নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা,সোমবার ৫ আগস্ট ২০১৩, ২১ শ্রাবন ১৪২০, ২৬ রমজান ১৪৩৪
ডেমরায় সবকিছুতেই ভেজাল
ডেমরা থেকে নূর আলম ভূইয়া
রাজধানীর ডেমরার সর্বত্র খাদ্য পণ্যসামগ্রীতে চলছে ভেজালের ছড়াছড়ি। এসব ভেজাল কারবারিদের দাপটে ভোক্তা সাধারণ অসহায় হয়ে পড়লেও এদিকে দৃষ্টি নেই কোনো আইন প্রয়োগকারী সংস্থার। একদিকে রমজানের বাজারে নিত্যপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি, অপর দিকে খাদ্য সামগ্রীসহ পণ্যসামগ্রীতে অতি মাত্রায় ভেজাল একেবারেই দিশেহারা হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ। আর এই রমজানের চাহিদা বৃদ্ধির সুযোগটিই গ্রহণ করছে ভেজালকারিরা। অতি মুনাফালোভী একশ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট নির্বিঘ্নে খাদ্য ও পণ্যসামগ্রীতে ভেজাল দিয়ে যাচ্ছে।

বিশেষ করে এই রমজান ও ঈদকে সামনে রেখে চলছে ভেজালের ছড়াছড়ি। মুড়ি, গুড়, চিনি, তেলসহ প্রত্যেকটি জিনিসেই ভেজাল। কোথায় নেই ভেজাল! এমনই অবস্থা হয়েছে যে, ভেজালের দাপটে আসল খুঁজে পাওয়াই কষ্টকর হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইউরিয়া দিয়ে ভাজা হচ্ছে ইফতারির প্রধান উপকরণ মুড়ি, খাসির মাংস বলে বিক্রি করা হচ্ছে ছাগলের মাংস, গরুর মাংসের জায়গায় দিচ্ছে মহিষের মাংস, আর ষাঁড় গরুর মাংস বলে গাভীর মাংস এটা এখন আর তেমন নতুন কিছু নয়। তারপর রোগ্ন গরুর মাংস তো আছেই। দ্রব্যমূল্য যেভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে তাতে করে সামান্য ভেজাল দিতে পারলেই অনেক লাভ, সেখানে অতিমাত্রায় ভেজাল দিয়ে গলাকাটা লাভ হাতিয়ে নিচ্ছে এসব অসাধু ব্যবসায়ীরা। থানা পর্যায়ে ভেজাল বিরোধী আভিযান না থাকার কারণে ভেজালকারীরা আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছে। খাদ্যদ্রব্যে ভেজালের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ায় জনসাস্থ্য মারাত্মক হুমকির মুখে পড়ছে। এ সকল ব্যবসায়ীদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়ছে ক্রেতা সাধারণ। সরেজমিনে দেখা যায়, কোনো দোকানেই আজো মূল্য তালিকা টানানো হয়নি। এসকল মনিটরিংয়ের কোনো খবরও নেই সরকারের পক্ষ থেকে। ফলে অত্যন্ত বেপরোয়াভাবেই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে ভেজালকারীরা।

রোজার আগেই একদফা নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধিতে অনেকেই ভেবেছিল, রমজানে হয়তো আর দাম বাড়বে না। কিনুত্ম এ ক্ষেত্রেও হয়েছে তার উল্টো। রমজানে আরেক দফা মূল্য বৃদ্ধি ঘটেছে আবার ঈদ উপলক্ষে নিত্যপণ্যের মূল্য আরেক দফা বেড়েছে। বিকেল থেকে রাস্তার উপর হোটেল- রেস্তোরাঁর সামনে ভেজাল ইফতার সামগ্রী তৈরি করা হয়ে থাকে। এক্ষেত্রে ও একই তেলে ব্যবহৃত জিলেপি, পিঁয়াজু, ছোলা, আলুর চপ বেগুনি ইত্যাদি ভাজা ও বিক্রি করা হচ্ছে। রোজাদারগণ এসব ইফতার সামগ্রী খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেকেই। তাছাড়া অনেক বেকারির বিস্কুট, কেক, পাউরুটি, চানাচুর, সেমাই ইত্যাদি তৈরি করা হয় স্থানীয়ভাবে। যা কিনা মানসম্পন্ন নয়। আর এসব ভেজাল খাদ্যসামগ্রী খেয়ে সাধারণ মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়লেও এসব দেখার যেন কেউ নেই। হাসপাতালে কর্তব্যরত ডাক্তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ভেজাল খাবার খেয়ে মানুষ ক্রমেই ক্যান্সার, আলসারসহ বিভিন্ন মরণ ব্যাধিতে ধাবিত হচ্ছে। বিশেষ করে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম মেধাহীন পঙ্গত্বের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
Jobs in Bangladesh
Jobs in Bangladesh
আজকের নামাজের সময়সূচীআগষ্ট - ৫
ফজর ৪:০৮
যোহর ১২:০৫
আসর ৪:৪২
মাগরিব ৬:৪২
এশা ৮:০১
সূর্যোদয় - ৫:৩০সূর্যাস্ত - ০৬:৩৭
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৭৮
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদকঃ আহ্‌সান উল্লাহ্॥ প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত এবং সড়ক ৩১, বাড়ি ২৩, গুলশান, ঢাকা-১২১২ থেকে প্রকাশিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০। ফোনঃ ৮৩১৫১১৫ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.