নিবন্ধিত হোন |
ইউজার সাইনইন
ই-মেইলঃ
পাসওয়ার্ডঃ
পাসওয়ার্ড ভুলে গেছেন?
ই-মেইলঃ 
বন্ধ করুন (X)
ঢাকা, বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৩১ ভাদ্র ১৪২৮, ৬ সফর ১৪৪৩
দশমিনায় বিলুপ্তির পথে শাফলা ফুল
দশমিনা (পটুয়াখালী) প্রতিনিধি
পটুয়াখালীর দশমিনায় বিল ও ডোবানালায় চোখে পড়ার মতো ছিল শাপলা ফুলের সমারোহ। শাপলা ভরা বিলের মন মাতানো সৌন্দর্যে চোখের পলক ফেলা মুশকিল ছিল। বর্ষা থেকে শরতের শেষ পর্যন্ত খাল-বিল, জলাশসহ নিচু জমিতে এমনিতেই জন্মাত পচুর শাপলা ও ঢ্যাপ। শিশুরাতো বটেই সব বয়সের মানুষ রঙ- বেরঙের শাপলার বাহারি রূপ দেখে মুগ্ধ হতেন। উপকূলীয় উপজেলার জলাশয় থেকে বিলুপ্ত প্রায় শাপলা ফুল। নয়নাভিরাম মনোমুগ্ধকর শাপলার প্রতি আকর্ষণ সবার বেশি। বর্ষা মৌসুমের শুরুতে এ ফুল ফোটে। খাল-বিল-জলাশয় ও নিচু জমিতে প্রাকৃতিকভাবেই জন্ম নেয় শাপলা। আবহমানকাল থেকে শাপলা মানুষের খাদ্য তালিকায় সবজি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত ছিল। আর শিশুদের ছিল খেলার উপকরণ।

প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি সাংবাদিক ইবরাহিম আহাম্মেদ অরবিল বলেন, শাপলা ফুল বাংলার সাংস্কৃতিতে এক অনন্য রূপ। শাপলাকে রক্ষা করা বাঙালি হিসেবে আমাদের নৈতিক দায়িত্ব। উপজেলা সদর ইউনিয়নের এফ আহাম্মেদ বলেন, বর্ষার শুরুতে সকালে বিভিন্ন স্থানে শাপলার বাহারী রূপ দেখে চোখ জুড়িয়ে যেত। এসব দৃশ্য চোখে না দেখলে বোঝানো যাবে না। অনেকে আবার শাপলা বিক্রি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন।

স্থানীয়ভাবে সহজলভ্য হওয়ায় এলাকার লোকজন শাপলা তুলে খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করে বিক্রি করতেন। তিনি আরো বলেন, বর্তমান সভ্যতায় বাড়তি জনগণের চাপের কারণে আবাদি জমি ভরাট করে বাড়ি, পুকুর, মাছের ঘের বানানোর ফলে বিল ও জলাশয়ের পরিমাণ কমে যাচ্ছে।

যার কারণে শাপলা জন্মানোর জায়গাও কমে আসছে। বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ দাসপাড়া গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য নিজাম উদ্দিন রাঢ়ি বলেন, শাপলা খুব পুষ্টি সমৃদ্ধ সবজি ও ঔষধি কাজে ব্যবহৃত হয়। উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের বিল ও ডোবা নালাসহ বিলে অপরিকল্পিতভাবে অতিরিক্ত পুকুর খনন, কৃষি জমিতে স্থাপনা নির্মাণের ফলে শাপলা ফুল আজ বিলুপ্তির পথে। বিভিন্ন বিল ও জলাশয়গুলোতে প্রাকৃতিকভাবে মাছ পাওয়া যেত সেগুলো এখন পরিকল্পিতভাবে মাছ চাষের আওতায় নিয়ে আসার কারণে সেখানে আর শাপলা ফুল জন্মাতে পারে না।

প্রাচীনকাল থেকেই শাপলা ফুল (ঢ্যাপ) দিয়ে চমৎকার সুস্বাদু খৈ তৈরি হয়। মাটির নিচের মূল অংশকে শালুক বলে। শাপলা আসলে প্রাকৃতিকভাবে জন্ম নেয়া ফুল, কোনো রকম পরিচর্যা ছাড়াই বিলে ঝিলে জন্ম নেয় অপরূপ সৌন্দর্যময় এই শুভ্র ফুলটি। শাপলা আসলে কয়েক প্রকারের হয়ে থাকে,যার মধ্যে সাদা ফুলবিশিষ্ট শাপলাটি অনেকেই সবজি হিসেবে খেয়ে থাকে। জাতীয় ফুল শাপলা সাধারণত আবদ্ধ অগভীর জলাশয়, খাল-বিলে জন্মে থাকে। শাপলা ফুল রক্ষায় সবাইকে এগিয়ে আসা প্রয়োজন বলে মনে করেন প্রকৃতিপ্রেমী সচেতনমহল।
এই প্রতিবেদন সম্পর্কে আনার মতামত দিন।
মতামত দিতে চাইলে অনুগ্রহ করে করুন।
আপনার কোন একাউন্ট না থাকলে রেজিষ্ট্রেশন করুন।
এই পাতার আরো খবর -
সর্বাধিক পঠিত
ফটো গ্যালারি
আজকের পত্রিকা
আজকের নামাজের সময়সূচীসেপ্টেম্বর - ২২
ফজর৪:৩২
যোহর১১:৫২
আসর৪:১৪
মাগরিব৫:৫৮
এশা৭:১১
সূর্যোদয় - ৫:৪৭সূর্যাস্ত - ০৫:৫৩
পুরোন সংখ্যা
বছর : মাস :
আজকের পাঠকসংখ্যা
৪৩৮৮.০
সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতিঃ সৈয়দ এম. আলতাফ হোসাইন। সম্পাদক : আহ্সান উল্লাহ্। প্রকাশক ছৈয়দ আন্ওয়ার কর্তৃক রোমাক্স লিমিটেড, তেজগাঁও শিল্প এলাকা থেকে মুদ্রিত। সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খলিল ম্যানশন (৩য়, ৫ম ও ৬ষ্ঠ তলা), ১৪৯/এ, ডিআইটি এক্সটেনশন এভিনিউ, ঢাকা-১০০০ থেকে প্রকাশিত। ফোন : ৯৩৫৭৭৩০ (বার্তা), ৮৩১৫৬৪৯ (বাণিজ্যিক), ফ্যাক্স : ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪.
ই-মেইলঃ djanata123@gmail.com, bishu.janata@gmail.com
ফোনঃ ০২৮৩১৫১১৫, ০২৮৩১৫৬৪৯ ফ্যাক্সঃ ৮৮-০২-৮৩১৪১৭৪
Copyright The Dainik Janata © 2010 Developed By : orangebd.com.