নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা,সোমবার ৫ আগস্ট ২০১৩, ২১ শ্রাবন ১৪২০, ২৬ রমজান ১৪৩৪
ঈদের শেষ কেনাকাটায় ব্যস্ত রাজধানী
আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ
রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি, নিউ মার্কেট, ইস্টার্ণ প্লাজা, চাঁদনিচক, গাউসিয়া, পিংকসিটি, নাভানা বেলি স্টার, মেট্রো শপিং মল, ইস্টার্ন মল্লিকা, আজিজ সুপার মার্কেট ও এর আশপাশের ফুটপাতে দুপুরের পর থেকেই ভিড় বাড়তে শুরু করে।

মাসের শুরুতে চাকরিজীবীরা বেতন-বোনাস পেয়ে ঈদের আগের ছুটির দিনটিকে কাজে লাগাতেই কেনাকাটায় এসেছেন। ধানমণ্ডির মেট্রো শপিংমলে কেনাকাটা করতে আসা মানজারুল আলম জানান, বৃহস্পতিবার তিনি বেতন-বোনাস পেয়ে গেল ছুটির দিনসহ গতকালও এসেছেন শেষ মুহূর্তের কেনাকাটা করতে। কেননা ঈদে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার আগে আর ছুটি পাওয়া যাবে না বলে জানান।

এদিকে কেনাকাটায় বরাবরের মতো এবারও পুরুষের তুলনায় নারীরাই বেশি এসেছেন। ইস্টার্ন প্লাজার মনেরেখ শাড়িজ ঘরে শাড়ি কিনতে আসা আফসানা মনি দুদিন আগে না আসতে পারা নিয়ে আক্ষেপ করলেন। তবুও আজকের পরে আসার সুযোগটি কম। তাই এ ভীড়ের মধ্যেই কেনাকাটা করতে এসেছেন বলে জানান।

তবে এত ভীড়ও কেনাকাটায় খুব একটা প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করতে পারছেনা। পছন্দের পণ্যটি কিনতে ভীড় ঠেলেই যাচ্ছেন এ দোকান সে দোকানে। নিজের মনমতো জিনিসটি কিনে ফেরছেন স্বস্তির নিঃশ্বাস।

ইস্টার্ন প্লাজার থ্রিপিস কিনতে আসা আরেক ক্রেতা সুমিতি খন্দকার বলেন, 'আর দুদিন পরেই গ্রামে যাব। হলিডে শেষ তাই ভাবলাম মার্কেট ফাঁকা পাব। কিন্তু এসে তো দেখি ভিন্ন চিত্র। তারপরও ভারতীয় জিনাম নামের দুটি থ্রিপিস নিলাম। এখন বেশ ভালোই লাগছে।'

এদিকে শেষ মুহূর্তের কেনাকাটায় বাজারে ক্রেতার প্রচুর ভীড় থাকায় পণ্যের দাম বাড়তি রাখা হচ্ছে না বলে জানান নিউ মার্কেটের 'মেয়ে ফ্যাশনে'র মালিক ও বিক্রেতা মাহী। তবে ক্রেতাদের কেউকেউ বেশি দাম রাখার অভিযোগও করলেন। গাউছিয়ায় থ্রিপিস কিনতে আসা রিয়া বললেন, যে থ্রিপিস আগের সোমবার তার বোন ১৭০০ টাকা দিয়ে নিয়েছিলেন আজ সেটা ২০০০ টাকা চাওয়া হচ্ছে।

নিউ মার্কেটের ফুটপাতের থানকাপড় বিক্রেতা আসাদুল বলেন, বেচাকেনার অবস্থা বেশ ভালো। তিনি জানানা, দুপুর থেকে বেচাকেনার চাপে তিনি বিশ্রাম নিতে পারেনি। পিংক সিটি শপিং মলের গুলশান শাড়িজ ঘরের আকতার হোসেন জানায়, অন্যান্য দিনের চেয়ে আজ তার বেচাবিক্রি বেশি হচ্ছে। বেচাবিক্রির জন্য তার দোকানে থাকা কর্মীরা কোনো ফুসরত পাচ্ছেননা।

কেনাকাটার এ উৎসবের দিনে তীব্র যানজটে প্রায় স্থবির হয়ে গেছে রাজধানীর প্রধান সড়কসমূহ।

বসুন্ধরা সিটিতে কেনাকাটা করতে আসা জাইদুল জানান, তিনি দুপুরে উত্তরা থেকে বের হয়েছেন। আর বসুন্ধরায় পৌঁছেছেন বেলা তিনটার দিকে। তবে এত ঝক্কির পরেও জাইদুল পছন্দের কেনাকাটা সেরে বাসায় ফিরবেন বলে জানান।

এদিকে বিকেল সাড়ে চারটার দিকে মৎস ভবনের মোড়ে জ্যামে আটকে থাকা বাসযাত্রী সোহেল জানান, তিনি দুপুর দুইটায় যাত্রাবাড়ি থেকে বাসে উঠেছেন বসুন্ধরা সিটিতে যাবেন কেনাকাটা করতে। অথচ তিন সাড়ে তিন ঘণ্টায়ও সেখানে পৌঁছাতে পারবেন কিনা সে ব্যাপারে সন্দিহান তিনি।

আজিজ সুপার মার্কেটের এক ক্রেতা পাভেল বেশ কয়েকটি নকশাদার পাঞ্জাবি কিনেছেন। তিনি বললেন, যানজট তো আমাদের শহরের নিত্য ঘটনা কিন্তু ঈদের কেনাকাটাতো বছরে একবারই করা যায় তাই ভীড়, যানজট তেমন কোনো বিষয়ই না এই কেনাকাটার উৎসবের দিনে।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
Jobs in Bangladesh
Jobs in Bangladesh
আজকের নামাজের সময়সূচীআগষ্ট - ৫
ফজর ৪:০৮
যোহর ১২:০৫
আসর ৪:৪২
মাগরিব ৬:৪২
এশা ৮:০১
সূর্যোদয় - ৫:৩০সূর্যাস্ত - ০৬:৩৭
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৫৩৩
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদকঃ আহ্‌সান উল্লাহ্॥ প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত এবং সড়ক ৩১, বাড়ি ২৩, গুলশান, ঢাকা-১২১২ থেকে প্রকাশিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয়ঃ খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০। ফোনঃ ৮৩১৫১১৫ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.