঠনের মাঝে করোনার সুরক্ষাসামগ্রী হ্যান্ড স্যানিটাইজার, অঙ্েিজন সিলিন্ডার, ফর্মাল থার্মোমিটার, পিপিই, উন্নতমানের কাপড় ও সার্জিক্যাল মাস্কসহ বিভিন্ন ধরনের সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। যা নিয়ে খোদ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও প্রশংসা করেন। সর্বশেষ গত রোববার সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে করোনা প্রতিরোধসামগ্রী বিতরণ করে ত্রাণ উপকমিটি। এ বিষয়ে কথা হয় আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী এর সাথে। তিনি বলেন, করোনাভাইরাস শুরু থেকেই দেশ ও দেশের মানুষের স্বার্থে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। করোনায় অসহায় মানুষের পাশে থাকতে সরকারের পাশাপাশি দলীয় নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। বৈশ্বিক মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ায় ত্রাণ কার্যক্রম আরো বৃদ্ধি করা হয়েছে। করোনার পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

সূত্রে জানা যায়, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সতর্ক আওয়ামী লীগের শীর্ষপর্যায়ের নেতারা। একদিকে সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করা, অন্যদিকে অসহায়, দরিদ্র, শ্রমজীবী ও নিম্ন আয়ের মানুষের পাশে থাকা। তাই মহানগর, জেলা-উপজেলা, ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিচ্ছেন তারা। একই সাথে সাধারণ মানুষের পাশে থাকতে জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশনা দিচ্ছেন। মূলত তাদের লক্ষ্য- স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা এবং অসহায় মানুষের খাদ্যসামগ্রী নিশ্চিত করার মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি করা। এ বিষয়ে কথা হয় আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খান এর সাথে। তিনি বলেন, বৈশ্বিক মহামারী করোনার শুরু থেকে আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীরা দেশের অসহায়, দরিদ্র, শ্রমজীবী, নিম্ন এবং মধ্যবিত্ত পরিবারের মাঝে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে। স্বাস্থ্যবিধি ও জনসচেতনতা বৃদ্ধির পাশাপাশি প্রতিরোধ সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে জেলা, মহানগর, উপজেলাসহ তৃণমূলের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। দলটির তৃণমূলের নেতারা বলছেন, মফস্বল ও গ্রামের মানুষের অসচেতনতাটা অনেক বেশি। চায়ের দোকানে আড্ডা, বিয়ে, সমাজিক অনুষ্ঠান ও রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণকারীদের মাঝে সচেতনতাটা ছিল না। এখানে স্বাস্থ্যবিধি তো দূরের কথা মাস্কও পরে না মানুষ। এখন মানুষকে সচেতন করা, মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মানাতে উৎসাহী করতে কাজ করছেন তারা। এজন্য তারা মাইকিংসহ বিভিন্ন কর্মকা- চালাচ্ছেন। চট্টগ্রাম বিভাগের একটি জেলার সভাপতি বলেন, এখন সব থেকে বড় বিষয় হাটবাজার নিয়ন্ত্রণ করা। এখন তো আমাদের দলীয় কর্মকা-ই বন্ধ। বাজার বন্ধ থাকলে অনেকটাই কাভার হয়ে যায়, এটা থেকেও করোনা অনেক ছড়ায়। এখন সবচেয়ে বড় সমস্যা হলো ওয়াজ। ওয়াজে আগতদের স্বাস্থ্যসুরক্ষা মানার বিষয়ে এক ধরনের অনিহা কাজ করে। এখনো বিভিন্ন জায়গায় নিয়মিত ওয়াজ মাহফিল হচ্ছে। এটা নিয়ন্ত্রণ করতে হবে। তবে তৃণমূলের নেতারা লকডাউন বা সাধারণ ছুটির বিরোধিতা করছেন। তারা বলছেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললেই করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণ করা যাবে। কিন্তু লকডাউনে মানুষের মাঝে কর্মবিমুখতা তৈরি হয়, চাকরির অনিশ্চয়তা সৃষ্টি হয়। এতে জীবন-জীবিকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। দ্বিতীয় দফায় লকডাউন হওয়ায় কর্মহীন মানুষের সংখ্যা বাড়বে। সমস্যায় পড়বেন খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষেরা। এই বিষয়গুলোর প্রতি আমাদের খেয়াল রাখতে হবে।

এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দীন নাছিম বলেন, আওয়ামী লীগ সব সময় মানবিক কার্যক্রম পরিচালনা করে। যা দেশের অন্য কোনো রাজনৈতিক দল করতে পারে না। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ চলছে, এই পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগ মানবিক কার্যক্রম হাতে নিয়েছে। সারাদেশে এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

এ বিষয়ে দলের সভাপতিম-লীর সদস্য অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, আওয়ামী লীগের রাজনীতিই হল মানুষের কল্যাণে রাজনীতি করা। করোনা মহামারী হোক, যেকোনো দুর্যোগ হোক; বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জন্মলগ্ন থেকে আর্ত-মানবতার সেবায় ছুটে গিয়েছে। ইতোমধ্যেই আমাদের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মানুষের পাশে দাঁড়াতে নির্দেশনা দিয়েছেন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কীভাবে মোকাবিলা করা যায় এবং মানুষের পাশে থাকা যায় আমরা সেই পরিকল্পনা নিয়েই মাঠে আছি। যত কঠিন পরীক্ষাই হোক, মানুষের জীবন-জীবিকার চাকা যাতে থমকে না যায়, সে ব্যাপারে আমাদের দলের সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা প্রস্তুত আছে। এ বিষয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেন, জনসচেতনার জন্য আমরা রাজনৈতিকভাবে চেষ্টা করছি। গত শুক্রবার মসজিদে মসজিদে জনসচেতনতামূলক বার্তা দেয়ার জন্য তৃণমূলের নেতাদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। আমার নির্বাচনী এলাকার নেতারা আজ সেই কর্মকা- করেছে। এখন মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে। মাস্ক পরলে অনেক বেশি সুরক্ষা হয়।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীমে - ১৩
ফজর৩:৫৪
যোহর১১:৫৫
আসর৪:৩৩
মাগরিব৬:৩৫
এশা৭:৫৪
সূর্যোদয় - ৫:১৭সূর্যাস্ত - ০৬:৩০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৮৭৯০.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.