নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, শুক্রবার ৩১ জুলাই ২০২০, ১৬ শ্রাবণ ১৪২৭, ৯ জিলহজ ১৪৪১
শেরপুরে নন-এমপিও শিক্ষক প্রণোদনার টাকা নিয়েও নয়ছয়
শেরপুর (বগুড়া) প্রতিনিধি
বগুড়ার শেরপুরে বৈশি্বক মহামারী করোনাভাইরাসে প্রাদুর্ভাবের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীদের জন্য প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে দেয়া বিশেষ অনুদানের (শিক্ষক প্রণোদনা) টাকা নিয়ে নয়ছয় করা হয়েছে। অভিযোগ রয়েছে, প্রণোদনা পাওয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রধান নিজেই সবার পক্ষে স্বাক্ষর দিয়ে সব টাকা উত্তোলন করেন। কিন্তু অদ্যবধি সেই টাকা ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের দেয়া হয়নি। তাই বিতরণের তালিকায় নাম থাকলেও তাদের ভাগ্যে জুটেনি প্রণোদনার টাকা। এমনকি বিশেষ অনুদানের টাকা প্রাপ্তির বিষয়েও কিছুই জানেন না তারা। এমন ঘটনা ঘটেছে স্থানীয় পল্লী উন্নয়ন একাডেমি ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজে। এদিকে প্রণোদনার টাকা না পাওয়ায় এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির নন-এমপিও শিক্ষকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভের সঞ্চার হলেও চাকরি হারানোর ভয়ে মুখ খোলার সাহস পাচ্ছেন তারা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, মহামারী করোনাভাইরাসের কারণে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এই দুর্যোগের মধ্যে বেতন-ভাতা না পাওয়া এমপিওবিহীন শিক্ষক-কর্মচারীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত। তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে বিশেষ অনুদান (শিক্ষক প্রণোদনা) দেয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় এই উপজেলায় ১৩টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অনুকূলে মোট ১৭ লাখ ২০ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। চলতি মাসের ১১ জুলাই এই প্রণোদনার টাকা বিতরণ করা হয়। এই বিতরণ কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ মজিবর রহমান মজনু। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী শেখের সভাপতিত্বে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা নজমুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে ৩১৬ জন ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষককে পাঁচ হাজার টাকা এবং ৫৬ জন কর্মচারীকে আড়াই হাজার করে টাকা দেয়া হয়। তবে জনসমাগম এড়ানোর অজুহাত দেখিয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের প্রধানগণ সবার পক্ষে নিজেরাই স্বাক্ষর করে প্রণোদনার টাকাগুলো গ্রহণ করেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকদের হাতে পৌঁছানোর শর্তে নিয়ে যান। কিন্তু তাদের অনেকেই অদ্যবধি টাকাগুলো পাননি। বিশেষ করে পল্লী উন্নয়ন একাডেমি ল্যাবরেটরি স্কুল এন্ড কলেজের ৬৬ জন নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারী কেউই কোন প্রণোদনার টাকা পাননি। অথচ তাদের নামে সরকারিভাবে প্রণোদনার ২লাখ ৭৫ হাজার টাকা দেয়া হয় এবং তা উত্তোলনও করা হয়েছে। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে ওই স্কুলের নন-এমপিও শিক্ষক হাবিবা খাতুন, এমদাদুল হক, আব্দুর রাজ্জাক, সাইদুর রহমানসহ একাধিক শিক্ষক জানান, সরকারি প্রণোদনার কোন টাকা তারা পাননি। এমনকি এমন ফান্ডের কোন টাকা প্রাপ্তির বিষয়ে তাদের কিছুই জানা নেই। তাই এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে অস্বীকার করেন তারা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষকরা জানান, আমরা ওই প্রতিষ্ঠানে চাকরি করি। প্রণোদনার টাকা নয়ছয় হলেও আমাদের কিছুই বলার নেই। কারণ এই বিষয়ে কোন মন্তব্য করলেই চাকরি হারাতে হবে। আপনারাতো লিখেই খালাস। আর লিখেও তাদের কিছুই হবে না। তাদের কাছে সবাই ম্যানেজ। তারা আরও বলেন, এমনিতেই করোনায় বিপর্যস্ত। এরমধ্যে চাকরি হারালে তখন পরিবার-পরিজন নিয়ে খাবো কী- আক্ষেপ করে এমন মন্তব্য করেন ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষকরা।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে অত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল মান্নান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে স্কুল বন্ধ। তাই ছাত্র-ছাত্রীরা বেতনও দিচ্ছেন না। এ অবস্থায় বিভিন্ন ফান্ড থেকে টাকা ম্যানেজ করে শিক্ষক-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ঠিকই পরিশোধ করা হয়েছে। তাদের কোন বকেয়া নেই। এছাড়া ঈদুল আজহা আসন্ন। ঈদ বোনাস পরিশোধ নিয়েও চিন্তায় আছি। তাই সরকারিভাবে প্রণোদনার যে টাকা পাওয়া গেছে তা স্কুল ফান্ডে জমা করা হয়েছে। নন-এমপিও শিক্ষকদের বেতন সমন্বয় করে পরিশোধের জন্য এটি করা হয়েছে। তাই এবিষয়ে ওইসব শিক্ষকরা কিছুই বলতে পারবেন না বলে স্বীকার করেন অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল মান্নান। বিষয়টি সম্পর্কে জানতে চাইলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী শেখ বলেন, করোনার কারণে ওই প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষ সব শিক্ষক-কর্মচারীর প্রণোদনার টাকা গ্রহণ করেছেন। তবে টাকা বিতরণের মাস্টাররোলে সবারই স্বাক্ষর করে এনে দিয়ে গেছেন। এরপরও কোন অনিয়ম হয়ে থাকলে খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান এই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২৫
ফজর৪:৩৩
যোহর১১:৫১
আসর৪:১২
মাগরিব৫:৫৫
এশা৭:০৮
সূর্যোদয় - ৫:৪৮সূর্যাস্ত - ০৫:৫০
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪১৬৫১.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.